kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


হিলারির সঙ্গে বিতর্ক সোমবার

ট্রাম্প কী বলবেন কী করবেন?

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ট্রাম্প কী বলবেন কী করবেন?

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ইতিহাসে এই প্রথম একজন নারী প্রার্থীর উপস্থিতি এবারের পর্বকে এমনিতেই অনন্য করে তুলেছে। আর তাঁর বিপরীতে অন্যতম যে প্রতিদ্বন্দ্বী রয়েছেন, তাঁর অশিষ্ট, এলোমেলো এবং একই সঙ্গে হাস্যরসাত্মক কথাবার্তা নির্বাচনী মৌসুমের শুরু থেকেই আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়ে চলেছে।

আগামী সোমবার প্রথমবারের মতো বিতর্কে নেমে বেসামাল স্বভাবের এই প্রার্থী তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীকে কিভাবে পরাস্ত করার চেষ্টা চালাবেন, তা নিয়ে জল্পনা কল্পনায় ব্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রের সাধারণ মানুষ এমনকি গণমাধ্যমগুলোও।

নির্বাচনপূর্ব জনমত জরিপে ক্রমেই এগোতে থাকা রিপাবলিকান ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে কেন এত ভাবনা? কারণ একটাই—তাঁর অযৌক্তিক এবং আক্রমণাত্মক আচরণ। বিতর্কে নেমে তিনি হয়তো অন্য সময়ের মতোই হিলারিকে ‘কুটিল’ কিংবা ‘মিথ্যাবাদী’ বলে বসবেন। বারবার এসব কথা বলে তিনি হয়তো হিলারিকে অনাস্থাভাজন হিসেবে উপস্থাপনের চেষ্টা চালাবেন এবং নিজেকে অধিকতর যোগ্য প্রার্থী হিসেবে প্রমাণ করতে চাইবেন। ৯/১১ উপলক্ষে স্মরণ অনুষ্ঠানে হিলারির হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ার প্রসঙ্গ টেনে তিনি হয়তো জিজ্ঞাসা করে বসবেন, ‘আজ আপনি কেমন আছেন, হিলারি?’ এখানে বলা দরকার, হিলারির ওই হঠাৎ অসুস্থতার পর প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের খুঁটিনাটি স্বাস্থ্যতথ্য প্রকাশ করা নিয়ে তোলপাড় ফেলে দিয়েছিলেন ট্রাম্প। হিলারিকে দুর্নীতিবাজ প্রমাণ করতে গিয়ে ট্রাম্প হয়তো বলে বসবেন, ‘হিলারি, আপনি এত দুর্নীতিবাজ! আমার বিয়েতে আসার জন্য আমি তো আপনাকে ঘুষ দিয়েছিলাম। ’—এমন অনুমানও করেছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য টেলিগ্রাফ।

ট্রাম্প সত্যি হয়তো এমন কথা বলে বসবেন না। এর পরও তাঁর আক্রমণ কোন দিক থেকে আসবে, সেটা অনুমান অসম্ভব। তাই বলে থেমে নেই হিলারি। বলা দরকার, ২০০৮ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রাইমারিতে তিনি যখন বারাক ওবামার বিরুদ্ধে বিতর্কে অংশে নিচ্ছিলেন, তখন তিনি তুলনামূলক বেশ ভালো করেছিলেন। এবারও তাঁর যুক্তির ভাণ্ডার বেশ সমৃদ্ধ। প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে এরই মধ্যে তিনি ৪০টির বেশি বিতর্কে অংশ নিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট হলে তাঁর দেশ পরিচালনার নীতি কী হবে, সেসব নিয়ে তিনি মাসের পর মাস পড়াশোনা করেছেন। ট্রাম্পের দুর্বলতা খুঁজে বের করতে তাঁর বিভিন্ন সময়ের বক্তব্যের ভিডিও খুঁটিয়ে দেখতে বাদ রাখেননি হিলারি। ট্রাম্পের ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পেতে মনোবিজ্ঞানীদের সঙ্গে আলাপও করেছেন হিলারির প্রচার কর্মকর্তারা। কিন্তু সমস্যা একটাই, ট্রাম্পের মতো নজিরবিহীন একজন প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর

মুখোমুখি হতে হবে হিলারিকে।

সূত্র : দ্য টেলিগ্রাফ।


মন্তব্য