kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মিস ইউনিভার্সের পিছু ছাড়ছেন না ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



মিস ইউনিভার্সের পিছু ছাড়ছেন না ট্রাম্প

প্রেসিডেন্ট প্রার্থীসুলভ বক্তব্যের পরিবর্তে আবারও কদর্যতার দিকেই গেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী রিপাবলিকান ডোনাল্ড ট্রাম্প। একসময় যে নারীকে ‘মিস পিগি’ বলে অপমান করেছেন ট্রাম্প, তাঁকে আবার আপত্তিকর ভাষায় টুইটারে আক্রমণ করেছেন তিনি।

গত শুক্রবার ভোররাতে এক টুইটে ট্রাম্প সাবেক মিস ইউনিভার্স অ্যালিসিয়া মাশাদোর অতীত ইতিহাস ও সেক্স টেপ খতিয়ে দেখতে আমেরিকানদের প্রতি আহ্বান জানান। ভেনিজুয়েলায় জন্ম নেওয়া এই নারীকে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব পেতে সাহায্য করেছেন ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিলারি ক্লিনটন—এমন অভিযোগও করেছেন ট্রাম্প। টুইটার বার্তায় তিনি বলেন, ‘বিতর্কে কাজে লাগানোর স্বার্থে কূটচালের হিলারিই কি বিরক্তিকর অ্যালিসিয়া মাশাদোকে (সেক্স টেপ ও অতীত ঘেঁটে দেখুন) যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক হতে সাহায্য করেছেন?’

এসবের জবাবে ওই দিন ফ্লোরিডায় নির্বাচনী সভায় হিলারি বলেন, ‘একজন সাবেক মিস ইউনিভার্সকে আক্রমণ করার জন্য যে ব্যক্তি ভোররাত ৩টায় টুইটারে ব্যস্ত হয়ে ওঠেন, সে কোন ধরনের লোক? এতে আবার প্রমাণিত হলো, স্বভাবের দিক থেকে তিনি প্রেসিডেন্ট ও কমান্ডার ইন চিফ হওয়ার অনুপযুক্ত। ’ ট্রাম্পের এসব কথা ‘বিকৃত মস্তিষ্কের বক্তব্য’ অ্যাখ্যা দেন হিলারি।

এদিকে অ্যালিসিয়া বলেন, ‘আমাকে অপমান করা, ভয় দেখানো এবং আমার জীবন এলোমেলো করে দেওয়ার জন্য রিপাবলিকান প্রার্থী (ট্রাম্প) ও তাঁর দল আবার আমার বিরুদ্ধে অপবাদ ও মিথ্যা অভিযোগ দাঁড় করাচ্ছে। এ ধরনের বিদ্বেষপূর্ণ বক্তব্যের মধ্য দিয়ে তিনি নারীদের কলঙ্কিত করতে চাইছেন, নীতিহীন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চাইছেন, যা তাঁর স্বভাবেও আছে। ’

১৯৯৬ সালে মিস ইউনিভার্স খেতাবজয়ী অ্যালিসিয়া এক বছরের মধ্যে অস্বাভাবিক মুটিয়ে যাওয়ায় লাতিনো এ নারীকে নানা অপমানসূচক অ্যাখ্যা দেন ওই সুন্দরী প্রতিযোগিতার তৎকালীন নির্বাহী প্রযোজক ট্রাম্প। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য