kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


প্রথম বিতর্ক সামনে রেখে বিশেষজ্ঞ পরামর্শ

‘হিলারিকে টানতে হবে ভোটারদের আবেগ, ট্রাম্পকে হতে হবে যৌক্তিক’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



‘হিলারিকে টানতে হবে ভোটারদের আবেগ, ট্রাম্পকে হতে হবে যৌক্তিক’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে কাগজে-কলমে চার প্রার্থী লড়াই করলেও মূল লড়াইটা হবে আসলে ডেমোক্র্যাট হিলারি ক্লিনটন ও রিপাবলিকান ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে। কেননা জনমত জরিপে বাকি দুই প্রার্থীর উভয়ের প্রতি জনসমর্থন ১০ শতাংশের নিচে দেখা যাচ্ছে।

কিন্তু হিলারি-ট্রাম্প একেবারে মুখোমুখি অবস্থানে। সুতরাং আগামীকাল সোমবার তাঁদের মধ্যকার বিতর্কটা এখন নির্বাচনী আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে।

বিশ্লেষকদের মতে, বেশির ভাগ ভোটার তাঁদের পছন্দের প্রার্থীর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন। আগামীকালের বিতর্ক তাঁদের সেই সিদ্ধান্তকে আরো জোরালো করবে। কিন্তু যাঁরা এখনো দোদুল্যমান, তাঁরা চুলচেরা দৃষ্টিতে হিলারি ও ট্রাম্পের এ বিতর্ক দেখবেন। তাই সামান্যতম দুর্বলতা বা ভুল উভয়ের জনসমর্থনের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে।

অনেক বেশি সূক্ষ্ম ও আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি গ্রহণকারী সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারির প্রতি বিশ্লেষকদের পরামর্শ, সঞ্চালকের প্রশ্নের উত্তর দানকালে অতিমাত্রায় কৌশলগত ও পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ দেওয়া থেকে বিরত থাকাটা তাঁর জন্য মঙ্গলজনক। এর চেয়ে বরং জয় পাওয়ার জন্য দর্শকদের সঙ্গে আরো বেশি আবেগের সম্পর্ক তৈরির চেষ্টা করতে তাঁকে পরামর্শ দিয়েছেন যোগাযোগ উপদেষ্টা কারমাইন গ্যালো। তাঁর প্রতি প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সদুপদেশ, ‘আপন সত্তাটা মেলে ধরুন এবং কিসে আপনি উদ্বুদ্ধ হন, সেটা তুলে ধরুন। ’ এসবের পাশাপাশি প্রতিপক্ষে যেকোনো আক্রমণের জবাবে দৃঢ় অবস্থান গ্রহণের যে ক্ষমতা হিলারির রয়েছে, সেটা তাঁর বিতর্ককে আরো শক্তিশালী করবে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা।

ট্রাম্প সম্পর্কে গ্যালোর অভিমত, ‘ট্রাম্প তাঁর ভোটারদের সঙ্গে গভীর আবেগের সম্পর্কে আবদ্ধ। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর জন্য এ অবস্থান অর্জন করা একদম কঠিন কাজ। আবেগ প্রায়ই তথ্য-উপাত্তকে ছাপিয়ে যায়। ’ এ বিবেচনায় ট্রাম্প অনেকটা সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে বলে বিশ্লেষকদের অভিমত। উল্টাপাল্টা ও আক্রমণাত্মক মন্তব্য করা এবং কারো নামের সঙ্গে অপমানসূচক শব্দ জুড়ে দেওয়াসহ ট্রাম্পের বিভিন্ন বদ অভ্যাসের প্রসঙ্গ টেনে ইউনিভার্সিটি অব মিসৌরির রাজনৈতিক যোগাযোগবিষয়ক অধ্যাপক মিচেল ম্যাককিনি বলেন, ‘প্রাইমারির বিতর্কের মতো ট্রাম্প নিশ্চয়ই একই বাক্য বারবার বলে, আত্মপ্রশংসা করে এবং প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করে এ বিতর্কে পুরো সময়টা কাটিয়ে দেবেন না। গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য তুলে ধরার সুযোগ তিনি পাবেন। সেই সুযোগের মুখোমুখি হওয়ার আগেই তিনি কি তাঁর বক্তব্য প্রস্তুত করতে পারবেন? আমাদের নজর সেদিকেই থাকবে। ’

হিলারি ও ট্রাম্পের মধ্যকার তিনটি বিতর্কের প্রথমটি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামীকাল সোমবার। লং আইল্যান্ডের হেমস্টেড শহরের হফস্টার ইউনিভার্সিটিতে বসছে ৯০ মিনিটের এ বিতর্কের আসর। বিশ্লেষকদের ধারণা, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের বিতর্ক দেখতে যে পরিমাণ দর্শক এবার টেলিভিশনের সামনে বসবে, তা অতীত রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য