kalerkantho


সবচেয়ে উঁচু এই পাঁচ ভবন

এমন কিছু ভবন আছে, মেঘলা দিনে সেগুলোর চূড়া পর্যন্ত দেখা যায় না। বিশ্বের এমন ভবনগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ পাঁচটির কথা জানাচ্ছেন রিদওয়ান আক্রাম

১১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



সবচেয়ে উঁচু এই পাঁচ ভবন

অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, মেঘলা দিনে ‘বুর্জ খলিফা’র চূড়া এমন অবস্থাতেই থাকে!

১. বুর্জ খলিফা

আগে নাম ছিল ‘বুর্জ দুবাই’। বদলে হয়েছে ‘বুর্জ খলিফা’।

২০০৮ সাল থেকে বিশ্বের সর্বোচ্চ ভবনের তকমাটা এটার গায়েই। সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই শহরের এই ভবনের নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০০৪ সালে। ২০০৯ সালের ডিসেম্বরে কাজ শেষ হলেও উদ্বোধন হয় ২০১০ সালের জানুয়ারিতে। মূল ভবনটির উচ্চতা দুই হাজার ৭১৭ ফুট। ভূমি থেকে ওপরে রয়েছে ১৬৩টি ফ্লোর। স্থাপত্য নকশা ও গঠনের কাজ করেছে ‘স্কিডমোর উইংস অ্যান্ড মেরিল’। এর প্রধান স্থপতি ছিলেন অ্যাড্রিয়ান স্মিথ।

 

২. সাংহাই টাওয়ার

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ভবনটির কাজ শুরু হয় ২০০৮ সালে আর শেষ হয় ২০১৫ সালে। তবে জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয় ২০১৬ সালে।

চীনের সাংহাই শহরের আকাশের সবচেয়ে কাছে পৌঁছানো ১২৮ তলা ভবনটির মালিক সাংহাই সিটি কর্তৃপক্ষ। মূল ভবনটির উচ্চতা দুই হাজার ৭৩ ফুট। আছে বিশ্বের উচ্চতম পর্যবেক্ষণকেন্দ্র। বিশ্বের সবচেয়ে গতিশীল লিফট আছে এই ভবনে, সেকেন্ডে চলে ২০.৫ মিটার। ভবনটির নকশা করেছে ‘জেনসলার’।

 

৩. আবরাজ আল বাইত

সৌদি আরবের মক্কা শহরের পবিত্র হারাম শরিফের পাশেই বিশ্বের তৃতীয় উচ্চতম এই ভবন। মূলত হাজিদের কাবাঘরের খুব কাছাকাছি থাকার সুবিধা করে দেওয়ার লক্ষ্যে এটি তৈরি করা হয়েছে। ভবনটি নির্মাণ করার জন্য অটোমান সাম্রাজ্যের সময়কার অনেক পুরনো মসজিদ আর বাড়ি (আজাদ দুর্গসহ) ভেঙে ফেলা হয়।

২০০২ সালে এটার প্রস্তাবনা আর নকশার কাজ শুরু হয়। নির্মাণ শুরু হয় ২০০৪ সালে আর শেষ হয় ২০১২ সালে। পুরো কমপ্লেক্সটির মালিক বিন লাদেন গ্রুপ। আর্কিটেকচারাল, স্ট্রাকচারালসহ যাবতীয় নকশা এবং সুপারভিশনের কাজ করেছে লেবাননের ‘দার আল-হানদাশ শায়ার অ্যান্ড পার্টনারস’। ভবনটির উচ্চতা এক হাজার ৯৭২ ফুট। আছে ভূমি থেকে ওপরের দিকে ১২০টি তলা। তিনটি তলা আছে ভূগর্ভস্থ। ৯৬টি লিফট ব্যবহৃত হয় মূল ভবনটিতে। একসঙ্গে ১০ হাজার লোক নামাজ পড়ার মতো একটি মসজিদও আছে এই ভবনে।

 

৪. পিং এন ফিন্যান্স সেন্টার

বিশ্বের চতুর্থ উচ্চতম এই ভবন তৈরির কাজ শুরু হয় ২০০৯ সালে। কাজ শেষ হয়েছে চলতি বছর। মাঝের প্রায় এক বছর কাজ বন্ধ ছিল। চীনের ফুয়ানে অবস্থিত ১১৫ তলার এই ভবনটির উচ্চতা এক হাজার ৯৬৬ ফুট।   এর নকশা করেছে ‘কন পেডসন ফক্স অ্যাসোসিয়েটস’। ভবনটি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অফিস, হোটেল, কনফারেন্স সেন্টারসহ শপিং মল হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

 

৫. লটি ওয়ার্ল্ড টাওয়ার 

তেরো বছর ধরে পরিকল্পনার পর এই ভবনের কাজ শুরু ২০১০ সালে।

দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানীতে অবস্থিত এই স্থাপনাটি হচ্ছে বিশ্বের পঞ্চম উচ্চতম ভবন। ১২৩ তলার এই ভবনটির উচ্চতা এক হাজার ৮১৯ ফুট। সরকারি অর্থায়নে তৈরি এই ভবনের নকশা করেছে ‘কন পেডসন ফক্স অ্যাসোসিয়েটস’। ভবনটি খুলে দেওয়া হয় এ বছরের এপ্রিল মাসে। এতে আছে কাচের তৈরি বিশ্বের উচ্চতম পর্যবেক্ষণকেন্দ্র। এখান থেকে পুরো সিউল শহর দেখা যায়।


মন্তব্য