kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কমনওয়েলথ ছাড়ার ঘোষণা দিল মালদ্বীপ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



কমনওয়েলথ থেকে সদস্যপদ প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছে মালদ্বীপ। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানসহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম খবরটি নিশ্চিত করেছে।

দেশে দুর্নীতি ও মানবাধিকার পরিস্থিতির ‘অবনতির’ জন্য ৫৩ দেশের জোট কমনওয়েলথের চাপের মুখে ছিল মালদ্বীপ। মালদ্বীপের অভিযোগ, কমনওয়েলথের কার্যনির্বাহী কর্তৃপক্ষ (সিএমএজি) তাদের সঙ্গে ‘অন্যায়’ ও ‘অশোভন’ আচরণ করেছে।

মালদ্বীপের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে কমনওয়েলথ থেকে সদস্যপদ বাতিলের সিদ্ধান্তটিকে ‘কঠিন তবে অত্যাবশ্যক’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে।  

২০১২ সালে মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদের ক্ষমতাচ্যুতির পর থেকে কমনওয়েলথের কার্যনির্বাহী কর্তৃপক্ষের (সিএমএজি) চাপের মুখে রয়েছে মালদ্বীপ সরকার। নাশিদের সমর্থকদের দাবি, সেটি অভ্যুত্থান ছিল। গত ২৩ সেপ্টেম্বর মালদ্বীপ সরকারকে দেওয়া এক নোটিশে সিএমএজি বলে, বিচার বিভাগে হস্তক্ষেপ করায় বিরোধী নেতাদের আটক ও বিচার নিয়ে যে উদ্বেগ রয়েছে তা ছয় মাসের মধ্যে মীমাংসা করতে হবে। নাশিদের ক্ষমতাচ্যুতির পর থেকে তিনবার মালদ্বীপকে আংশিক কিংবা পুরোপুরিভাবে কমনওয়েলথ থেকে সাময়িক বহিষ্কারের হুমকি দেওয়া হয়েছিল।

সেপ্টেম্বরে কমনওয়েলথ হিউম্যান রাইটস ইনিশিয়েটিভের (সিএইচআরআই) এক প্রতিবেদনেও মালদ্বীপে মৌলিক অধিকার ক্ষুণ্ন হওয়া এবং রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের (বিচার বিভাগ, পুলিশসহ) অপব্যবহারের আরো প্রমাণ তুলে ধরা হয়। এমন প্রেক্ষাপটে মালদ্বীপের ওপর চাপ ক্রমাগত জোরালো হতে থাকে। তবে মালদ্বীপ সরকারের অভিযোগ, কমনওয়েলথ মূলত আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে নিজেদের সংশ্লিষ্টতা প্রমাণ করতে এবং নিজস্ব উদ্দেশ্য সাধনের জন্যই গণতন্ত্র উন্নয়নের নামে মালদ্বীপকে লক্ষ্যবস্তু করেছে।

সূত্র : গার্ডিয়ান।


মন্তব্য