kalerkantho


রক্ত দিয়ে মানুষের জীবন বাঁচান ওঁরা

১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



রক্ত দিয়ে মানুষের জীবন বাঁচান ওঁরা

ওঁরা পাঁচ বন্ধু। মানুষের জীবন বাঁচিয়ে, মুখে হাসি ফুটিয়ে তৃপ্তি পান সবাই। প্রতিদিন বহু অসুস্থ রোগীকে দেন রক্ত। পাশাপাশি বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ, মাদকবিরোধী কর্মকাণ্ড ও বৃক্ষরোপণের মতো কর্মসূচি পালন করে জনসচেতনতা সৃষ্টি করে যাচ্ছেন। গড়ে তোলেছেন ‘সীতাকুণ্ড ব্লাড ডোনেট গ্রুপ’ নামে একটি সংগঠন। সমাজে আশার আলো ছড়াচ্ছেন সংগঠনটির কর্মীরা। প্রতিবেদন : সৌমিত্র চক্রবর্তী, সীতাকুণ্ড

 

চার বছর আগে সীতাকুণ্ড ব্লাড ডোনেট গ্রুপের আত্মপ্রকাশ ঘটে। মো. ফজল করিম নামে এক যুবক সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন। পরে তাঁর সঙ্গে যোগ দেন বেশ কিছু উদ্যমী যুবক। তবে সক্রিয়ভাবে সংগঠন পরিচালনা করেন পাঁচজন। শুরুতে শুধু রক্তদান করলেও ক্রমশ সংগঠনটির কর্মকাণ্ডের পরিধি বাড়তে থাকে। বিগত চার বছরে তাঁরা অসংখ্য মানুষকে রক্তদান করার পাশাপাশি বস্ত্র বিতরণ, মাদক প্রতিরোধ, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ, দরিদ্র শিক্ষার্থীদের শিক্ষাসামগ্রী বিতরণ, বৃক্ষরোপণসহ নানামুখী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছেন। 

সীতাকুণ্ড ব্লাড ডোনেট গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা মো. ফজল করিম, অ্যাডমিন জাহিদুল ইসলাম রুমন, নাজমুল সোহেল, সাইফুল আহমেদ ও জাহিদ হাসান নিবিড় জানান, সাধারণ মানুষের জীবন বাঁচানোর লক্ষ্য নিয়ে ২০১৩ সালের ২০ অক্টোবর সীতাকুণ্ড ব্লাড ডোনেট গ্রুপের যাত্রা শুরু হয়। এটি একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এলাকার কোথাও কোনো অসুস্থ রোগীর জরুরি রক্তের প্রয়োজন হলে ছুটে যান এ সংগঠনের সদস্যরা। সীতাকুণ্ডের বিভিন্ন হাসপাতালকে প্রতিমাসে ৩০০ ব্যাগ রক্ত সরবরাহ করেন তাঁরা। এভাবে বিগত চার বছরে শুধু সীতাকুণ্ডে অন্তত ১৪ হাজার ৪০০ ব্যাগ রক্ত দিয়েছে সংগঠনটি। রক্ত পেয়েছেন গর্ভবতী মা, থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত রোগী, ক্যান্সার আক্রান্ত রোগী, দুর্ঘটনার শিকার মানুষসহ বিভিন্নজন।

জানা গেছে, সংগঠনটি অনলাইনের মাধ্যমে তাঁদের কর্মকাণ্ডের প্রচারণা চালায়। সারাদেশে তাঁদের নেটওয়ার্ক গড়ে ওঠেছে। এই নেটওয়ার্ক যোগাযোগের মাধ্যমে কয়েক শ যুবক নিয়মিত রক্তদান করে যাচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে এলাকার বহু মানুষের কাছে তাঁদের ফোন নম্বর আছে। যেকোনো সময় জরুরি রক্তের প্রয়োজনে তাঁদের কাছে ফোন করেন অনেকে। খবর পেয়েই শুরু হয় তাঁদের তত্পরতা। গ্রুপের সদস্যরা পরস্পরের সাথে যোগাযোগ করে রক্ত বা ডোনার সংগ্রহ করে রক্ত দিয়ে আসেন। এছাড়া বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিনা মূল্যে ব্লাড গ্রুপিংয়ের মাধ্যমে রক্ত সংগ্রহ করেন তাঁরা।

