kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ট্রাম্পকে নিয়ন্ত্রণে বেগ পেতে হয় সঞ্চালককে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ট্রাম্পকে নিয়ন্ত্রণে বেগ পেতে হয় সঞ্চালককে

যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর মধ্যকার বিতর্কে উভয় পক্ষের উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়ের রাশ টানতে গিয়ে সঞ্চালক লেস্টার হল্টকে রীতিমতো বেগ পেতে হয়েছে। গত সোমবার রাতে অনুষ্ঠিত ডেমোক্র্যাট হিলারি ক্লিনটন ও রিপাবলিকান ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যকার বিতর্কে সঞ্চালকের ভূমিকায় ছিলেন সংবাদমাধ্যম এনবিসি নিউজের সংবাদ উপস্থাপক হল্ট।

বিতর্কের প্রথম দিকে হল্ট প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে দুই প্রতিদ্বন্দ্বীকে তাঁদের মতো করে কথা বলার সুযোগ দেন। বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অনেক সঞ্চালকই এমন কৌশল গ্রহণ করে থাকেন। কিন্তু হিলারি-ট্রাম্পের বাগ্যুদ্ধে সেই কৌশল নিয়ে খুব একটা এগোতে পারেননি সঞ্চালক। কেননা পরিস্থিতি খুব দ্রুত উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। বিতর্কের উত্তেজনা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার আগেই তাঁদের বক্তব্যে প্রয়োজনমাফিক হস্তক্ষেপ করতে থাকেন হল্ট।

দুই প্রার্থী যখন যুক্তির স্টিমরোলারে পরস্পরকে একেবারে পিষে ফেলার চেষ্টা করছেন, তেমন পরিস্থিতির একপর্যায়ে হল্ট ট্রাম্পকে স্মরণ করিয়ে দেন, সংশ্লিষ্ট প্রশ্নোত্তরের জন্য তাঁর হাতে ২২ সেকেন্ড সময় আছে। এর পরও ট্রাম্প ৫৫ সেকেন্ড খরচ করে ফেলেন। মাঝেমধ্যে ট্রাম্পের বিভিন্ন দাবির সত্যাসত্য যাচাইয়ের জন্যও হস্তক্ষেপ করেন হল্ট। এই যেমন নির্বাচনী প্রচারকালে ইরাক যুদ্ধের সমর্থনের কথা বললেও বিতর্কের সময় ট্রাম্প দাবি করেন বসেন, ‘আমি ইরাক যুদ্ধের বিপক্ষে ছিলাম। ’ এ ছাড়া প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার জন্মস্থানসংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর ট্রাম্পের কাছ থেকে কোনোভাবেই আদায় করতে পারেননি হল্ট। প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্রে ওবামার জন্মগ্রহণ নিয়ে নির্বাচনী প্রচারকালে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন এ রিপাবলিকান।

বিতর্ক শেষে ট্রাম্প অবশ্য সঞ্চালকের প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেন, ‘হল্ট সত্যিই ভালো করেছেন। ’ সেই সঙ্গে ‘হল্ট একজন ডেমোক্র্যাট’ এমন মন্তব্যও করেন ট্রাম্প। তবে সত্যি কথা হলো, ভোটার রেকর্ড অনুসারে হল্ট একজন রেজিস্টার্ড রিপাবলিকান। সূত্র : এপি।


মন্তব্য