kalerkantho

তিশার ভক্ততিতান

চট্টগ্রামের নাট্যকর্মী তিতান চৌধুরী পড়াশোনার প্রয়োজনে থিতু হয়েছেন ঢাকায়। বাংলা ভিশনে ‘ঘোমটা’ ধারাবাহিকের মাধ্যমে পা রাখেন টিভি নাটকে। অভিনয় করেছেন ‘নগর মাস্তান’ ছবিতেও। এখন বেশি ব্যস্ততা নাটকে। লিখেছেন : রশীদ মামুন

৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



তিশার ভক্ততিতান

মডেল ও অভিনেত্রী তিতান চৌধুরী

চিকিৎসক বাবা চেয়েছিলেন মেয়েও চিকিৎসক হবে। কিন্তু না, মেয়ের ঝোঁক গান-বাজনা-অভিনয়ে। শিশু বয়সেই গুন গুন করে গাইতেন। গুরুর কাছ থেকে তালিম নেওয়া শুরু করেন চার বছরে। কণ্ঠশিল্পী হিসেবে মোটামুটি পরিচিতি পেতে শুরু করছিলেন। এক পর্যায়ে গান ছেড়ে জড়িয়ে যান অভিনয়ে। তবে অভিনয়টা শুরু মঞ্চে। এখন ব্যস্ত টেলিভিশন নাটকে। মাঝখানে বড়পর্দায় কাজ করেছেন। অভিনয়ের পাশাপাশি মডেলিং করেন। চলছে পড়াশোনাও।

নাম তাঁর তিতান চৌধুরী। চট্টগ্রামের মেয়ে তিতানের বাড়ি সাতকানিয়া উপজেলার উত্তর ঢেমশা গ্রামে। দুই বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে তিনি সবার বড়। বাবা সুমন চৌধুরী বিশিষ্ট চিকিৎসক। মা রিতা চৌধুরী গৃহিণী।

‘অনেকটা হুট করেই জড়িয়ে গেছি অভিনয়ে। ২০১৩ সালের শুরুতে কোনো একদিন চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে যাচ্ছিলাম গানের তালিম নিতে বড় কোনো গুরুর ব্যাপারে খোঁজখবর নিতে। কিন্তু গান আর শেখা হয়নি। যোগ দিলাম স্থানীয় নাট্যধারা থিয়েটারে। প্রথম অভিনয় করি সূর্য সেন নাটকে তাঁর স্ত্রী পুষ্পার চরিত্রে। নাটকটি বিভিন্ন স্থানে অনেকবার মঞ্চস্থ হয়। সবার প্রশংসা পেল আমার অভিনয়। উৎসাহ পেয়ে নিয়মিত হলাম মঞ্চে। ’

অভিনয়ে আসার এমনই গল্প শোনালেন তিতান।

চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ শেষ করেন তিনি। এর পর উচ্চতর ডিগ্রি নিতে ঢাকায় যান ২০১৪ সালে। রাজধানীর দ্য ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টেন্টস অব বাংলাদেশে (আইসিএমএবি) সার্টিফাইড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টস (সিএমএ) পড়ছেন। ওই বছরই কায়সার আহমেদের ‘ঘোমটা’ ধারাবাহিকের মাধ্যমে অভিনয় জগতে পা রাখেন। এরই মধ্যে অভিনয় করেন রকিবুল আলম রকিবের ‘নগর মাস্তান’ ছবিতে। তাঁর বিপরীতে ছিলেন নায়ক জায়েদ খান। ছবিটি মুক্তি পায় ২০১৫ সালের ২৩ অক্টোবর।

বড় পর্দায় আর কাজ করা হলো না কেন? জানতে চাইলে তিতান বলেন, ‘আমি আসলে নাটকের মানুষ। তবে সিনেমায় যে কাজ করব না তা নয়। কিন্তু তথাকথিত সিনেমায় কাজ করতে চাই না। ’

ভালো গল্পের ‘শালীন’ ছবি পেলে কাজ করার ইচ্ছে আছে জানিয়ে তিতান বলেন, ‘ছবিটিতে অবশ্যই সমাজ, দেশ ও মানুষের জন্য ভালো বার্তা থাকা চাই। ’

ছোটপর্দায় বেশি ব্যস্ততা তিতানের। কাজ করছেন বেশ কয়েকটি ধারাবাহিক নাটকে। এর মধ্যে তাঁর অভিনীত মিলন ভট্টাচার্যের ‘ইনডিসিপ্লিন’, অঞ্জন আইচের ‘মেঘের পরে মেঘ জমেছে’, মোহন খানের ‘নীড় খোঁজে গাঙচিল’, মাসুদ সেজানের ‘চলিতেছে সার্কাস’ এবং মুজিবুল হক খোকনের পরিচালনায় ‘মন থেকে দূরে নয়’ ধারাবাহিক বিভিন্ন টেলিভিশনে প্রচারিত হচ্ছে। এছাড়া প্রথমবারের মতো জনপ্রিয় অভিনেতা আনিসুর রহমান মিলন ও নাঈমের সঙ্গে জুটি বেঁধে ‘নাম আপন পর’ নাটকে অভিনয় করেন তিনি। নাটকটি পরিচালনা করেন চয়নিকা চৌধুরী। এটি গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসে এটিএন বাংলায় প্রচারিত হয়। এসব ধারাবাহিকের সঙ্গে আসছে বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে এক ঘণ্টার কয়েকটি নাটক নিয়ে ব্যস্ত সময় যাচ্ছে তাঁর। নাটকের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপন চিত্রেও অংশ নেন তিতান চৌধুরী।

জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশাকে দারুণ পছন্দ করেন তিতান চৌধুরী। বলেন, ‘তিশা আপুকে বেশি অনুসরণ করি। ’ আর তাঁর প্রিয় অভিনেতা হলেন মোশাররফ করিম।

মায়ের হাতের রান্না তাঁর এক নম্বর পছন্দ। ভারতীয় খাবারও তাঁকে বেশ টানে। সব ধরনের পোশাক পরলেও সেলোয়ার-কামিজই সবচেয়ে পছন্দের পোশাক তাঁর। অযথা আড্ডা মোটেও পছন্দ নয় তিতানের।

অবসরে ফেসবুকিং করেন, বই পড়েন। আর সুযোগ পেলেই মুঠোফোনে টানা কথা বলতে ভালোবাসেন চট্টগ্রামে থাকা মায়ের সঙ্গে।

‘চাটগাঁর মেয়ে হিসেবে গর্ব হয়। চাটগাঁ আমার প্রাণ, আমার ভালোবাসা। কাজের প্রয়োজনেই ঢাকায় থাকা। মাসে একবার চাটগাঁর বাতাস গায়ে মাখিয়ে ফিরি ঢাকায়। ’-যোগ করেন তিতান।


মন্তব্য