সংগঠনের অ্যাডমিন জাহিদুল ইসলাম রুমন জানান, বিভিন্ন দুর্ঘটনার রোগীদের পাশাপাশি বেশ কিছু জটিল রোগাক্রান্ত রোগীকে তারা নিয়মিত রক্তদান করে আসছেন। থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত ফাহিমা আক্তার নামে এক রোগীকে নিয়মিত রক্ত দেন তাঁরা। এ পর্যন্ত অন্তত ৪০ ব্যাগ রক্ত দেওয়া হয়েছে তাঁকে। এছাড়া মিরসরাই পৌরসভার কাউন্সিলর সাহানা আকতার, সীতাকুণ্ড নুনাছড়ার জামশেদ এবং ছোট দারোগারহাটের এক ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীসহ বেশ কয়েকজনকে বাঁচাতে প্রতিমাসে রক্ত দেয় সংগঠনটি।

সীতাকুণ্ড ব্লাড ডোনেট গ্রুপের কাছ থেকে নিয়মিত রক্ত নেওয়ার কথা স্বীকার করে থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত সীতাকুণ্ড পৌরসভাধীন শিবপুর গ্রামের ফাহিমা আক্তারের মা রুমা আক্তার বলেন, ‘সংগঠনটি গত দুই বছর ধরে আমার থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত মেয়েকে নিয়মিত রক্ত দিয়ে জীবন বাঁচিয়ে রেখেছে।’ এজন্য সংগঠনটির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

রক্ত পেয়ে উপকৃত নুনাছড়ার জামশেদ উদ্দীন বলেন, ‘সীতাকুণ্ড ব্লাড ডোনেট গ্রুপের সদস্যদের সাথে পরিচিত হওয়ার পর আমি বিভিন্ন আত্মীয়-স্বজনের জন্য অনেকবার রক্ত নিয়েছি তাঁদের কাছ থেকে। এ রকম সংগঠন না থাকলে রক্ত ম্যানেজ করে জীবন বাঁচানো সত্যিই কঠিন হয়ে যেত।’

সংগঠনটির ইতিবাচক কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও বারৈয়াঢালা ইউপি চেয়ারম্যান মো. রেহান উদ্দিন রেহান। বলেন, ‘সম্প্রতি টেরিয়াইল বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে এ সংগঠনের বিনা মূল্যে ব্লাড গ্রুপিং অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলাম। সেখানে অন্তত ১১০০ শিক্ষার্থীর রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করেছিলেন তাঁরা। এছাড়া আমার এলাকার এক নারীকে নিয়মিত রক্ত দিয়ে বাঁচিয়ে রেখেছে সংগঠনটি। তাঁদের এসব কর্মকাণ্ড সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। সমাজের অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর এ উদ্যোগের জন্য আমি তাঁদেরকে ধন্যবাদ জানাই।’

গ্রুপটির প্রতিষ্ঠাতা ফজল করিম ও অ্যাডমিন রুমন বলেন, মানুষ যখন রক্তের জন্য খুব বিপদে পড়ে যান তখন আমরা এগিয়ে যাই জীবন বাঁচাতে। কারো জীবন বাঁচাতে পারলে, মুখে হাসি ফোটাতে পারলেই আমাদের চেষ্টা সার্থক বলে মনে হয়। একসময় শুধু রক্ত দিয়ে জীবন বাঁচাতে কাজ করতাম। পরবর্তীতে এর পাশাপাশি সহস্রাধিক দরিদ্র পরিবারকে বস্ত্র দিয়েছি। শিক্ষাসামগ্রী বিতরণসহ আরো নানান উপায়ে মুখে হাসি ফোটাতে সচেষ্ট থাকি আমরা।

সংশ্লিষ্টরা জানান, আগামী ২৮ অক্টোবর সীতাকুণ্ড ব্লাড ডোনেট গ্রুপের ৪র্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হবে। এ উপলক্ষে শোভাযাত্রাসহ জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে (এল কে সিদ্দিকী স্কয়ার) নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এসব কাজে কিছু প্রবাসী শুভাকাঙ্ক্ষী তাঁদের সহযোগিতা করছেন।

 



মন্তব্য