kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সিরিয়া সংকট

বর্বরতা চালানোর অভিযোগের জবাবে রাশিয়ার সতর্কবার্তা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বর্বরতা চালানোর অভিযোগের জবাবে রাশিয়ার সতর্কবার্তা

সিরিয়ার আলেপ্পো শহরে রাশিয়ার বোমা হামলাকে ‘বর্বরতা’ বলে অভিহিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘে মার্কিন রাষ্ট্রদূত সামান্থা পাওয়ার রবিবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠকে সিরিয়ার বর্তমান পরিস্থিতির জন্য সরাসরি রাশিয়াকে দোষারোপ করেন।

অন্যদিকে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, আলেপ্পোর কাছে জাতিসংঘের ত্রাণবহরে বিমান হামলার পেছনে রাশিয়া জড়িত থাকলে তারা ‘যুদ্ধাপরাধ করে থাকতে পারে’। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে রাশিয়া বলেছে, তাদের এসব বক্তব্য ‘অগ্রহণযোগ্য’। তারা সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, ওই দেশগুলোর এ ধরনের ভাষা ব্যবহার সিরিয়ায় শান্তি স্থাপনের প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে দিতে পারে।

সিরিয়ায় পাঁচ বছর ধরে চলা রক্তক্ষয়ী সংঘাতে দেশটির আলেপ্পো শহর এখন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ যুদ্ধক্ষেত্র। শহরটির দখল নিয়ে সিরিয়ার সরকারি বাহিনী ও বিদ্রোহীদের মধ্যে তীব্র লড়াই চলছে। গতকাল সোমবারও বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকায় বোমা হামলা চালানো হয়। এতে অন্তত দুজন বেসামরিক লোক মারা যায়। হামলার কারণে সেখানে খাদ্য ও ওষুধ সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে বলে জানিয়েছে সেখানকার বাসিন্দারা। সিরিয়ায় কর্মরত মানবাধিকার সংগঠনগুলোর মতে, যুদ্ধবিরতি বন্ধ হওয়ার পর সেখানে যে পরিমাণ হতাহত হয়েছে এর প্রায় অর্ধেকই শিশু।

এদিকে আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা রেড ক্রস জানিয়েছে, রবিবার রাজধানী দামেস্কের কাছে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত মাদায়া ও জাবাদানি এলাকা এবং সরকার নিয়ন্ত্রিত ইদলিব প্রদেশের ফোয়া ও কেফরায়া এলাকায় জরুরি সরবরাহ নিয়ে জাতিসংঘের ত্রাণবহর প্রবেশ করেছে। ৬০ হাজার লোকের জন্য খাদ্য, ওষুধ ও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র পাঠানো হয়েছে।  

যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন ও ফ্রান্সের অনুরোধে রবিবার জাতিসংঘে নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক বসে। সেখানে সামান্থা পাওয়ার সিরিয়ার পরিস্থিতির জন্য সরাসরি রাশিয়ার দিকে আঙুল তোলেন। তিনি বলেন, সিরিয়ায় অভিযান নিয়ে রাশিয়া নিরাপত্তা পরিষদকে নির্জলা মিথ্যা তথ্য দিয়েছে। সামান্থা বলেন, ‘এই দুর্দশা বন্ধে রাশিয়ার অনেক ক্ষমতা ছিল। শান্তির পরিবর্তে রাশিয়া ও সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ যুদ্ধ করছেন। তারা ত্রাণবাহী গাড়িবহরে, হাসপাতালে ও জীবন বাঁচাতে এগিয়ে যাওয়া ব্যক্তিদের ওপর বোমা ফেলছে। ’ আলেপ্পোয় রাশিয়া যা করছে তাকে ‘বর্বরতা’ আখ্যা দেন সামান্থা। রাশিয়াকে থামানোর জন্য নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

অন্যদিকে সংবাদমাধ্যম বিবিসির একটি অনুষ্ঠানে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন মন্তব্য করেন, আলেপ্পোর কাছে ত্রাণবহরে বিমান হামলার পেছনে রাশিয়া জড়িত থাকলে তারা ‘যুদ্ধাপরাধ করে থাকতে পারে’। তিনি বলেন, ‘রুশ বাহিনী ইচ্ছাকৃতভাবে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর হামলা করেছে কি না তা আমাদের খতিয়ে দেখা উচিত। সেটি হয়ে থাকলে তা নিশ্চিতভাবেই যুদ্ধাপরাধ। ’

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে আলেপ্পোর কাছে রেড ক্রিসেন্টের একটি ত্রাণ বহরে বিমান হামলায় ত্রাণবাহী ১৮টি লরি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়, নিহত হয় ২০ জন। যুক্তরাষ্ট্র অভিযোগ করে, রুশ বিমান থেকে ওই হামলা চালানো হয়েছে। অন্যদিকে হামলার দায় অস্বীকার করে রাশিয়া। তারা জানায়, বিদ্রোহীদের গোলাবর্ষণ অথবা যুক্তরাষ্ট্রের চালকবিহীন বিমান (ড্রোন) থেকে হামলা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের সমালোচনার জবাবে গতকাল ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেশকভ বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের কর্মকর্তারা যে ভাষা ও স্বরে তারা কথা বলেছেন, তা একেবারেই অগ্রহণযোগ্য। এতে সিরিয়ায় শান্তি প্রচেষ্টা এবং আমাদের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে ব্যাহত করতে পারে। ’ সূত্র : বিবিসি, এএফপি।


মন্তব্য