kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আলেপ্পোর ধ্বংসযজ্ঞে মর্মযাতনায় জাতিসংঘ মহাসচিব

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



আলেপ্পোর ধ্বংসযজ্ঞে মর্মযাতনায় জাতিসংঘ মহাসচিব

জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন সিরিয়ার আলেপ্পো শহরে ভয়াবহ আকারে সামরিক অভিযান বাড়তে থাকায় নিজের তীব্র বেদনাবোধের কথা জানিয়েছেন। শনিবার তাঁর এই কষ্টের কথা জানানোর দিনই মুহুর্মুহু বিমান হামলা শহরটিতে আটকে থাকা কমপক্ষে ৪৫ বেসামরিক মানুষের জীবন কেড়ে নিয়েছে।

তিনি বেসামরিক নাগরিকদের জীবন রক্ষার ব্যর্থতার জন্য দিনটিকে একটি ‘অন্ধকার দিন’ আখ্যায়িত করেছেন।

আলেপ্পোবাসী জীবন বাঁচাতে পরিখা করে তার ভেতর আশ্রয় নিয়েছে, তবে গোলার আঘাতে ভবনগুলে গুঁড়িয়ে গিয়ে তাদের ওপর পড়ায় মারা যাচ্ছে শিশু-নারীসহ নিরীহ মানুষ। এই পরিস্থিতিতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের আজ জরুরি বৈঠকে বসার কথা। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স এই বৈঠকে বসার অনুরোধ জানিয়েছে।

গত সপ্তাহে যুদ্ধবিরতি ভেঙে যাওয়ার পর সিরীয় সরকার রাশিয়ার সহায়তা নিয়ে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত আলেপ্পো শহরে বিমান হামলা জোরদার করে চলেছে। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের পরিচালিত হামলায় রাশিয়ার সমর্থনকে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন বলছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। যুক্তরাষ্ট্র ও এর ইউরোপীয় মিত্ররা শনিবার বলেছে, রাশিয়াকেই তার মিত্র সিরিয়া সরকারের রাশ টেনে ধরতে বিশেষ পদক্ষেপ নিতে হবে। জাতিসংঘ জানিয়েছে, আলেপ্পোয় হামলার কারণে পানি সরবরাহ বন্ধ হয়ে ২০ লাখ মানুষ চরম সংকটে পড়েছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা জানিয়েছে, শনিবার আলেপ্পোর বিদ্রোহী অধ্যুষিত অঞ্চলগুলোতে সরকারি বাহিনীর হামলায় অন্তত ৯১ জন নিহত হয়েছে। জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুনের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, আলেপ্পোতে ব্যাপক-বিস্তৃত সামরিক পদক্ষেপে মহাসচিব খুবই মর্মাহত। মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিচ বলেন, মহাসচিব জানিয়েছেন, খুবই ঠাণ্ডা মাথায় সামরিক কর্মকাণ্ডের বিস্তৃতির ঘটনা তাঁকে আতঙ্কিত করে তুলেছে। বেসামরিক মানুষকে রক্ষা করতে ব্যর্থ হওয়ার শনিবারের দিনটিকে তিনি কালো দিন অভিহিত করেছেন।

সূত্র : এএফপি, বিবিসি।


মন্তব্য