kalerkantho


একজন করে চুরি, অন্যজন পাহারায়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



আবদুর রহমান প্রকাশ সোনা মিয়া রিকশা চালাত। পেশাদার মোটরসাইকেল চোর জমির উদ্দিনের সঙ্গে পরিচয়ের পর রিকশা চালানোর পাশাপাশি সোনা মিয়াও জড়িয়ে পড়ে চুরির সঙ্গে। জমির মোটরসাইকেল চুরি করে আর চুরির সময় সোনা মিয়া পাহারা দেয়।

গতকাল শনিবার একটি চোরাই মোটরসাইকেল বিক্রি করতে এসে নগরীর বায়েজিদ বোস্তামি থানা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয় জমির আর সোনা মিয়া। তাদের কাছ থেকে মোটরসাইকেল কিনতে গিয়ে আটক হয়েছেন রাশেদুল আলম নামে এক যুবক।

বায়েজিদ বোস্তামি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন বলেন, ‘কালো রংয়ের বাজাজ মডেলের একটি মোটরসাইকেল কক্সবাজারের চকরিয়া থেকে চুরি করে জমির ও সোনা মিয়া নগরীতে বিক্রি করতে এসেছিল। ’

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার সকাল আটটার দিকে তাদের বায়েজিদের কাঁঠালবাগান এলাকা থেকে চোরাই মোটরসাইকেল বিক্রির সময় হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জেনেশুনে চোরাই মোটরসাইকেল কিনতে আসায় রাশেদকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ওসি জানান, জমির ও সোনা মিয়াদের চক্রে বাবুল নামে আরও একজনের তথ্য পেয়েছে পুলিশ। তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এছাড়া আরও তিনটি মোটরসাইকেল চুরির বিষয়ে তথ্য পেয়েছে পুলিশ।

  উদ্ধার হওয়া মোটরসাইকেলটির মালিকের সন্ধান চলছে।

গ্রেপ্তার হওয়া জমিরের বাড়ি কক্সবাজারের মহেশখালীতে এবং সোনা মিয়ার বাড়ি কক্সবাজার সদরে।   তবে জমির চকরিয়া উপজেলা সদরে থাকে বলে ওসি জানান। আটক রাশেদের বাড়ি বায়েজিদের নয়ারহাট এলাকায়। তিনজনের বিরুদ্ধে চোরাই মোটরসাইকেল কেনাবেচার অভিযোগে মামলা দায়েরের পর আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওসি মহসিন।


মন্তব্য