kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০১৭ । ৬ মাঘ ১৪২৩। ২০ রবিউস সানি ১৪৩৮।


আদালতের রায়ে আটকে গেল লুলার চিফ অব স্টাফ পদ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



আদালতের রায়ে আটকে গেল লুলার চিফ অব স্টাফ পদ

দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুইস ইনাসিও লুলা দ্য সিলভার প্রেসিডেন্টের ‘চিফ অব স্টাফ’ হওয়া আটকে দিয়েছেন ফেডারেল আদালত। গত বৃহস্পতিবার এ পদে তাঁর নিয়োগ পাওয়ার কয়েক ঘণ্টার মাথায় আদালত এ আদেশ দেন।

একই দিন প্রেসিডেন্ট দিউমা হুসেফকে অভিসংশনের উদ্যোগ আবার গতিশীল করেছে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে আসীন বিরোধী দল। ২০১৪ সালে নিজ নির্বাচনী প্রচারে সরকারি তহবিলের অর্থ ব্যয়ের অভিযোগে গত ডিসেম্বরে প্রথম দিউমাকে অভিসংশনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। তবে পদ্ধতিগত সংকটের কারণে আদালত এর ওপর স্থগিতাদেশ দেন। গত বুধবার বিষয়টি আদালতে চূড়ান্তভাবে নিষ্পত্তি হওয়ায় পর দিনই বিরোধী দল দিউমাকে অভিসংশিত করতে কমিটি গঠন করে।

২০০৩ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত ব্রাজিলের ক্ষমতায় থাকা লুলার বিরুদ্ধে তেল কম্পানি পেট্রোবাসের কয়েক শ কোটি ডলার দুর্নীতিতে জড়িত কর্মকর্তাদের কাছ থেকে ঘুষ হিসেবে একটি বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট ও একটি বাড়ি গ্রহণের অভিযোগে তদন্ত চলছে। সাবেক এই প্রেসিডেন্টকে গত বুধবার নিজ মন্ত্রিসভার চিফ অব স্টাফ নিয়োগ দেন দিউমা। বৃহস্পতিবার তাঁর এই নিয়োগ আটকে দেন ফেডারেল বিচারক সারজিও মোরো। এ-সংক্রান্ত আদেশে বলা হয়, লুলা মন্ত্রী হলে তাঁর বিরুদ্ধে ফেডারেল আদালতের তদন্ত বাধাগ্রস্ত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। বলা দরকার, লুলা মন্ত্রিসভার চিফ অব স্টাফ হলে মন্ত্রী হিসেবে তিনি ফেডারেল আদালতের বিচারপ্রক্রিয়া থেকে সুরক্ষা পাবেন। তাঁকে কেবল সুপ্রিম কোর্টে বিচারের সম্মুখীন করা যাবে। বৃহস্পতিবার ফেডারেল আদালতের এই আদেশের পরপরই সরকারপক্ষের আইনজীবীরা আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেন।

লুলাকে চিফ অব স্টাফ নিয়োগ করা নিয়ে সমর্থক ও বিরোধীদের মধ্যে বৃহস্পতিবার সংঘর্ষ হয়েছে। লুলাকে ওই পদে নিয়োগদান উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানকে ঘিরে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের বাইরে এ সংঘর্ষ হয়। এর আগের দিন বুধবার চিফ অব স্টাফ পদে লুলাকে নিয়োগ করা নিয়ে তাঁর সঙ্গে দিউমার টেলিফোন আলাপের রেকর্ড প্রকাশ করে দেন সংশ্লিষ্ট দুর্নীতিবিরোধী বিচারক।

সূত্র : এএফপি, বিবিসি।


মন্তব্য