kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


রক্ষণশীলদের কাছে ধরনা ট্রাম্পের

নিরাপত্তা নিয়ে কথা বললেন হিলারি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



রক্ষণশীলদের কাছে ধরনা ট্রাম্পের

হিলারি ক্লিনটন, ডোনাল্ড ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারকাজে বর্তমানে অনেকটা গুছিয়ে কথা বলার চেষ্টা করা রিপাবলিকান ডোনাল্ড ট্রাম্প গত শুক্রবার দেশের সবচেয়ে রক্ষণশীল অংশের ভোট পাওয়ার জন্য তাদের আশার বাণী শুনিয়েছেন। অন্যদিকে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন কথা বলেছেন সন্ত্রাসবাদ ও জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে, যা আপামর মার্কিনির কাছেই গুরুত্বপূর্ণ।

শুক্রবার ওয়াশিংটনে ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারসভায় জড়ো হন তাঁর দলের তৃণমূল কর্মীরা, রক্ষণশীল ও একই সঙ্গে সুসংহত অবস্থানে থাকা আইনপ্রণেতারা, গর্ভপাতবিরোধী এবং ধর্মীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতারা। এ সভায় ধর্মপরায়ণ ও সামাজিকভাবে রক্ষণশীল জীবনযাপনকারী নাগরিকদের ভোট নিশ্চিত করার প্রত্যাশায় ট্রাম্প বলেন, ‘আমার প্রশাসনে আমাদের খ্রিস্টীয় ঐতিহ্য থাকবে সযত্নে সুরক্ষিত এবং এ ক্ষেত্রে নিরাপত্তা এতটা নিশ্চিত করা হবে, যা আগে কখনো দেখা যায়নি। ’

প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীল এই অংশের লাখ লাখ মানুষ গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী মিট রমনিকে ভোট দেওয়ার পরিবর্তে ঘরে বসে দিনটি পার করে। তাই তাদের উদ্দেশে ট্রাম্প বলেন, ‘আপনাদের ঘর ছেড়ে বের হতে হবে এবং ৮ নভেম্বর ভোট দিতে হবে। চার বছর আগে আপনারা ভোট দিতে যান নাই। ’ এদিন তিনি গর্ভপাত বিরোধিতা এবং নানা ধরনের রক্ষণশীল সামাজিক বিষয় নিয়েও কথা বলেন।

পরে ফ্লোরিডায় রাখা বক্তব্যে ট্রাম্প সেনাবাহিনীতে পরিবর্তন আনার অঙ্গীকার করেন। এ ছাড়া তিনি বাণিজ্যনীতি গতিশীল করার কথা বলেন, যার মাধ্যমে দেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়বে বলে তাঁর দাবি। এ সময় হিলারির ব্যাপারে ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেন, ‘পুরনো দিনের ব্যর্থ রাজনীতিকদের ইতিহাসের বই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। একটা নতুন অধ্যায় শুরু হচ্ছে এবং সেই অধ্যায় লিখবেন আপনারা, আমেরিকান জনতা। ’

হিলারি এদিন নিউ ইয়র্কে দুই দলের সমর্থকদের নিয়ে গঠিত বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেলের সঙ্গে সন্ত্রাসবাদবিরোধী পদক্ষেপ এবং জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ নিয়ে কথা বলেন। বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট বিচারে এ দুটি ইস্যুই দল-মত-নির্বিশেষে যুক্তরাষ্ট্রের সব নাগরিকের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলে বিশ্লেষকদের অভিমত। যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর সাবেক পরিচালক ডেভিড পেট্রাউস, আফগানিস্তানে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্র সেনাবাহিনীর সাবেক কমান্ডার জন অ্যালেন এবং জাতীয় সন্ত্রাসবিরোধী কেন্দ্রের সাবেক পরিচালক ম্যাট ওলসেন হিলারির সঙ্গে আলোচনায় অংশ নেন।

আলোচনা শেষে হিলারি বলেন, ‘আমাদের দেশ সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং যেসব বিষয়ের মুখোমুখি হচ্ছে, সেসবের মধ্যে কিছু কিছু বিষয় নিয়ে খোলাখুলি আলাপ করার জন্য আমি তাদের আমার সঙ্গে আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছি। কারণ আমার বিশ্বাস, আমেরিকার জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টি অবশ্যই আমাদের পরবর্তী প্রেসিডেন্টের কাছে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পেতে হবে। ’ তিনি আরো জানান, আরো বিশেষ বাহিনী, আরো যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তি ও প্রশিক্ষক, গোয়েন্দা তৎপরতা বৃদ্ধির প্রতি তাঁর সমর্থন আছে।

নিউ ইয়র্কে হিলারি তাঁর অর্থ সংগ্রহকারীদের এক নির্বাচনী সভাতেও অংশ নেন। সমকামী, উভগামী ও তৃতীয় লিঙ্গের সমর্থকদের এ সভায় তিনি ট্রাম্পের সমর্থকদের বর্ণবাদী, যৌন বৈষম্যবাদী, ইসলাম ভয়ে ভীত এবং অভিবাসীর ভয়ে ভীত বলে অভিহিত করেন। হিলারির মতে, ট্রাম্পের সমর্থকদের মধ্যে যাঁরা এ দলে পড়েন না, বাকি সেসব সমর্থকরা স্রেফ পরিবর্তনের জন্য মরিয়া

হয়ে ট্রাম্পকে সমর্থন দিচ্ছে।

সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য