kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ইয়েমেনে চড়া মূল্য দিতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ইয়েমেন যুদ্ধে সাধারণ নাগরিকদের চড়া মূল্য দিতে হচ্ছে। জাতিসংঘের দেওয়া তথ্যানুযায়ী, যুদ্ধে এ পর্যন্ত ছয় হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছে, তাদের বেশির ভাগই সাধারণ মানুষ।

গত শনিবার রাজধানী সানায় এক জানাজা অনুষ্ঠানে বিমান হামলায় ১৪০ জনেরও বেশি মানুষ মারা গেছে। এ ঘটনায় সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনী যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যৌথভাবে তদন্ত করতে সম্মত হয়েছে।

২০১৫ সালের মার্চ মাস থেকে শুরু হওয়া যুদ্ধে চার হাজার ১৪ জন সাধারণ মানুষ মারা গেছে। এ সময়ে আহত হয়েছে প্রায় সাত হাজার নাগরিক। জাতিসংঘের মানবাধিকার অফিসের মুখপাত্র রুপার্ট কলভিল গত মঙ্গলবার জানিয়েছেন, গত আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে হঠাৎ করে সাধারণ নাগরিক হত্যার সংখ্যা বেড়ে গেছে। এ সময়ে বিদ্রোহীদের তুলনায় অন্তত ছয় গুণ বেশি সাধারণ নাগরিক নিহত ও আহত হয়েছে।

ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধে প্রেসিডেন্ট আবদ্রাবো মনসুর হাদিকে সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনী সমর্থন দিচ্ছে। অন্যদিকে ইরান শিয়া হুথি বিদ্রোহীদের সমর্থন দিচ্ছে। এ লড়াইয়ের মাঝখানে পড়ে সাধারণ নাগরিকদের প্রতিনিয়ত মৃত্যুর মুখোমুখি হতে হচ্ছে। গত ১৫ আগস্ট উত্তর ইয়েমেনের এক হাসপাতালে বিমান হামলায় ১৯ জন মারা যায়। হাসপাতালটি ফ্রান্সের সংস্থা ডক্টরস উইদ আউট বর্ডার্স (এমএসএফ) সহায়তায় পরিচালিত হতো। এ ঘটনা ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয়। জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন হাসপাতালে হামলায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন এবং হাসপাতাল, চিকিৎসার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি ও সাধারণ নাগরিকের ওপর হামলাকে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের বড় অবমাননা বলে উল্লেখ করেন।

২০১৫ সালের ৪ আগস্ট মোখায় এক আবাসিক কমপ্লেক্সে হামলায় ৬৫ জন নিহত হয়। ১৫ মার্চ হাজায় এক মার্কেটে বিমান হামলায় অন্তত ১১৯ জন নিহত হয়, যাদের মধ্যে ১০৬ জন ছিল সাধারণ নাগরিক। এর মধ্যে ২৪টিই ছিল শিশু।

২০১৫ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মোখায় এক বিয়ে অনুষ্ঠানের কাছে বিমান হামলায় ১৩১ জন নিহত হয়। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন জোট অস্বীকার করে। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য