kalerkantho

দেশ পরিচিতি

৭ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



দেশ পরিচিতি

সার্বিয়া

সার্বিয়ার উত্তরে হাঙ্গেরি, পূর্বে রোমানিয়া ও বুলগেরিয়া, দক্ষিণে মেসিডোনিয়া, পশ্চিমে ক্রোয়েশিয়া, মন্টেনেগ্রো, বসনিয়া ও হারজেগোভিনা। দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের সবচেয়ে পুরনো ও বড় শহর সার্বিয়ার রাজধানী বেলগ্রেড।

সার্বিয়া রাজ্য হিসেবে প্রথম রোম ও বাইজান্টাইন সাম্রাজ্যের স্বীকৃতি পায় ১২১৭ খ্রিস্টাব্দে। ১৩৪৬ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত সার্বীয়দের রাজত্ব বহাল ছিল। ষোড়শ শতাব্দীর মাঝামাঝি অটোমানরা এর দখল নেয়। পরের শতাব্দীতে এটি হেবসবার্গ সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়। ঊনবিংশ শতাব্দীর শুরুর দিকে ওই অঞ্চলের প্রথম সাংবিধানিক রাজতন্ত্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে সার্বিয়া। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির পর সাবেক হেবসবার্গের ভজভোডিনা সার্বিয়ার সঙ্গে একীভূত হয়। পরে দক্ষিণের স্লাভিক জনগোষ্ঠীকে নিয়ে তারা যুগোস্লাভিয়া প্রতিষ্ঠা করে। ১৯৯০ সালের যুদ্ধের পর যুগোস্লাভিয়া ভেঙে যায়। ১৯৯২ সালে মন্টেনেগ্রোর সঙ্গে ইউনিয়ন গঠন করে সার্বিয়া, আত্মপ্রকাশ করে সার্বিয়া অ্যান্ড মন্টেনেগ্রো নামে। যা ২০০৬ সালে ভেঙে যায়। সার্বিয়ায় আরো একটি ভাঙন দেখা দেয় ২০০৮ সালে। স্বাধীনতার ঘোষণা দেয় কসোভোর পার্লামেন্ট।

উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশ সার্বিয়া। শিল্প ও কৃষি তাদের অর্থনীতির মূল ভিত্তি। মানব উন্নয়ন সূচক (৬৬তম), সামাজিক অগ্রগতি (৪৫তম) ও শান্তি সূচকে (৫৬তম) দেশটির অবস্থান বেশ ওপরের দিকে।

 

একনজরে

পুরো নাম : সার্বিয়া প্রজাতন্ত্র।

রাজধানী ও সর্ববৃহৎ শহর : বেলগ্রেড।

দাপ্তরিক ভাষা : সার্বিয়ান।

জাতিগোষ্ঠী : সার্ব ৮৩.৩ শতাংশ, হাঙ্গেরিয়ান ৩.৫ শতাংশ, রোমা ২.১ শতাংশ, বসনিয়াক ২ শতাংশ, অন্যান্য ৯.১ শতাংশ।

সরকার পদ্ধতি : ইউনিটারি পার্লামেন্টারি কনস্টিটিউশনাল রিপাবলিক।

প্রেসিডেন্ট : আলেকজান্ডার ভুসিস।

আয়তন : ৭৭ হাজার ৪৭৪ বর্গকিলোমিটার (কসোভো বাদ দিয়ে)।

জনসংখ্যা : ৭০ লাখ ৫৮ হাজার ৩২২ (কসোভো বাদ দিয়ে)।

ঘনত্ব : প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৯১.১ জন।

জিডিপি : মোট ১,১২,৪৭৫ বিলিয়ন ডলার।

মাথাপিছু : ১৬ হাজার ৬৩ ডলার।

মুদ্রা : সার্বিয়ান দিনার।

জাতিসংঘে যোগদান : ১ নভেম্বর ২০০০।



মন্তব্য