kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আন্তর্জাতিক তদন্ত প্রতিবেদন

এমএইচ১৭ বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে রুশ ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



পূর্ব ইউক্রেনের আকাশে মালয়েশিয়ান এয়ারলাইনসের এমএইচ১৭ ফ্লাইটটি রাশিয়ায় তৈরি ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে ধ্বংস হয়েছিল বলে নিশ্চিত করেছেন আন্তর্জাতিক তদন্তকারীরা। এবং সেটি ছোড়া হয় রুশপন্থী বিদ্রোহী অধ্যুষিত এলাকা থেকে।

রাশিয়া এ তদন্তকে নাকচ করে দিয়ে বলেছে, এ তদন্ত প্রতিবেদন সম্পূর্ণভাবে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

২০১৪ সালের ১৭ জুলাই নেদারল্যান্ডসের রাজধানী আমস্টারডাম থেকে মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুর যাওয়ার পথে রুশপন্থী অধ্যুষিত পূর্ব ইউক্রেনের আকাশে বিধ্বস্ত হয় এমএইচ১৭। ওই ঘটনায় বোয়িং ৭৭৭ বিমানের ২৯৮ আরোহীর সবাই মারা যায়।  

এ ঘটনার তদন্তে নেদারল্যান্ডসের নেতৃত্বে অস্ট্রেলিয়া, বেলজিয়াম, মালয়েশিয়া ও ইউক্রেনের কর্মকর্তাদের নিয়ে আন্তর্জাতিক তদন্ত দল (জেআইটি) গঠন করা হয়। ডাচ নেতৃত্বাধীন জেআইটি গতকাল বুধবার প্রকাশিত প্রতিবেদনে দাবি করে, রাশিয়ায় তৈরি বাক মিসাইলের (ভূমি থেকে উেক্ষপণযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র) আঘাতে বিমানটি আকাশেই বিধ্বস্ত হয় এবং সেটি রুশপন্থী অধ্যুষিত পূর্ব ইউক্রেনে ভূপাতিত হয়। ক্ষেপণাস্ত্রটি পূর্ব ইউক্রেন থেকেই ছোড়া হয়। ক্ষেপণাস্ত্রের উেক্ষপকটি (লঞ্চার) রাশিয়া থেকে আনা হয়েছিল এবং পরে সেটি রাশিয়ায় ফিরিয়ে নেওয়া হয়। পূর্ব ইউক্রেনের রুশপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন দোনেত্স্ক পিপলস রিপাবলিক নেতারা অবশ্য এ ঘটনার সঙ্গে তাঁদের সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করেছেন।

রাশিয়া সরকার এ প্রতিবেদনকে ‘চরমভাবে রাজনৈতিক’ উল্লেখ করে এটি প্রত্যাখ্যান করেছে। তাদের দাবি, রুশ ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে এমএইচ১৭ বিধ্বস্ত হয়নি। অন্যদিকে রাশিয়ার বিবৃতিকে উসকানিমূলক বলে মন্তব্য করেছেন কমনওয়েলথ অব ইনডিপেনডেন্ট স্টেটের (সিআইএস) পার্লামেন্টারি কমিটির প্রধান লিওনিড স্লাটস্কি। বলা দরকার, জেআইটির এই প্রতিবেদন প্রকাশের মধ্য দিয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি লড়াইয়ে নামার পথ সুগম হলো।

সূত্র : বিবিসি।


মন্তব্য