kalerkantho

26th march banner

পালমিরায় আইএসকে পরাস্ত করার পর অভিযান জোরদার

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সিরীয় রণাঙ্গনে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের (ইসলামিক স্টেট) বিরুদ্ধে অভিযান জোরদার করেছে সরকারি বাহিনী। কট্টর সুন্নিপন্থী গোষ্ঠীটির কবজা থেকে প্রাচীন নগরী পালমিরা পুনরুদ্ধারের পর দিয়ের এজর প্রদেশের দিকে জোর কদমে এগোচ্ছে তারা। এ ক্ষেত্রে তাদের সহায়তা করছে রাশিয়ার বিমানবাহিনী।

বিশ্লেষকরা পালমিরা হাতছাড়া হওয়ার ঘটনাকে আইএসের জন্য সবচেয়ে বড় আঘাত হিসেবে দেখছেন। বিপরীতে সিরীয় প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের অনুগত বাহিনী ও রুশ বাহিনীর যৌথ অভিযান শুরু হওয়ার পর এটিকে এ পর্যন্ত সবচেয়ে বড় সাফল্য বলে মনে করা হচ্ছে।

প্রেসিডেন্ট আসাদ পালমিরা থেকে আইএসকে হটিয়ে দেওয়াকে বড় জয় অভিহিত করে একে ‘সিরীয় সেনাদের দক্ষতা এবং মিত্রদের সঙ্গে নিয়ে সন্ত্রাসবাদবিরোধী যুদ্ধের সাফল্যের নতুন প্রমাণ’ বলে মন্তব্য করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্র সতর্কতার সঙ্গে পালমিরার আইএসমুক্ত হওয়ার ঘটনার প্রশংসা করেছে। দেশটি বলেছে, ‘সিরীয় জনগণের ওপর আসাদের একনায়কি প্রভাব বৃদ্ধির’ ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

এদিকে ১০ মাস আইএসের নিয়ন্ত্রণে থাকা ইউনেসকো ঘোষিত ‘মরুর মুক্তা’ খ্যাত পালমিরার এক ডজনের বেশি সমাধি ও মন্দির ধ্বংস করা হয়েছে। সিরিয়ার প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের প্রধান জানিয়েছেন, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যেই পালমিরার পুনর্গঠন সম্ভব হবে। তবে এ সময়সীমা নিয়ে অনেক প্রত্নতাত্ত্বিকই সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।

গত রবিবার পালমিরার নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর নগরের নানা স্থানে আইএসের পুঁতে রাখা বোমা অপসারণের কাজ করছে সেনাবাহিনী। এক সেনা গতকাল জানান, এরই মধ্যে ৫০টির বেশি বোমা নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে।

আইএসের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত দিয়ের এজর ছাড়াও গোষ্ঠীটির ‘রাজধানী’ রাকার দিকে এগোচ্ছে সিরিয়ার বাহিনী। পাশাপাশি হোমস প্রদেশের আল-কারিয়াতাইনের দিকেও নজর দিচ্ছে সেনারা। পালমিরা থেকে এক সেনা সূত্র জানায়, সেটি পুনরুদ্ধারের পর সুকনাহর পথে এগোনো হবে। সুকনাহর অবস্থান পালমিরার উত্তর-পূর্বে। সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য