kalerkantho


ট্রাম্পের এবারের উক্তি

যুক্তরাষ্ট্র তৃতীয় বিশ্বের দেশ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



যুক্তরাষ্ট্র তৃতীয় বিশ্বের দেশ

ইউটাহর সল্টলেক সিটিতে মুখোমুখি ট্রাম্প সমর্থক ও বিরোধীরা। শুক্রবারের ছবি। ছবি : এএফপি

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের মনোনয়নপ্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, দুবাই বা চীনের সঙ্গে তুলনা করলে অবকাঠামোর দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্র এখন ‘তৃতীয় বিশ্বের দেশ’। প্রেসিডেন্ট হলে যুক্তরাষ্ট্রের এ দুরবস্থা দূর করবেন তিনি।

এ বিলিয়নিয়ার ব্যবসায়ীর এই ধরনের কথাবার্তায় বিরক্ত দলের গতবারের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী মিট রমনি জানিয়েছেন, আগামী ২২ মার্চ ইউটাহ অঙ্গরাজ্যে অনুষ্ঠেয় দলীয় প্রাইমারিতে ট্রাম্পকে ভোট দেবেন না তিনি। রমনির প্রতিদ্বন্দ্বী টেড ক্রুজকে ভোট দেওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে ট্রাম্পের কর্মকাণ্ডে আবারও অসন্তোষের কথা জানিয়েছে হোয়াইট হাউস।

আমেরিকান সামোয়া, ইউটাহ ও আরিজোনায় আগামী ২২ মার্চ প্রাইমারি অনুষ্ঠিত হবে। প্রচার চালাতে গত শুক্রবার ইউটাহর সাল লেক সিটিতে এক জনসভায় ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা তৃতীয় বিশ্বের দেশে পরিণত হয়েছি। আপনারা যদি দুবাই বা চীনের মতো জায়গায় যান, তাদের রাস্তা, রেললাইন আর বুলেট ট্রেনের ছুটে চলার ক্ষীপ্র গতি দেখেন, ঘণ্টায় ১০০ মাইল দৌড়ায় এ ট্রেন; আর এরপর নিউ ইয়র্কে আসেন, আপনার মনে হবে ১০০ বছর পিছিয়ে রয়েছি আমরা। ’

ভাষণে ট্রাম্প বলেন, তিনি নেতৃত্বে এলে আইএস নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। দেশ পুনর্গঠন করবেন তিনি। ‘বাণিজ্য প্রশ্নে বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে শুরু করব আমরা। কারণ আমাদের দেশটি গরিব। আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে আবার মহান করে গড়ে তুলব। আমাদের দেশ এখন আর মহান নেই। আর এ কারণেই আমাদের প্রয়োজন হবে শিক্ষার। ’

ট্রাম্প ট্রান্স প্যাসিফিক পার্টনারশিপ চুক্তিকে ‘বিপর্যয়কর’ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, তাঁর নেতৃত্বে আমেরিকা নতুন চুক্তি করবে, যা দেশের জন্য লাভজনক হবে। ‘মুক্ত বাণিজ্য নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই, এ বিষয়টি চমত্কার। সমস্যা হলো এর জন্য আমাদের বুদ্ধিমান লোকের প্রয়োজন। আপনাদের গ্যারান্টি দিচ্ছি, আমি প্রেসিডেন্ট হলে, মেক্সিকো (প্রাচীর তৈরির জন্য) খুশি মনে অর্থ দেবে। ’ তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের দেশটি গরিব, আমাদের অবিশ্বাস্য পরিমাণ ঘাটতি রয়েছে। বড়, স্থূল, কুিসত বুদ্বুদের ওপর বসে আছি আমরা। আমরা যদি দ্রুত ও বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে এ বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে না পারি তাহলে শিগগিরই এ বুদ্বুদ ফেটে যাবে। কাজেই আপনাদের যোগ্য লোকের প্রয়োজন। এখন যাঁরা আছেন তাঁরা যথার্থ মানুষ নন। ’ প্রেসিডেন্ট হলে সব ক্ষেত্রেই পরিবর্তন আসবে বলে সমর্থকদের প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

২২ মার্চ প্রাইমারি হওয়া রাজ্যগুলোতে রিপাবলিকানদের ডেলিগেট সংখ্যা শতাধিক। ট্রাম্পের ঝুলিতে বর্তমানে ৬৭৮ ডেলিগেটের সমর্থন জমা পড়েছে। মনোনয়ন চূড়ান্ত করতে তাঁর এক হাজার ২৩৭ ডেলিগেটের সমর্থনের প্রয়োজন হবে। ট্রাম্পের এ ধরনের কথাবার্তায় আবারও অস্বস্তি প্রকাশ করেছে হোয়াইট হাউস। প্রেস সেক্রেটারি জোশ আর্নেস্ট নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে ট্রাম্পের ‘দাঙ্গা’সংক্রান্ত মন্তব্য প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমরা সবাইকে সহিংসতা থেকে দূরে থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। রাজনীতিতে সহিংসতার স্থান নেই। ’ তবে ট্রাম্পকে নিয়ে হোয়াইট হাউসই শুধু নয়, বিরক্ত তাঁর নিজ দলও। দলের জ্যেষ্ঠ নেতা এবং গতবারের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী মিট রমনি বলেছেন, তিনি ট্রাম্পকে নয়, ইউটাহ অঙ্গরাজ্যে ভোট দেবেন টেড ক্রুজকে। সূত্র : পিটিআই, এএফপি।


মন্তব্য