kalerkantho


সৌদি আরবের হুঁশিয়ারি

৯/১১ হামলা বিল যুক্তরাষ্ট্রের ‘সর্বনাশা পরিণতি’ ঘটাবে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো সৌদি আরবের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণের মামলা করতে পারবে বলে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে যে বিল পাস হয়েছে তাকে ‘অত্যন্ত উদ্বেগের কারণ’ হিসেবে অভিহিত করেছে সৌদি আরব। তারা যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ারি দিয়েছে এই বলে যে, এই বিল যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ‘সর্বনাশা পরিণতি’ ডেকে আনবে।

সৌদি আরবের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসকে তাদের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করে দেখারও আহ্বান জানিয়েছে।

২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ারে হামলার ঘটনায় তিন হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়। হামলায় জড়িত ১৯ জনের মধ্যে ১৫ জনই ছিল সৌদি নাগরিক। সৌদি এ হামলায় নিজেদের জড়িত থাকার কথা বরাবরই নাকচ করে আসছে।

কংগ্রেসে পাস হওয়া ‘জাস্টিস অ্যাগেইনস্ট স্পন্সর অব টেররিজম অ্যাক্ট’ বা ‘জাস্টা’ নামের বিলটি আইনে পরিণত হলে নিহতদের স্বজনরা ক্ষতিপূরণ চেয়ে সৌদি সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারবে। বিলটির বিরুদ্ধে ভেটো দিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। বিলটির পক্ষে ভোট না দেওয়ার জন্য কংগ্রেস সদস্যদের রাজি করানোর চেষ্টা করেছিলেন তিনি। কিন্তু তাঁর ভেটো সত্ত্বেও কংগ্রেসে বিলটি পাস হয়। ফলে, বিলটি এখন আইনে পরিণত হতে আর বাধা নেই।

সৌদি আরবের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, বিলটি বাস্তবায়ন হলে যুক্তরাষ্ট্রসহ যেকোনো দেশের ওপর এর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র গতকাল বৃহস্পতিবার জানায়, বিপর্যয়কর ও মারাত্মক পরিণতি ঠেকানোর জন্য রিয়াদের পক্ষ থেকে মার্কিন কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, ‘এ আইন রাষ্ট্রগুলোর অনাক্রম্য ব্যবস্থাকে দুর্বল করবে এবং যুক্তরাষ্ট্রসহ সব দেশের জন্য নেতিবাচক প্রভাব তৈরি করবে। ’

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধী রিপাবলিকান দলের নেতারা বলেছেন, আইনটিকে তাঁরা পুনর্বিবেচনা করতে চান। সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা মিচ ম্যাককোনেল বলেছেন, এই আইনের সম্ভাব্য ফলাফল ও পরিণতি কী হতে পারে তা এখনো আইন প্রণয়নকারীরা নিজেরাও বুঝতে পারছেন না।

ওবামা দেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এবং গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএকে বরাবরই হুঁশিয়ার করেন, আইনটি যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি সৃষ্টি করবে। কারণ এর ফলে রীতি অনুযায়ী অন্য দেশের সরকারি কর্মকর্তাদের বিচারের ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রে যে দায়মুক্তি দেওয়া হয়, সেটি আর থাকবে না। ফলে অন্য দেশে কর্মরত মার্কিন বাহিনী বা কর্মকর্তাদেরও একইভাবে বিচারের আওতায় আনার ঝুঁকি তৈরি হবে।

গত মাসে যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে সৌদি বাদশাহর পাঠানো এক বার্তায় বলা হয়, বিলটি পাস হলে সৌদি আরব যুক্তরাষ্ট্রে ৭৫ হাজার কোটি ডলারের বন্ড এবং অন্যান্য বিনিয়োগ তুলে নেবে। তবে বিলটি পাস হওয়ায় খুশি নাইন ইলেভেনে নিহতদের আত্মীয়স্বজন। সূত্র : বিবিসি, এএফপি।


মন্তব্য