kalerkantho


৩৯তম স্পেশাল বিসিএস বিশেষ ধারাবাহিক

ডেন্টাল সায়েন্সে ভালো করার দাওয়াই

শেষ কিস্তি - ৩৯তম বিসিএস পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। এবার হবে স্পেশাল বিসিএস। নেওয়া হবে ৪৭৯২ জন চিকিৎসক। এমসিকিউ টাইপের লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়ে তিন পর্বের ধারাবাহিকের শেষ পর্বে ডেন্টাল সায়েন্স। লিখেছেন ৩৪তম বিসিএসে স্বাস্থ্য ক্যাডারে তৃতীয় ডা. ইশফাক আহমদ

১৬ মে, ২০১৮ ০০:০০



ডেন্টাল সায়েন্সে ভালো করার দাওয়াই

১০০ নম্বরের পরীক্ষা হবে ডেন্টাল সায়েন্সে। মেডিক্যাল ও ডেন্টালের আলাদা সিলেবাস তৈরি করে দিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি)। এর আগে কখনোই এত গোছানো সিলেবাস দেওয়া হয়নি ডেন্টালের জন্য। তাই কী পড়ব না ভেবে কিভাবে পড়ব, কোথা থেকে পড়ব—এসব চিন্তা করা উচিত। সিলেবাস বিশ্লেষণ করলে আমরা দেখতে পাব, দুই পার্টে কয়েকটি বিষয় থেকে প্রশ্ন করা হবে। অনেক বড় সিলেবাস, কিন্তু হাতে সময় একেবারে কম। প্রথমেই সিলেবাসটা কয়েকবার ভালো করে পড়তে হবে। এরপর ঠিক করতে হবে এই সময়ের মধ্যে সব পড়া শেষ করতে হলে দিনে কত সময় পড়তে হবে। আমরা নিজেকে সব থেকে ভালো চিনি। নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট পরিমাণ পড়া পড়তে কতটুকু ইফোর্ট দিতে হবে, তা পরিমাপ করে নেওয়া দরকার। কারো হয়তো দিনে এক ঘণ্টা পড়লেই হয়ে যায়। কারোর বেলায় ওই একই পড়া পড়তে লেগে যায় সারা দিন। সুন্দর একটা ডেইলি রুটিন আপনাকে অনেক এগিয়ে নিয়ে আসবে। আর লক্ষ্যে পৌঁছানোর কাজ অর্ধেক করে দেবে প্রতিদিন সেই রুটিন মেনে চলা। এমন রুটিন তৈরি করতে হবে, যেটা আপনার পক্ষে মেনে চলা সম্ভব। নির্দিষ্ট পরিমাণ পড়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত ঘুমাতে যাবেন না।

 

► কিভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে

যাঁরা ইন্টার্নি করছেন বা সবে ফাইনাল প্রুফ দিয়েছেন, তাঁদের জন্য ডেন্টাল সায়েন্সে প্রিপারেশন নেওয়াটা অনেক সহজ। আপনারা সবই পড়ে এসেছেন কিছুদিন আগে, তাই ভুলে যাওয়ার কথা নয়। অন্যদেরও হতাশ হওয়ার কিছু নেই। কিছুটা আগের পড়া হলেও টপিক তো একই। সিলেবাসের টপিকগুলো বইয়ের মধ্যে থেকে খুঁজে বের করে প্রস্তুতি নিতে হবে। হাতে সময় খুব বেশি নেই। পড়া অনেক বেশি। গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো আলাদা করে সেগুলো বেশি করে পড়তে হবে। এর জন্য দরকার টেকনিক। পুরো টেক্সট বুক পড়তে যাওয়াটা বোকামি হবে। সিলেবাস থেকে টপিকগুলো খুঁজে বের করে পড়তে হবে। যে বইতে যে টপিক সহজভাবে লেখা আছে, সেখান থেকে পড়ে ফেলবেন। কোনো কিছুই মুখস্থ করা দরকার নেই। বুঝে পড়লেই চলবে।

 

► সার্জারি ও অ্যানেসথিওলজি

ওরাল সার্জারির জন্য নিচের বই দুটি পড়তে পারেন—

Contemporary Oral and Maxillofacial Surgery, 6th Edition

Textbook of Oral and Maxillofacial Surgery, Jaypee Brothers; 3rd edition

অ্যানেসথিওলজির জন্য ওরাল সার্জারির সঙ্গে যতটুকু আলোচনা আছে সেটাই যথেষ্ট। আরো পড়তে চাইলে Handbook of Local Anesthesia- Mosby; 5 edition তালিকায় রাখতে পারেন।

 

► কনজারভেটিভ ডেন্টিস্ট্রি ও ডেন্টাল রেডিওলোজি

কনজারভেটিভ ডেন্টিস্ট্রি সবারই কমবেশি জানা। এই টপিক তুলনামূলক সহজ। এটি বেশি নম্বর পেতে সহায়ক হতে পারে। এর জন্য পড়তে পারেন—

Textbook of Endodontics, 3rd edition (Nisha & Amit Garg) (2014)

Textbook of Operative Dentistry, Jaypee Brothers; 3rd edition (January 31, 2013)

