kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিতর্কের পর প্রচারণার মাঠে হিলারি ও ট্রাম্প

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বিতর্কের পর প্রচারণার মাঠে হিলারি ও ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে অনুষ্ঠিত প্রথম টেলিভিশন বিতর্কে ১-০-তে এগিয়ে গেছেন ডেমোক্রেটিক দলের প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। বিতর্কের পরদিন অর্থাৎ গত মঙ্গলবার থেকেই নতুন উদ্যমে প্রচার শুরু করেছেন তিনি।

অন্যদিকে হিলারিকে নাস্তানাবুদ করতে না পারলেও পিছিয়ে নেই রিপাবলিকান দলের প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রচারে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন তিনিও। বিতর্কে জিহ্বায় লাগাম দিলেও প্রচারের শুরু থেকেই আবার স্বরূপে আবির্ভূত হয়েছেন এই ধনকুবের। ‘কুটিল’ বিশেষণ ব্যবহার করা ছাড়া প্রতিপক্ষের নামও উচ্চারণ করছেন না তিনি।

গত সোমবার ৯৮ মিনিটের বিতর্ক সেরে প্রচারের বিমানে উঠে পড়েন হিলারি। সঙ্গী সাংবাদিকদের তিনি বলেন, তাঁর রিপাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বী ‘ভয়াবহ রকম অসংলগ্ন’। ১৫ মাস ধরে চলা এই প্রচারে বিতর্কের পরই সবচেয়ে স্বস্তি পেয়েছেন বলে জানিয়ে তিনি মন্তব্য করেন, ‘বিতর্ক নিয়ে আমি সন্তুষ্ট। ’ বলা হচ্ছে, আট কোটি ৪০ লাখ দর্শক গত সোমবার এ বিতর্ক দেখে। বিতর্কের ইতিহাসে এটা সর্বোচ্চ দর্শকের অংশগ্রহণ। এর আগে ১৯৮০ সালে আট কোটি ছয় লাখ দর্শক জিমি কার্টার ও রোনাল্ড রিগ্যানের বিতর্ক উপভোগ করেছিল।

বিতর্ক চলাকালে বারবার নাক টানছিলেন ট্রাম্প। যেন তীব্র সর্দিতে ভুগছেন তিনি। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা চলছে। হ্যাশট্যাগ জুড়ে দিয়ে ট্রাম্পের সর্দি নিয়ে নানা মন্তব্য করছে ডেমোক্রেটিক দলের নেতারাসহ হিলারির সমর্থকরা। তবে বিষয়টি মানতে নারাজ ট্রাম্প। তার সর্দি, নিউমোনিয়া বা অ্যালার্জি—কিছুই নেই জানিয়ে দাবি করেছেন, মাইক্রোফোনের সমস্যার কারণেই তাঁর কণ্ঠ অনেকের কাছেই ভারী লেগেছে।

এ নিয়ে রসিকতা করতে ছাড়েননি হিলারি। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আজ মাইক্রোফোনের দোহাই দিলেও রাতে ঘুমাতে পারবেন না তিনি। হিলারি আরো বলেন, ‘বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদটির জন্য মেজাজে, শারীরিকভাবে ও যোগ্যতায় কে উপযুক্ত তা বিবেচনার সুযোগ ছিল এই বিতর্ক। আমি মনে করি, আমাদের দুজনের মধ্যে পার্থক্য স্পষ্ট হয়ে গেছে। ’ ট্রাম্প বিতর্ক শেষে প্রচার চালাচ্ছেন ফ্লোরিডায়।

সূত্র : এএফপি, বিবিসি।


মন্তব্য