kalerkantho

26th march banner

কলকাতায় ফ্লাইওভার পতনের সম্ভাব্য কারণ

দুর্নীতি গাফিলতি কিংবা নকশা?

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



দুর্নীতি গাফিলতি কিংবা নকশা?

কলকাতায় ফ্লাইওভারের নিচে চাপাপড়া যানবাহন। ছবি : আজকাল

কলকাতার জোড়াসাঁকোয় বৃহস্পতিবার ফ্লাইওভার ভেঙে পড়ার সম্ভাব্য তিন কারণের কথা বলছেন প্রযুক্তিবিদরা। প্রাথমিক তথ্য তালাশ করে তাঁরা বলছেন, দুর্নীতি, শ্রমিকের গাফিলতি, নকশায় গলদ—এই ত্রিফলায় বিঁধেই ঘটে গেছে এই দুর্ঘটনা। অথবা তা হতে পারে ওই তিনটির মধ্যে যেকোনো দুটি বা একটি কারণে ঘটেছে এই সর্বনাশ।

প্রযুক্তিবিদদের বক্তব্যের মূল নির্যাস, ‘যেকোনো ব্রিজ বা ফ্লাইওভারে কংক্রিটের পুরো ভারটাই ধরে রাখে গার্ডার স্ল্যাব বা বক্স। যার নিচে থাকে পিলার বা স্তম্ভগুলো। ওই গার্ডার স্ল্যাবগুলো ঠিকঠাকভাবে সেই ওজন বা ভারটা কতটা ধরে রাখতে পারছে, তার ওপরই নির্ভর করে সেই ফ্লাইওভার মজবুত কি না। এ ক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, ঢালাইয়ের কাজ বা কংক্রিটের গুণ-মান ঠিক ছিল না বলে এই দুর্ঘটনা ঘটেনি। এটা ঘটেছে মূলত গার্ডার স্ল্যাব বা বক্সের জন্যই। গার্ডার স্ল্যাবগুলো কংক্রিটের ভারটা নিতে পারেনি। ’

কেন পারেনি? প্রযুক্তিবিদদের কথায়, ‘এটি তিনটি কারণে হতে পারে। এক, হয়তো ওই গার্ডার স্ল্যাবগুলো বানানোর নকশায় গলদ ছিল। দুই, যেসব মালমসলা (মেটিরিয়ালস) দিয়ে ওই গার্ডার স্ল্যাবগুলো বানানো হয়েছিল, সেগুলো ঠিক ছিল না বা সেসব কমজোরি ছিল। এ-ও হতে পারে, সেসব মালমসলাকে যে পরিমাণে মিশিয়ে ওই গার্ডার স্ল্যাবগুলোকে বানানো উচিত ছিল, তা করা হয়নি। আর তিন, দুটো গার্ডার স্ল্যাব বা বক্সকে যে বিশাল টর্ক রেঞ্জ দিয়ে জোড়া হয়, সেই টর্ক রেঞ্জ ঠিকভাবে কাজ করেনি। জোরালোভাবে প্যাঁচ দেওয়া হয়নি। তাই ওই গার্ডার স্ল্যাব বা বক্সের সংযোগস্থলগুলো আলগা ছিল। তাই ওই স্ল্যাবগুলো ভেঙে পড়েছে। মালমসলার ব্যাপারটায় যেমন দুর্নীতি থাকতে পারে, তেমনি শ্রমিকের গাফিলতি থাকতে পারে ওই বক্সগুলোকে জোড়ার ক্ষেত্রে। ’

শেষ কথা, তদারকি। এর চূড়ান্ত দায়িত্বটা বর্তায় বর্তমান প্রশাসনের ঘাড়েই! তবে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের আগের সরকারের দিকে এর দায় ঠেলে দিয়েছেন। ২০০৯ সালে বাম সরকারের আমলেই এই ফ্লাইওভার তৈরির কাজ দেওয়া হয়েছিল হায়দরাবাদের একটি সংস্থাকে। বিপর্যয় নিয়ে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে এই তথ্যের ওপরই জোর দেন মমতা। তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে বলেছেন, কিভাবে এই সংস্থাকে বরাত দেওয়া হয়েছিল তা খতিয়ে দেখা হবে। মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে সিপিএম নেতা মহম্মদ সেলিম বলেন, ‘সাত বছর আগে বরাত দেওয়া হয়েছিল ঠিকই। কিন্তু এর মধ্যে পাঁচ বছর ক্ষমতায় আছেন মমতা। কাজ ঠিকমতো হচ্ছে কি না তা দেখার দায়িত্ব কী করে এড়িয়ে যাবেন উনি?’ রাজ্যে বিজেপির ভারপ্রাপ্ত নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয় বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রীর সরকার এই দুর্ঘটনার জন্য দায়ী। ’

আর গাফিলতির অভিযোগ অস্বীকার করে হায়দরাবাদের নির্মাণ সংস্থাটির প্রধান কে পি রাওয়ের  বলেছেন, ‘নকশায় কোনো ত্রুটি ছিল না, ভগবানের ইচ্ছাতেই এমন ঘটনা ঘটেছে। ’ সূত্র : আনন্দবাজার।


মন্তব্য