kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গণভোটে শান্তিচুক্তি প্রত্যাখ্যান

জঙ্গলে ফিরে যাচ্ছে ফার্ক বিদ্রোহীরা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



গণভোটে শান্তিচুক্তি প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পর কলম্বিয়ার রেভল্যুশনারি আর্মড ফোর্সেস অব কলম্বিয়ার (ফার্ক) গেরিলারা আবার জঙ্গলে এবং পাহাড়ে তাদের পুরনো আস্তানায় ফিরে যাচ্ছে। সরকারের সঙ্গে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার পর জাতিসংঘের উপস্থিতিতে তারা অস্ত্র ত্যাগের জন্য দেশের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর এল দিয়ামান্তে জড়ো হচ্ছিল।

আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা রেডক্রস জানিয়েছে, গেরিলারা এখন নিজেদের পরিবহন ব্যবস্থায় আবার আস্তানায় ফিরে গেছে।

রেডক্রসের আন্তর্জাতিক কমিটির একটা সূত্র জানিয়েছে, ‘তারা অস্ত্রহীন অবস্থায় সাধারণ মানুষের পোশাকে চলে গেছে। ’ ফার্ক সদস্যরা কী ধরনের যানবাহনে গেছে এবং কতজন গেছে সে ব্যাপারে সূত্রটি কিছু জানাতে পারেনি।

অর্ধ শতাব্দীরও বেশি সময় ধরে চলা কলম্বিয়ার গৃহযুদ্ধের অবসানের লক্ষ্যে গত চার বছর ধরে আলোচনার পর শান্তিচুক্তিটি হয়েছিল। কিন্তু গণভোটে চুক্তির পক্ষে সায় দেয়নি জনগণ। কলাম্বিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট আলভারো উরিবে গণভোটের বিপক্ষে প্রচারাভিযান চালান। চুক্তি হলে বিদ্রোহীরা তাদের অপরাধের শাস্তি পাবে না এবং দেশকে কিউবা ও ভেনেজুয়েলার পথে নিয়ে যাবে বলে তিনি সতর্ক করে দেন।

এদিকে গণভোটে হারের পর কলাম্বিয়া প্রেসিডেন্ট হুয়ান ম্যানুয়েল সান্তোস সতর্ক করে দিয়ে এ ঘটনাকে, ‘খুবই বিপজ্জনক অবস্থা’ বলে জানিয়েছেন। তিনি আরো জানান, সেনাবাহিনী ফার্ক বিদ্রোহীদের সঙ্গে অস্ত্র বিরতি এ মাসের শেষ পর্যন্ত অব্যাহত রাখবে। এ সময়ের মধ্যে যদি কোনো সমাধান না পাওয়া যায় তাহলে সময়সীমা বাড়ানো হতে পারে।

এদিকে বিরোধী দল জানিয়েছে, বিদ্রোহীদের সঙ্গে আরো কঠিন এক চুক্তির জন্য প্রেসিডেন্ট চেষ্টা করতে পারে। ফার্ক নেতারা জানান, তাঁরা শান্তিচুক্তির জন্য প্রতিজ্ঞা করেছেন, তবে নতুন কোনো চুক্তি করা হবে কি না, তা এখনো পরিষ্কার নয়। চুক্তির ব্যাপারে অনিশ্চয়তা থাকলেও ফার্ক নেতারা তাঁদের সদস্যদের নিরাপদ স্থানে চলে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

পাঁচ দশক ধরে চলা কলম্বিয়ার গৃহযুদ্ধে এ পর্যন্ত দুই লাখ ৬০ জন মারা গেছে, নিখোঁজ রয়েছে ৪৫ হাজার। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য