kalerkantho

বর্ষার ঈদে

সহজ সতেজ সাজ

বর্ষার ঈদে আছে ভাপসা গরম। তাই সাজ-পোশাকে থাকুক স্বাচ্ছন্দ্য। রূপবিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে ঈদের সাজের আদ্যোপান্ত জানালেন মারজান ইমু

১৯ জুন, ২০১৭ ০০:০০



সহজ সতেজ সাজ

মডেল : নাজিফা, সাজ : রেড বিউটি স্যালন, পোশাক : বিশ্বরঙ ও সেইলর, ছবি : কাকলী প্রধান

কখনো রোদ কখনো বৃষ্টি। সঙ্গে আছে গরম এবং ঘাম।

তাই হালকা এবং আরামদায়ক সাজের পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। বর্ষার প্রকৃতির মতোই স্নিগ্ধ সাজে ফুটে উঠবে উৎসবের পরিপূর্ণতা। অবশ্যই এই আবহাওয়ায় সব ধরনের মেকআপ কিট পানি নিরোধক হওয়া জরুরি।

 

ব্যস্ততা বেলায় 

সকালে শত ব্যস্ততার মধ্যে বারবার টাচ আপ করা সম্ভব হয় না। রূপবিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভিন জানালেন সাজ দীর্ঘস্থায়ী করার সহজ উপায়। ‘মুখ ভালোভাবে ধুয়ে এক টুকরো বরফ ঘষে নিন। ভালো করে মুখ মুছে ময়েশ্চারাইজার লাগান। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে মুখে ও গলায় ভালোভাবে সানব্লক লাগিয়ে নিন। এরপর ভেজা পাফের সাহায্যে মুখে কমপ্যাক্ট পাউডার লাগান। সব শেষে ফিক্সিং স্প্রে দিয়ে সারা মুখে স্প্রে করুন। দুপুর পর্যন্ত নিশ্চিন্তে পার করার মতো বেইজ মেকআপ শেষ। চোখে একটু কাজল কিংবা লাইনারের রেখা দিয়েই সাজ শেষ করুন। চাইলে সোনালি ঘেঁষা শ্যাডোর পরশ বুলিয়ে নিতে পারেন। না দিলেও স্নিগ্ধতায় ঘাটতি হবে না। উৎসবের আমেজ আসুক রাঙা ঠোঁটে। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে কিংবা বিপরীত উজ্জ্বল রঙা লিপস্টিক লাগান। শাড়ি বা সালোয়ার-কামিজ—পোশাক যা-ই হোক, কাজের সুবিধার্থে চুলগুলো টেনে আঁটসাঁট করে বেঁধে নিন। রান্নাঘরের পর্ব গুছিয়ে চাইলে অতিথি আপ্যায়ন পর্বে চুলটা ছেড়েও রাখতে পারেন।

 

দীপ্ত দুপুরে

কাজ শেষে দুপুরের পরের সময়টুকু মনমতো সাজার। সাজে স্নিগ্ধতার বিকল্প নেই। রূপবিশেষজ্ঞ শারমিন কচি বললেন, সকালের মতোই হালকা বেইজ থাকুক। পোশাকে ফুটিয়ে তুলুন উৎসবের আনন্দ। ময়েশ্চারাইজার ও সানস্ক্রিন লগিয়ে তারপর ফাউন্ডেশন লাগান। ম্যাট ফাউন্ডেশন এই সময় আদর্শ। হাইলাইটের ট্রেন্ড জনপ্রিয় এখন। ব্যক্তিত্বের সঙ্গে মানানসই উজ্জ্বল হাইলাইটার সাজে আনবে ভিন্নমাত্রা। স্কিন টোনের চেয়ে একটু গাঢ় কনট্যুরিং পাউডার নিন। গালের দুই পাশে, কপালের ওপরের অংশে এবং নাকের দুই পাশে কনট্যুর পাউডার ব্রাশ দিয়ে লাগান। আর হাইলাইটিংয়ের জন্য ত্বকের চেয়ে দুই শেড হালকা পাউডার বেছে নিন। চোখের নিচে, গালে, কপালের মাঝখানে এবং নাকের ওপর হাইলাইট করুন।

 

