kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ভারত পানিচুক্তি ভাঙলে আন্তর্জাতিক আদালতে যাবে পাকিস্তান

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ভারত পানিচুক্তি ভাঙলে আন্তর্জাতিক আদালতে যাবে পাকিস্তান

সারতাজ আজিজ

ভারত যদি সিন্ধু পানিচুক্তি ভঙ্গ করে তবে পাকিস্তান আন্তর্জাতিক আদালতের শরণাপন্ন হবে। এই সতর্কবার্তা দিয়েছে পাকিস্তান।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের পররাষ্ট্র উপদেষ্টা সারতাজ আজিজ বলেছেন, আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী ভারত একতরফাভাবে চুক্তি থেকে সরে যেতে পারে না। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভারত-পাকিস্তান পানিচুক্তি নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠক করার পর পাকিস্তান এই সতর্কবার্তা দেয়।

ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু ও কাশ্মীরের উরিতে সন্ত্রাসী হামলার পর ভারতের বিভিন্ন মহলে পাকিস্তানে হামলাসহ দেশটিকে চাপে ফেলার প্রবল দাবি ওঠে।   ভারতের নীতিনির্ধারকরা শুরু থেকেই পাকিস্তানকে বাগে আনতে কূটনৈতিক প্রচেষ্টা ও কৌশলগত চাপের ওপর জোর দিয়ে আসছেন। রবিবার মোদি ১৯৬০ সালের ভারত-পাকিস্তান পানিচুক্তি নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠকে বসেন। সেখানে মোদি বলেন, ‘রক্ত ও পানি একসঙ্গে প্রবাহিত হতে পারে না। ’ উরির সেনা চৌকিতে হামলার জন্য পাকিস্তানকে কী কী উপায়ে শাস্তি দেওয়া যায়, সে ব্যাপারে সভায় আলোচনা হয়। বিশ্লেষকরা জানান, ভারত থেকে পাকিস্তানে প্রবাহিত ছয়টি নদীর পানির স্বাভাবিক প্রবাহ রুদ্ধ করা হতে পারে।

পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম জানায়, সারতাজ আজিজ বলেছেন, ‘যদি ভারত চুক্তি ভঙ্গ করে তবে পাকিস্তান আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের শরণাপন্ন হতে পারে। আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে ভারত একতরফাভাবে চুক্তি থেকে নিজেদের সরিয়ে নিতে পারে না। এই চুক্তি কার্গিল ও শিয়াচেন যুদ্ধের সময়ও বাতিল হয়নি। ’

ভারত থেকে মোট ছয়টি নদী পাকিস্তানের দিক বয়ে গেছে। ১৯৬০ সালে সিন্ধু পানিচুক্তি অনুসারে এই ছয় নদীর তিনটি নদীর পানি ভারতের ব্যবহারের জন্য নির্ধারিত হয়। এই তিন নদীর পানি ভারত যেকোনো উপায়ে ব্যবহার করতে পারবে। অন্য তিন নদীর পানি পাকিস্তান ব্যবহারের অধিকার পায়। চুক্তি অনুযায়ী, এই তিন নদীর পানি ভারতের ব্যবহার করার সুযোগ থাকলেও তা আটকাতে বা পানির ধারাকে অন্যদিক প্রবাহিত করতে পারবে না। মূলত এই তিন নদীর পানির ওপর পাকিস্তানের কৃষি অনেকটা নির্ভরশীল। সে কারণে পাকিস্তানের কৃষি অর্থনীতিকে স্তব্ধ করে দিতে ভারতের ভেতর থেকে এই চুক্তি বাতিলের দাবি উঠেছে। সূত্র জানায়, মোদির বৈঠকে পাকিস্তানের ব্যবহার করা তিন নদীর পানি অন্য কী উপায়ে ব্যবহার করা যায় সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে। জম্মু ও কাশ্মীরে তুলবুল প্রকল্পে এই পানি ব্যবহারের পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।


মন্তব্য