kalerkantho


শিক্ষার্থীদের সচেতনতায় ময়মনসিংহে এক কোটি ২৭ লাখ বইয়ে সিল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



‘বাল্যবিবাহকে না বলি, মাদক থেকে দূরে থাকি, শিক্ষাঙ্গন পরিচ্ছন্ন রাখি’—এমন তিনটি সময়োপযোগী, শিক্ষা ও সচেতনতামূলক স্লোগান যুক্ত হয়েছে ময়মনসিংহের মাধ্যমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ের সব শিক্ষার্থীর বইয়ে। এবার প্রায় এক কোটি ২৭ লাখ বইয়ে এসব স্লোগানসংবলিত সিল দেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা প্রশাসন বেশ কিছু প্রশংসনীয় উদ্যোগ হাতে নিয়েছে। এসব উদ্যোগের মধ্যে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টির কাজটি বেশ জোরেশোরেই শুরু হয়েছে এ শহরে। সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টির নানামুখী উদ্যোগের অংশ হিসেবে গত বছর (২০১৭) জেলা প্রশাসন শিক্ষার্থীদের নতুন বইগুলোতে বেশ কিছু শিক্ষা ও সচেতনতামূলক স্লোগানসংবলিত সিল লাগানোর চিন্তা করে। জেলা প্রশাসক মো. খলিলুর রহমান এ ব্যাপারে কথা বলেন জেলা শিক্ষা বিভাগের সঙ্গে। শিক্ষা বিভাগও এতে সায় দিলে স্লোগান ঠিক করে এবং সিলের আকার-আয়তনসহ সব কিছু জানানো হয় স্কুল, মাদরাসার প্রধানদের। প্রতিষ্ঠানপ্রধানরা নির্দেশনা পেয়ে সিল তৈরি করে প্রতিটি বইয়ে ছাপ দিয়ে দেন। এবারও সেই উদ্যোগটি অব্যাহত রাখা হয়েছে। বইগুলোর শুরুতেই পৃষ্ঠার খালি অংশে এসব সিল লাগানো হয়।

ময়মনসিংহের অন্যতম বিদ্যাপীঠ বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাছিমা আক্তার জানান, তিনি দ্রুত কাজ করার জন্য ২৮টি সিল বানিয়েছেন। চতুর্থ শ্রেণি থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত দুই হাজার ২০০ শিক্ষার্থীর সব বইয়ে এসব সিল দেওয়া হয়েছে। প্রধান শিক্ষক বলেন, ‘এগুলো গুরুত্বপূর্ণ মেসেজ। শিক্ষার্থীরা বই খুলেই এ মেসেজগুলো দেখতে পারবে। এগুলো তাদের মগজে গেঁথে যাবে।’ ফুলপুরের পয়ারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলী হোসেন বলেন, ‘আমার স্কুলের প্রায় ৮০০ শিক্ষার্থীর বইয়ে এসব সিল মারা হয়েছে।’ প্রিমিয়ার আইডিয়াল হাই স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক গোলাম হক বলেন, ‘উদ্যোগটি ভালো। জাতীয় পর্যায়ে বই প্রকাশের সময়ই যদি এসব স্লোগান দিয়ে দেওয়া হয় তাহলে আরো ভালো হয়।’

এ ব্যাপারে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘প্রথম জেলা প্রশাসকের মাথায় চিন্তাটি আসে। তিনি সবার সঙ্গে পরামর্শ করলে সবাই তাতে আগ্রহ প্রকাশ করে।’ তিনি বলেন, ‘এবার মাধ্যমিক, কারিগরি ও মাদরাসার প্রায় ৮০ লাখ বইয়ে এ সিল মেরে দেওয়া হয়েছে।’ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মোফাজ্জল হোসেন বলেন, ‘জেলায় প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগে প্রায় ৪৪ লাখ বইয়ে এসব সিল দেওয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসক মো. খলিলুর রহমান বলেন, ‘নতুন বইয়ের কাভার উল্টালেই শিক্ষার্থীরা স্লোগানগুলো দেখবে এবং পড়বে। তাদের পরিবারেও এ মেসেজটি যাবে। শিক্ষার্থীদের সচেতন করতেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’



মন্তব্য