দুপুর কিংবা বিকেল যখনই হোক, চোখের সাজের ট্রেন্ড এখন ন্যাচারাল। আইব্রোকে গুরুত্ব দিন। হালকা বাদামি পেনসিলে আইব্রো এঁকে ব্রাশ দিয়ে শেইপ ঠিক করে নিন। চোখে থাকুক হালকা রঙা শিমারি আইশ্যাডোর ছোঁয়া। কপার, গোল্ড, গ্রে কিংবা পিংক ঘেঁষা রং থাকতে পারে চোখের পাতায়। শ্যাডোর বদলে সবুজ, নীল কিংবা বেগুনিসহ রঙিন আইপেনসিলের নিরীক্ষাও মন্দ হবে না। কামিজ, টপস বা তাগাজাতীয় পোশাকের সঙ্গে আইলাইনার ব্যবহার করতে পারেন। তবে চোখের সাজে মাশকারা মাস্ট। পুরো মুখশ্রী সজীব ও প্রাণবন্ত দেখাতে মাশকারার জুড়ি নেই। হাসলে গালের যে অংশ ফুলে ওঠে, সেখানে ব্লাশনের হালকা ছোঁয়া রাখুন। নাক, কপাল আর চিবুকেও ব্লাশন ব্রাশ বুলিয়ে নিন। দিনের এই সময়টায় হালকা চোখের সাজের সঙ্গে গাঢ় বাদামি, মেরুন, হট পিংক ইত্যাদি রঙের লিপস্টিক উৎসবের আমেজ আনবে চেহারায়। লাল রঙের লিপস্টিক লাগাতে চাইলে ক্রিমসন রেড, চেরি, রুবি, রোজ রেড লাগাতে পারেন। উষ্ণ ত্বকের সঙ্গে লালের এই শেডগুলো দারুণ মানিয়ে যায়। এই আবহাওয়ায় ক্রিমি ম্যাট লিপস্টিক আদর্শ। অবশ্যই সব ধরনের মেকআপ কিট পানিনিরোধক হওয়া জরুরি। সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে চুল ব্লো করে খোলা রাখতে পারেন বা হালকা ডিজাইন করে বেণি করতে পারেন। শাড়ি পরলে খোঁপাই ভালো। সঙ্গে বেলি বা হালকা ঘ্রাণের ফুল পরতে পারেন। কপালে রাখুন ছোট টিপ।

 

উৎসবের সন্ধ্যায়

সন্ধ্যার সাজ নিয়ে কথা হলো শোভন মেকওভার স্কিন স্টুডিওর শোভন সাহার সঙ্গে। তাঁর মতে, সন্ধ্যা বা রাতের বেইজে ময়েশ্চারাইজার আর প্রাইমারের পরে স্টিক ফাউন্ডেশন যথেষ্ট। দাগ-ছোপ থাকলে কন্সিলার ব্যবহার হতে পারে। সব শেষে পাউডার বুলিয়ে নিন। চিকবোনে ব্লাশ ব্যবহার করতে ভুলবেন না। ব্লাশনের ব্লেন্ডিং যেন ভালো হয়, সেদিকে খেয়াল রাখুন। আয়নায় যেন আলাদা করে ব্লাশন বোঝা না যায়। চোখের ওপরে কপার, ব্রোঞ্জ কিংবা যেকোনো ম্যাটালিক কালারের আইশ্যাডো আঙুলের সাহায্যে ঘষে নিন। আইলাইনার কিংবা কাজল ইচ্ছামতো লাগাতে পারেন। ঘন মাশকারার প্রলেপে শেষ করুন চোখের সাজ। রাতের সাজ হাইলাইটার বা শিমার পাউডারের সীমিত ব্যবহার হতেই পারে। ত্বকের সঙ্গে মানিয়ে বেছে নিন হাইলাইটার। সাজে জমকালো ভাব আনতে লিপস্টিক যথেষ্ট। রক্তলাল, সিঁদুর লাল, খয়েরি, অ্যাপল রেড, ওয়াইন, গাঢ় গোলাপি, মেরুন, ডার্ক কফি ইত্যাদি রং বেশ মানাবে রাতের ঠোঁটে। বাহারি খোঁপা, বেণি আর মেটালিক চুলের কাঁটার ব্যবহার যেকোনো লুকের সঙ্গেই মানিয়ে যাবে। চুল স্ট্রেইট করে নিচের দিকটা কার্ল করে রাখতে পারেন। কিংবা সব চুল কার্ল করে তাতে ইচ্ছামতো হেয়ার স্টাইল করুন। আড্ডা, দাওয়াত কিংবা সন্ধ্যার সব উপলক্ষেই এই সাজ মানানসই।

 

জেনে রাখুন

►  সারা দিন পর্যাপ্ত পানি খান

►  ঈদের দু-এক দিন আগে চুলে কোনো হেয়ারপ্যাক লাগান। আগের রাতেই তেল দিয়ে শ্যাম্পু কন্ডিশনিং করে রাখুন।

►  রাতের মেকআপ করার আগে সময় পেলে ১০ মিনিটের জন্য মুখে কোনো ফেসপ্যাক লাগিয়ে রাখুন। ত্বকের ক্লান্তি ভাব কেটে যাবে।

►  বাইরে বের হওয়ার সময় ব্যাগে টাচআপ কিট রাখুন।

►  কন্টোরার খুবই হালকাভাবে দিন। চাইলে নাও দিতে পারেন। হাইলাইটারের ব্যবহারে মনোযোগ দিন।


মন্তব্য