kalerkantho


শখের বিমানযাত্রা সমাপ্ত শোকে

বিশেষ প্রতিনিধি, যশোর   

১৪ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



শখের বিমানযাত্রা সমাপ্ত শোকে

ছোট্ট শিশু অনিরুদ্ধ বায়না ধরেছিল আকাশে উড়ে বেড়াতে যাবে। বাবা রফিক জামান, মা সানজিদা হক বিপাশা সন্তানের এ শখ পূরণে সোমবার একসঙ্গে বিমানযাত্রা করেছিলেন। গন্তব্য নেপাল। কিন্তু সোমবার নেপালের ভয়াবহ বিমান দুর্ঘটনা তাঁদের তিনজনকে পরিণত করেছে লাশ।

যশোর উপশহরের মেয়ে সানজিদা হক বিপাশা ছিলেন সুশাসনের জন্য নাগরিকে (সুজন) কর্মরত। গতকাল মঙ্গলবার উপশহরের বাসাটিতে গিয়ে দেখা যায় সেখানে অবস্থান করছেন বিপাশার বাবা সাবেরুল হক। বয়স্ক মানুষটি অল্প সময় আগেই জেনেছেন মর্মান্তিক সংবাদটি। শোকে বিহ্বল মানুষটিকে সান্ত্বনা দিচ্ছে নিকট আত্মীয়রা। পুরো বাড়ি ঘিরেই শোকের আবহ। সাবেরুল হক কয়েক দিন ধরেই ছটফট করছিলেন এবং বলছিলেন—কি যেন হচ্ছে! মেয়ে, জামাই ও নাতির মৃত্যুসংবাদ জেনে তিনি এখন ডুকরে কাঁদছেন।

স্বজনরা জানায়, বিপাশা ছেলের শখ মেটানোর জন্যই এবার নেপাল যাচ্ছিলেন। ধানমণ্ডি বয়েজ স্কুলে দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়া সন্তান ও স্বামী ব্যবসায়ী রফিক জামানকে নিয়ে বিপাশা থাকতেন শুক্রাবাদে ভাড়াবাসায়। স্বামী-স্ত্রী কাজের জন্য কয়েকবার বিদেশ গেলেও অনিরুদ্ধকে সঙ্গে নেওয়া হয়নি। এবারই ছিল সে শখ পূরণের যাত্রা। তিনজন গত সোমবার ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসে চেপে নেপাল রওনা হন।

কাঠমাণ্ডুর ত্রিভুবন বিমানবন্দরে দুর্ঘটনার পর অল্প সময়ের মধ্যেই জানা যায় মা-বাবা ও শিশু অনিরুদ্ধের মৃত্যু সংবাদ। এখন স্বজনরা অপেক্ষা করছে তাঁদের লাশের।

 



মন্তব্য