kalerkantho


আত্মঘাতী দুই ভাইয়ের নাম ছিল যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসী তালিকায়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



আত্মঘাতী দুই ভাইয়ের নাম ছিল যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসী তালিকায়

বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে বিমানবন্দরে ও মেট্রো স্টেশনে সন্ত্রাসী হামলার পর নিরাপত্তাব্যবস্থা ব্যাপক জোরদার করা হয়েছে। পুলিশের সঙ্গে মাঠে নেমেছে সেনা সদস্যরা। ব্রাসেলসের একটি মেট্রো স্টেশনের বাইরে যাত্রীদের তল্লাশি করছে তারা। গতকালের ছবি। ছবি : এএফপি

বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে বিমানবন্দর ও মেট্রো স্টেশনে আত্মঘাতী বোমা হামলায় অংশ নেওয়া দুই ভাই ইব্রাহিম আল বকরাউয়ি ও খালিদ আল বকরাউয়ি সম্পর্কে অবগত ছিল যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির সন্ত্রাসবাদ-সংক্রান্ত একটি তালিকায় তাদের নাম ছিল। টেলিভিশন নেটওয়ার্ক এনবিসি গত বৃহস্পতিবার এ কথা জানিয়েছে।

এদিকে গত মঙ্গলবারের ভয়াবহ ওই হামলায় জড়িত সন্দেহে ছয়জনকে গ্রেপ্তার করছে বেলজিয়ামের পুলিশ। বৃহস্পতিবার ব্রাসেলসের স্কাহবিক এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এ ছাড়া ফ্রান্সে হামলার পরিকল্পনার অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছে একজন। ফরাসি পুলিশের দাবি, বৃহস্পতিবার রাজধানী প্যারিসের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে চালানো সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে ওই গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে একটি সম্ভাব্য হামলা প্রতিরোধ করা গেছে। গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তির কাছ থেকে কিছু বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে। তবে তার সঙ্গে প্যারিস বা ব্রাসেলস হামলার কোনো যোগসূত্র আছে কি না তা তাত্ক্ষণিকভাবে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ব্রাসেলসের জাভেনতেম বিমানবন্দর ও ম্যালবিক মেট্রো স্টেশনে সন্ত্রাসী হামলার দায় স্বীকার করেছে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস। এক ঘণ্টার ব্যবধানে ঘটা ওই জোড়া হামলায় অন্তত ৩১ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে প্রায় ৩০০ জন। এ ঘটনার পর বেলজিয়ামজুড়ে সাঁড়াশি অভিযান চলছে। পাশাপাশি ইউরোপের অন্যান্য দেশও রয়েছে সতর্কাবস্থায়।

এ অবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি গতকাল শুক্রবার ব্রাসেলস পৌঁছেছেন। তিনি সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা নিয়ে দেশটির নেতৃত্বের সঙ্গে কথা বলবেন।

বেলজিয়ামের পরমাণু বিদ্যুৎ বিভাগ জানিয়েছে, ইব্রাহিম ও খালিদ সম্ভবত পরমাণু বিদ্যুৎকন্দ্রে হামলার পরিকল্পনা করেছিল। কারণ বিদ্যুৎকন্দ্রের কাছে ঝোপের মধ্যে রাখা গোপন ক্যামেরায় তাদের দেখা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক যুক্তরাষ্ট্রের দুই শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে এনবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ব্রাসেলসে আত্মঘাতী হামলায় অংশ নেওয়া ইব্রাহিম আল বকরাউয়ি ও তার ভাই খালিদ আল বকরাউয়ি ‘সম্ভাব্য সন্ত্রাসী হুমকি’ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের তালিকায় ছিল। তবে যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসবাদের ঠিক কোন তালিকায় ওই দুই সহদরের নাম ছিল, তা সুনির্দিষ্ট করে জানানো হয়নি। এএফপি জানায়, তারা ওই প্রতিবেদনের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল কাউন্টার টেররিজম সেন্টারের বক্তব্য জানতে চেয়েও পায়নি।

ব্রাসেলসে হামলার আগে থেকেই ইব্রাহিম ও খালিদের নাম বেলজিয়ামের পুলিশের খাতায় ছিল। তাদের খোঁজা হচ্ছিল। হামলায় অংশ নেওয়া আরেকজন নাজিম লাচরাউয়ি সম্পর্কেও জানত বেলজিয়াম কর্তৃপক্ষ। এর পরও তারা দেশটির নিরাপত্তাব্যবস্থাকে ফাঁকি দিয়ে হামলা চালাতে সক্ষম হয়।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান বুধবার জানান, ব্রাসেলসে আত্মঘাতী হামলায় অংশ নেওয়া একজনকে তাঁরা গত বছর গ্রেপ্তার করেছিল। পরে তাকে ‘বিদেশি সন্ত্রাসী’ হিসেবে বহিষ্কার করে নেদারল্যান্ডসে পাঠানো হয়। তুরস্কের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন, দেশ থেকে বিতাড়িত ওই ব্যক্তিই ইব্রাহিম। আরেক আত্মঘাতী খালিদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগে আন্তর্জাতিক পরোয়ানা জারি ছিল। আর তৃতীয় আত্মঘাতী নাজিমের বিরুদ্ধে ব্রাসেলসে হামলার আগের দিনই নোটিশ জারি হয়েছিল।

জাভেনতেম বিমানবন্দরে হামলায় অংশ নেয় ইব্রাহিম ও নাজিম। মেট্রো স্টেশনে হামলায় অংশ নেয় খালিদ। এই তিনজনের সঙ্গে প্যারিস হামলার অন্যতম সন্দেহভাজন সালাহ আবদেসলামের সম্পর্ক ছিল বলে পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে। গত বছরের ১৩ নভেম্বর ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে একযোগে কয়েকটি স্থানে চালানো হামলায় নিহত হয় ১৩০ জন।

আবদেসলামকে গত ১৮ মার্চ ব্রাসেলসের একটি গোপন আস্তানা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তার গ্রেপ্তারের চার দিনের মাথায় ব্রাসেলসে সন্ত্রাসী হামলা হয়। সূত্র : বিবিসি, ইন্ডিপেনডেন্ট।


মন্তব্য