kalerkantho


তৃণমূল নেতাদের ঘুষ নেওয়ার ফুটেজ!

নারদের স্টিং অপারেশন

নিজস্ব প্রতিবেদক, কলকাতা   

১৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



স্টিং অপারেশনের মাধ্যমে ধারণ করা ভিডিও প্রকাশ করে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূলের শীর্ষস্থানীয় বেশ কিছু নেতার বিরুদ্ধে লাখ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ এনেছে নারদ নিউজ নামের একটি ওয়েবসাইট। বর্তমান ও সাবেক মন্ত্রী, সংসদ সদস্য এবং বিধায়ক মিলিয়ে তৃণমূলের অন্তত ১১ জন নেতা ঘুষ নিয়েছেন বলে দাবি করা হয়েছে ওয়েবসাইটটিতে। এতে রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের আগে কার্যত বেকায়দায় পড়ল শাসক তৃণমূল কংগ্রেস। তবে প্রকাশিত এসব ভিডিও নকল বলে দাবি করেছে তৃণমূল। এ সত্ত্বেও ঘুষ হিসেবে টাকা নেওয়ার ফুটেজ দেখে ভারতীয় রাজনীতিতে তোলপাড় চলছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পদত্যাগের দাবি তুলেছে বিজেপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল।

ভিডিওতে তৃণমূলের শীর্ষ নেতা ও সাবেক কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী মুকুল রায়, সাবেক কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক সৌগত রায়, তৃণমূলের প্রভাবশালী মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় ও ফিরহাদ হাকিম, সাবেক মন্ত্রী ও বর্তমানে কারাবন্দি মদন মিত্র, সংসদ সদস্য শুভেন্দু অধিকারী, সুলতান সিং ও কাকলি ঘোষ দস্তিদার, কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়সহ তৃণমূল ঘনিষ্ঠ কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তাকেও ভিডিওতে ঘুষ নিতে দেখা গেছে। গতকাল সোমবার সকালে ভিডিও প্রকাশিত হওয়ার পর বিকেলে বিজেপির দিল্লির সদর দপ্তরে কেন্দ্রীয় নেতা সিদ্ধার্থ নাথ সিং ভিডিও ফুটেজ সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরে মমতার পদত্যাগ দাবি করেন। তিনি বলেন, গত পাঁচ বছরে তৃণমূল কংগ্রেস হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করেছে। ২০১৪ সালে করা নারদের ওই স্টিং অপারেশনের ফুটেজ ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআইকে দেওয়া হবে বলে জানান। পশ্চিমবঙ্গে বিরোধী দল নেতা সূর্যকান্ত মিশ্র নির্বাচন বন্ধ করে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করারও দাবি তুলেছেন। তিনি বলেন, তৃণমূল সরকার মানুষের টাকা লুঠ করে ক্ষমতায় এসেছে আবার সরকারে এসেও টাকা লুঠ করছে। তিনি নির্বাচন কমিশনকে অভিযোগের পূর্ণ তদন্ত দাবি করেন। সূর্যকান্ত জানান, মুকুল রায় ২০ লাখ এবং অন্য নেতারা সবাই পাঁচ লাখ টাকা করে ঘুষ নিয়েছেন। ভিডিওতে পরিষ্কারভাবেই এ দৃশ্য দেখা গেছে। এমনকি নেতাদের কথাবার্তার অডিও রয়েছে, যা দেখে পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে এটা কোনো বানানো ফুটেজ নয়।

তৃণমূল সভানেত্রী মমতা গতকাল শিলিগুড়ির একটি এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণার সময় বলেন, ‘কংগ্রেস, বিজেপি, সিপিআইএম যতই কুৎসা করুক, তাদের কুৎসার ডালি জিরো হবে। আর তৃণমূল রাজ্যবাসীর কাছে হিরোই থাকবে। ’ রাজনৈতিকভাবে না পেরে ভোটের মুখে নানাভাবে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। স্টিং অপারেশনে অভিযুক্তদের মধ্যে দুই সংসদ সদস্য শুভেন্দু অধিকারী ও প্রসূন মুখোপাধ্যায় বলেছেন, সবই মিথ্যা। তৃণমূলের অন্যতম প্রভাবশালী নেতা, যাঁর বিরুদ্ধে ফুটেজে ২০ লাখ টাকা নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে, সেই মুকুল রায় বলেছেন, ‘এসব বানানো। ’


মন্তব্য