kalerkantho


জুলধা-ডাঙারচর সড়ক সংস্কার হয়নি ১৬ বছরেও

‘সড়কের দেড় কিলোমিটার অংশের উন্নয়নে টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পরও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু করেনি। তাই সড়কটির এ অবস্থা হয়েছে। বাকি অংশের কাজ খুব দ্রুত শুরু করা হবে।’

হুমায়ূন কবির শাহ্ সুমন, কর্ণফুলী (চট্টগ্রাম)   

৭ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



জুলধা-ডাঙারচর সড়ক সংস্কার হয়নি ১৬ বছরেও

কর্ণফুলী উপজেলার জুলধা ডাঙারচর সড়ক সংস্কারের অভাবে বেহাল দশা হয়েছে। ভোগান্তিতে আছেন এখানকার হাজার হাজার সাধারণ মানুষ, শিক্ষক-শিক্ষার্থী।

উপজেলার জুলধা পাইপের গোড়া থেকে ডাঙারচর ঘাট পর্যন্ত কয়েক কিলোমিটার সড়ক দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করেন হাজারো মানুষ।

শহরগামী বিভিন্ন পেশাজীবী, শ্রমিক, স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীদের চলাচলের একমাত্র সড়ক এটি। এছাড়া ডাঙারচর, দক্ষিণ জুলধা-এই দুই গ্রামের উপজেলা সদরে আসার একমাত্র আঞ্চলিক সড়ক এটি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সড়কটিতে সর্বশেষ ২০০২ সালে সংস্কারের কাজ হয়েছিল। সড়ক সংস্কার না হওয়ায় এ সড়ক দিয়ে কয়েক গ্রামের মানুষকে জুলধা পাইপের গোড়া থেকে ডাঙারচর যাওয়ার পথে ভোগান্তি পোহাতে হয়।

বর্তমানে সড়কের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়ে কাদাপানি জমে আছে। বৃষ্টিতে সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে ওঠে। ভোগান্তি মাথায় নিয়ে প্রতিদিন চলাচল করছে হাজার হাজার সাধারণ মানুষের।

স্থানীয় বাসিন্দা ডা. লাবলু কুমার দে বলেন, ‘বিগত বছর দশেক আগে সড়কটি ইট দিয়ে কার্পেটিংয়ের কাজ করা হয়েছিল। এরপর থেকে এখনো পর্যন্ত কোনো জনপ্রতিনিধির চোখ পড়েনি এ সড়কে। বৃষ্টি হলেই সড়কে কাদা জমে হাঁটারও অযোগ্য হয়ে যায়। দ্রুত সড়কটি সংস্কার হলে এলাকার মানুষের কষ্ট দূর হবে।’

স্থানীয় জুলধা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক আহমেদ বলেন, ‘এ সড়কে দেড় কিলোমিটার অংশ টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পরেও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু না করায় সড়কটির এ অবস্থা হয়েছে। বাকি অংশের কাজ খুব দ্রুত শুরু করা হবে।’

কর্ণফুলী উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা উপজেলা প্রকৌশলী কিবজিৎ দত্ত বলেন, ‘আমরা ইতোমধ্যে জুলধা ডাঙারচর সড়কের তিন কিলোমিটার সড়কের সংস্কারের কাজ শুরু করেছি। বাকি কিছু অংশের কাজ বরাদ্দ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আশা করি খুব শিগগির এ সড়কের সংস্কারের কাজ শেষ হবে।’



মন্তব্য