kalerkantho


ময়মনসিংহ-৩ আসন

নৌকার প্রার্থিতায় এক ডজন নেতা, চলছে গণসংযোগ

নিয়ামুল কবীর সজল ও আলম ফরাজী, ময়মনসিংহ   

১২ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



শিল্প-সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যের জনপদ হিসেবে খ্যাত ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা। এই উপজেলার একটি পৌরসভা ও ১০টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত ময়মনসিংহ-৩ সংসদীয় আসন। আসছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রবীণ, নবীন আর নারী মিলে এক ডজন নেতা এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী। গণসংযোগ চালিয়ে যাওয়া এসব নেতার প্রায় সবারই এলাকায় কমবেশি গ্রহণযোগ্যতা আছে।

যাঁদের নাম আলোচনায় রয়েছে তাঁরা হলেন বর্তমান এমপি মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দীন আহমেদ, নাজনীন আলম, মোর্শেদুজ্জামান সেলিম, অধ্যক্ষ ড. এ কে এম আব্দুর রফিক, আলী আহাম্মদ খান পাঠান সেলভী, ডা. মতিউর রহমান, সৈয়দ রফিকুল ইসলাম, শরীফ হাসান অনু, ড. সামিউল আলম লিটন, আবুল কালাম মুহাম্মদ আজাদ, গোলাম মোস্তফা বাবুল, জ্যোতিকা জ্যোতি, রাবেয়া ইসলাম ডলি ও রুহুল আমীন।

বর্তমান এমপি নাজিম উদ্দিন আহমেদ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং বর্তমানে জেলার সহসভাপতি। সম্প্রতি উঠান বৈঠক করে বিভিন্ন এলাকায় জনসংযোগ করে যাচ্ছেন। এলাকার উন্নয়নেও তিনি ভূমিকা রেখে চলেছেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য নাজনীন আলম ২০১৪ সালের সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন। ওই নির্বাচনে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক ভোট পেয়ে গৌরীপুরে তিনি আলোচিত হয়ে ওঠেন। ওই সময়ই তাঁর সঙ্গে সাধারণ ভোটারদের যোগাযোগ ও সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তখন থেকেই নিয়মিত এলাকায় জনসংযোগ করছেন তিনি। মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে আরেক সজ্জন ব্যক্তি হলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রসংসদের সাবেক ভিপি ও বর্তমানে ময়মনসিংহ শহরের স্বনামধন্য ময়মনসিংহ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম কলেজের অধ্যক্ষ ড. এ কে এম আব্দুর রফিক। তৎসময়ের তুখোড় ছাত্রনেতা হিসেবে তিনি এখনো সুপরিচিত। ময়মনসিংহের বিভিন্ন মহলে তিনি সুপরিচিত এবং গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিত্ব। ভোটের মাঠে আছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আহাম্মদ খান পাঠান সেলভী। তিনি সুনামের সঙ্গে উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। এলাকায় পারিবারিক প্রভাব রয়েছে। পরিচ্ছন্ন ইমেজের মানুষ হিসেবে পরিচিত।

সাবেক ছাত্রনেতা ও বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শরীফ হাসান অনু নিজ এলাকায় ভোটের মাঠে ভালো প্রভাব রাখেন। দীর্ঘ সময় ধরে জনসংযোগে আছেন জেলার বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক ড. সামীউল আলম লিটন। এলাকায় একটা অবস্থান গড়ে তুলেছেন তিনি। মাঠে আছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট ও মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম মুহাম্মদ আজাদ, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা ওরফে ভিপি বাবুল। পৌর মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলামও একজন আলোচিত মনোনয়নপ্রত্যাশী। উপজেলা আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদিকা ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রাবেয়া ইসলাম ডলি মাঠে আছেন। গণসংযোগ করে চলেছেন ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ডা. মতিউর রহমান। এ ছাড়া অভিনেত্রী জ্যোতিকা জ্যোতিও নৌকার মনোনয়নপ্রত্যাশী বলে শোনা যাচ্ছে। মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ রুহুল আমীনের নামও রয়েছে আলোচনায়।



মন্তব্য