kalerkantho


সু চির জন্য উপদেষ্টা পদ সৃষ্টি

সেনা সদস্যদের তীব্র বিরোধিতা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



সেনা সদস্যদের তীব্র বিরোধিতা

মিয়ানমারে নতুন সরকারের কার্যক্রম শুরু হতে না হতেই অং সান সু চির দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) ও সেনাবাহিনীর পার্লামেন্ট সদস্যদের মধ্যে ঠোকাঠুকি শুরু হয়ে গেছে। সু চির ক্ষমতা জোরদারের লক্ষ্যে তাঁর জন্য রাষ্ট্রের বিশেষ উপদেষ্টা পদ তৈরির প্রস্তাব নিয়েই এ বিরোধ দেখা দেয়। অবশ্য তুমুল বিতর্কের মধ্য দিয়েই গতকাল পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষে প্রস্তাবটি পাস হয়েছে।

মিয়ানমারের নতুন প্রেসিডেন্ট ও এনএলডি সরকার গত বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা গ্রহণ করে। গতকাল শুক্রবার তাঁদের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরুর কথা থাকলেও আকস্মিকভাবে গত বৃহস্পতিবারই তাঁরা পার্লামেন্টে বসেন। আর প্রথম দিনই এনএলডি পার্লামেন্টে সু চিকে রাষ্ট্রের বিশেষ উপদেষ্টা পদে বসানোর প্রস্তাব উত্থাপন করে।

গতকাল পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষে এনএলডির প্রস্তাবটি নিয়ে বিতর্ক হয়। কর্নেল মিন্ত সয়ের আশঙ্কা, এনএলডির প্রস্তাব বাস্তবায়িত হলে প্রেসিডেন্ট ও উপদেষ্টা সমমর্যাদা লাভ করবেন। এটা সংবিধানবিরোধী মন্তব্য করে তিনি সংবিধান অনুসারে এ বিল সংশোধনের পরামর্শ দেন। পার্লামেন্টের আরেক সেনা সদস্য কর্নেল হ্লা উইন অং এনএলডির ওই প্রস্তাবে সু চির নাম উত্থাপন করায় তীব্র নিন্দা জানান। এ প্রস্তাব পাস হলে দেশের আইন, নির্বাহী ও বিচার বিভাগের মধ্যকার ক্ষমতার ভারসাম্য ধ্বংস হয়ে যাবে বলে মন্তব্য করেন এই আইন প্রণেতা।

সেনা সদস্যদের বিরোধিতা সত্ত্বেও গতকাল পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষে বিলটি পাস হয়। প্রস্তাবটি অসংবিধানিক কিংবা এমন আরো সব আশঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে এনএলডির পার্লামেন্ট সদস্য ও উচ্চকক্ষের বিল কমিটির চেয়ারম্যান জ মিন বলেন, ‘বিলটি সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক, এমন কথা এখনই বলা যাবে না। ’ তাঁর মতে, নবগঠিত সাংবিধানিক ট্রাইব্যুনালের ওপরই সিদ্ধান্তটা নির্ভর করছে। তবে বিলটি ট্রাইব্যুনালে উত্থাপন করা হবে কি হবে না, এ ব্যাপারে তিনি কিছু জানাননি।

জান্তা প্রভাবিত সদ্য বিদায়ী সরকারের আমলে প্রণীত সংবিধান অনুসারে দুই ছেলে ও প্রয়াত স্বামীর বিদেশি নাগরিকত্বের কারণে সু চি প্রেসিডেন্ট হতে পারেননি। তবে নির্বাচনের পর তিনি প্রেসিডেন্টের ওপর থেকে দেশ পরিচালনার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। বর্তমানে চারটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেওয়া সু চির ওই প্রত্যয়কে সাংবিধানিক রূপ দিতেই এনএলডি তাঁকে রাষ্ট্রের বিশেষ উপদেষ্টা করার প্রস্তাব তুলেছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য