kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


জাতিসংঘে অঙ্গীকার

রাখাইনে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা করবেন সু চি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



সাংবিধানিক জটিলতায় মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের নেতা অং সান সু চির প্রেসিডেন্ট হওয়া আটকে গেলেও জাতিসংঘে দেশের হয়ে তাঁর প্রতিনিধিত্ব করাটা আটকায়নি। গত বুধবার জাতিসংঘে ভাষণদানকালে তিনি দেশের সংকট জর্জরিত রাখাইন রাজ্যে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার করেন।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭১তম অধিবেশন শুরু হয়েছে গত মঙ্গলবার। সপ্তাহব্যাপী অধিবেশনের দ্বিতীয় দিন বুধবার মিয়ানমারের সরকারি উপদেষ্টা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী সু চি বক্তব্য দেন। বক্তব্যে তিনি সাম্প্রদায়িক দ্বন্দ্বকবলিত রাখাইনে শান্তি প্রতিষ্ঠায় গঠিত কমিশনের প্রসঙ্গ টেনে আনেন। তিনি বলেন, ‘কমিশন গঠনের ব্যাপারে কোনো কোনো শিবির তীব্র বিরোধিতা করেছে। এর পরও রাখাইন রাজ্যে সম্প্রীতি, শান্তি ও অগ্রগতি অর্জনের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার ব্যাপারে আমরা বদ্ধপরিকর। ’ তিনি আরো বলেন, ‘পক্ষপাতদুষ্টতা ও অসহিষ্ণুতার শক্তির বিরুদ্ধে দৃঢ় অবস্থান গ্রহণের মাধ্যমে আমরা মৌলিক মানবাধিকার, মর্যাদা ও মানবিক গুণাবলিসম্পন্ন মানুষের গুরুত্বের ওপর বিশ্বাস পুনর্ব্যক্ত করছি। ’ বিশ্বনেতাদের প্রতি সু চির আহ্বান, ‘আমি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সমঝোতামূলক ও গঠনমূলক সহায়তা করার আহ্বান জানাচ্ছি। ’ তবে সু চি ভাষণে একবারও ‘রোহিঙ্গা’ শব্দটি ব্যবহার করেননি।

বৌদ্ধপ্রধান মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বসবাসরত মুসলিম রোহিঙ্গারা ২০১২ সালে তীব্র সহিংসতার শিকার হয়। এতে বহু হতাহতের পাশাপাশি বর্তমানে প্রায় সোয়া লাখ রোহিঙ্গা আশ্রয়শিবিরে মানবেতর জীবন যাপন করছে। সূত্র : এএফপি।

 


মন্তব্য