কনজারভেটিভ ডেন্ট্রিস্টির সব কিছু খুব গুছিয়ে লেখা আছে বই দুটিতে। এই দুটি বই পড়লে এ টপিকের প্রস্তুতি হয়ে যাবে। ডেন্টাল রেডিওলজির জন্য আলাদা কোনো বইয়ের দরকার নেই। তবে কেউ আরো বেশি পড়তে চাইলে Oral Radiology- Principles and Interpretation- Mosby; 6th edition বইটি পড়তে পারেন।

 

► প্রস্থোডন্টিকস

খানিকটা খিটমিটে। আগে থেকে ভালো করে পড়া থাকলে তবে খুব বেশি ভাবতে হবে না। আগে যা পড়া আছে তাই বারবার রিভিশন দিতে থাকুন। নতুন টপিক না বুঝে পড়তে গেলে পরীক্ষার হলে সঠিক উত্তর করা কঠিন হতে পারে। তাই না পড়াই ভালো। ইম্প্রেশন থেকে অবশ্যই প্রশ্ন আসবে। কেনেডি ক্লাসিফিকেশন আর অ্যাপলগেটস রুল, অকলুশন সম্পর্কে ভালো ধারণা নিয়েই পরীক্ষার হলে যাবেন। প্রস্থোডন্টিকসের অনেক বই আছে, পড়ে শেষ করা যাবে না। আগের পড়া বিষয়ের সঙ্গে ফাইনাল ইয়ারের ক্লাস লেকচার শিট পড়লে কাজে দেবে।

 

► অর্থোডন্টিকস

অর্থোডন্টিকস খুব সহজ ও ছোট সিলেবাস। নম্বর তোলাও সহজ। তাই বারবার পড়লে ভালো করা যাবে। পড়তে পারেন—

Orthodontics Art and Science, S.I. Balaji

Textbook of Orthodontics, Guurkerat Singh

যেকোনো একটি বই থেকে পড়লেই হবে। সহজভাবে বুঝতে চাইলে এমাদুল হক স্যারের বইটা পড়তে পারেন।

 

► চিলড্রেন ডেন্টিস্ট্রি

চিলড্রেন ডেন্টিস্ট্রির পড়া খুব বেশি নেই। কনজারভেটিভের সঙ্গে পড়ে ফেলতে পারবেন। রকের বইটা অনেক গোছানো। সেখান থেকেও পড়তে পারেন।

 

► প্রিভেন্টিভ অ্যান্ড কমিউনিটি ডেন্টিস্ট্রি এবং ডেন্টাল জুরিস প্রুডেন্স

প্রিভেন্টিভ অ্যান্ড কমিউনিটি ডেন্টিস্ট্রি এবং ডেন্টাল জুরিস প্রুডেন্স অনেক বেশি পড়তে হয়। এর জন্য নতুন করে প্রস্তুতি নিতে গেলে অনেক সময় লাগবে। আগের পড়া বিষয়গুলো বারবার রিভিশন দিন। পড়া না থাকলে নতুন করে কোনো বই পড়তে যাবেন না। এ বিষয়ের ক্লাস লেকচার ফলো করতে পারেন।

 

► বিগত বছরের প্রশ্ন

বিগত বছরের এমএস, এফসিপিএসের প্রশ্ন সংগ্রহ করে পড়তে পারেন। বিগত বছরের বিসিএসের রিটেন অংশের প্রশ্নে চোখ বোলাতে পারেন। বাজারে বেশ কিছু প্রকাশনীর বিসিএসের সহায়ক বই পাওয়া যায়। সেগুলোর সহযোগিতা নিতে পারেন। ইন্টারনেটে সার্চ করলে সিলেবাসের টপিক সংশ্লিষ্ট অনেক সিঙ্গল বেস্ট প্রশ্ন পাবেন। সেগুলো চর্চা করলেও প্রস্তুতিতে সহায়ক হবে।

 

সহায়ক বইপত্র

ফাইনাল ইয়ারের টেক্সট বই এবং ক্লাস লেকচার আগে যা পড়েছেন, তাই পড়বেন। এই সময়ে নতুন করে কিছু পড়তে না যাওয়াই ভালো। এডুডেন্ট প্রকাশিত কুইকবাইট বইটা পড়তে পারেন। এতে সব টপিক সুন্দর করে গুছিয়ে দেওয়া আছে।

 

► সাবধান নেগেটিভ মার্কিং

খুব ভালো প্রিপারেশন নিয়েও পরীক্ষার হলে ঠিকঠাক উত্তর করতে না পারলে ভালো ফল আশা করা বৃথা। সময় বণ্টন খুবই জরুরি। পরীক্ষার নম্বর অনুযায়ী সময় ভাগ করে নিতে হবে। সাধারণ বিষয়াবলিসহ ১২০ মিনিটে ২০০ নম্বরের পরীক্ষা হবে। প্রতি ১ নম্বরের জন্য মাত্র ৩৬ সেকেন্ড সময় পাওয়া যাবে। খাতা সিগনেচারসহ আরো কিছু সময় সিস্টেম লস হবে। ধরে নিতে হবে, প্রতি নম্বরের মাত্র ৩০ সেকেন্ড সময় পাওয়া যাবে। আগে থেকে বারবার চর্চা না করলে এই সময়ে উত্তর করা কঠিন হবে। তাই বাসায় বারবার মডেল টেস্ট দিন, চর্চা করুন। আশা করি, পরীক্ষা ভালো হবে। সবার জন্য শুভ কামনা।



মন্তব্য