kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দুই দশকে জনহীন এলাকা কমেছে এক-দশমাংশ

‘এ অবস্থা পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের জন্য ভীতিকর’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



দুই দশকে জনহীন এলাকা কমেছে এক-দশমাংশ

বিশ্বব্যাপী জনহীন এলাকার পরিমাণ গত দুই দশকে এক-দশমাংশ কমেছে। জনহীন এলাকা কমার এ ধারা যদি অব্যাহত থাকে তবে আগামী ১০০ বছরের মধ্যে পৃথিবীতে জনহীন এলাকা বলতে কিছু থাকবে না।

এক সমীক্ষা শেষে ওয়ার্ল্ড কনজারভেশন সোসাইটির গবেষকরা এ কথা জানান।

ওয়ার্ল্ড কনজারভেশন সোসাইটির তথ্য মতে, বিশেষ করে দক্ষিণ আমেরিকা ও আফ্রিকার আদিম প্রাকৃতিক ভূদৃশ্য ব্যাপকভাবে কমে যাচ্ছে। জনহীন এলাকার পরিবেশগত ও সাংস্কৃতিক মূল্য থাকা সত্ত্বেও আন্তর্জাতিক পরিবেশ সংরক্ষণ চুক্তিতে এ বিষয়টি উপেক্ষিত হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। তারা জনহীন এলাকা কমে যাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছে, এটি পরিবেশের জন্য ভীতিকর।

গবেষকদের মতে, বিশ্বের মোট স্থলভাগের এক-পঞ্চমাংশ জনহীন এলাকা হিসেবে চিহ্নিত। আবাসন, উন্নয়ন ও কল-কারখানা স্থাপনের কারণে ব্যাপক হারে ভূমির ব্যবহার বাড়ছে। এখন পর্যন্ত বিশ্বে সবচেয়ে অব্যবহৃত জমি রয়েছে উত্তর আমেরিকা, উত্তর এশিয়া, উত্তর আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়াতে।

অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর জেমস ওয়াটসন এবং নিউ ইয়র্কে যুক্তরাষ্ট্রের বন্য প্রাণী সংরক্ষণ সম্প্রদায় জানিয়েছে, জনহীন এলাকার ব্যাপারে পরিবেশসংক্রান্ত নীতি পুরোপুরি উপেক্ষিত হচ্ছে। ওয়াটসন আরো বলেন, ‘খুব বেশি দেরি হয়ে যাওয়ার আগে জনহীন এলাকা রক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক নীতি কার্যকরী করার জন্য কাজ করতে হবে। সম্ভবত এটা করার জন্য আমাদের হাতে একটা বা দুটো দশক সময় আছে। ’

নব্বইয়ের দশকের সঙ্গে তুলনা করে বিশ্বব্যাপী জনহীন এলাকার বর্তমান অবস্থার একটি চিত্র তুলে ধরেন বিজ্ঞানীরা। তাঁদের সেই চিত্র মতে, এ সময়ে ৩৩ লাখ বর্গকিলোমিটার এলাকা উজাড় হয়েছে। আর্থওয়াচ ইনস্টিটিউটের এনগেজমেন্ট অ্যান্ড সায়েন্স বিভাগের পরিচালক টুস ফন নুর্ডউইক বলেন, ‘নব্বইয়ের দশকের আগেই ইউরোপের বেশির ভাগ বনভূমি উজাড় হয়েছে। এখনো জীববৈচিত্র্য উপেক্ষিত হচ্ছে। ’ তিনি আরো বলেন, ‘অপরিকল্পিতভাবে বিশেষ করে কৃষিকাজে জমি ব্যবহারের কারণে বিশ্বব্যাপী জনহীন ভূমি উজাড় হচ্ছে। তবে আনন্দের বিষয় হচ্ছে আগের তুলনায় এখন অনেক বেশি কাজের ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। এখন জরুরিভাবে আমাদের এই সুযোগ গ্রহণ করতে হবে এবং জৈববৈচিত্র্য ও জনহীন এলাকা রক্ষা করতে হবে। ’ সূত্র : বিবিসি।


মন্তব্য