kalerkantho


মুহূর্তেই পরিষ্কার সমুদ্রসৈকত

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মুহূর্তেই পরিষ্কার সমুদ্রসৈকত

কক্সবাজার সৈকতে গতকাল পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমে অংশ নেন বিভাগীয় কমিশনারসহ কয়েক শ শিক্ষার্থী। ছবি : কালের কণ্ঠ

কাগজের টুকরা, পলিথিন, ডাবের খোসা, খালি বোতল, কাগজের টোঙা থেকে শুরু করে সব ময়লা-আবর্জনার স্থান হলো নির্দিষ্ট ঝুড়িতে। মুহূর্তেই পরিষ্কার করে ফেলা হল সৈকত।

চিক্ চিক্ করছিল বালুচর।

গতকাল বুধবার বিকেলে এমন দৃশ্য দেখা গেল কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতের লাবণী পয়েন্টে।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. রুহুল আমীনের নেতৃত্বে ছয় শতাধিক স্কাউট সৈকতে ওই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ নেন। সৈকতের লাবণী পয়েন্টে বুধবার বিকেলে পরিচ্ছন্নতা অভিযান উদ্বোধন করে রুহুল আমীন বলেন, ‘এটি একটা নজিরবিহীন কাজ। যে কাজটি করতে পয়সার দরকার সেটিই স্বেচ্ছায় করা হচ্ছে। তাও আবার করছে কক্সবাজারের ছয় শতাধিক শিক্ষার্থী। ’

বিভাগীয় কমিশনার আরো বলেন, ‘আন্তর্জাতিকমানের এই সৈকত নিয়ে আমরা গর্ববোধ করি। সৈকত পরিষ্কার রাখা আমাদেরই দায়িত্ব। ’

অভিযানে অংশ নেওয়া ১০ম শ্রেণির ছাত্র এস এম আকিবুল ইসলাম বলেছে, ‘বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকতে বেড়াতে আসেন দেশ-বিদেশের অনেক পর্যটক।

এমন সৈকতের পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ নিতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি। ’

উখিয়া উপজেলার মরিচ্যাপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র আকিব আরো নয়জন সহপাঠী নিয়ে সৈকতের অভিযানে অংশ নেয়। কুতুবদিয়ার বড়ঘোপ ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার ১০ম শ্রেণির ছাত্র সাঈদ মোহাম্মদ আরমান পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ নিয়ে তার প্রতিক্রিয়ায় জানায়, ‘আমি ছয় সহপাঠী নিয়ে এমন মহৎ কাজে অংশ নিতে পেরে ভালো লাগছে। যা আমাদের কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। ’

জানা গেছে, কক্সবাজারে শুরু হওয়া পাঁচ দিনব্যাপী স্কাউট সমাবেশেরই একটি কর্মসূচি হলো সৈকতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান। কক্সবাজার বিয়াম ফাউন্ডেশনে গত সোমবার শুরু হয়েছে এই স্কাউট সমাবেশ। এতে জেলার আট উপজেলা থেকে ৫৪টি দলে ছয় শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেয়।

বাংলাদেশ স্কাউট কক্সবাজার জেলা সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন বলেন, ‘স্কাউটরা দেশ গঠনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে। তারাই জাতির কাণ্ডারী হবে। ’

বুধবার বিকেলের সৈকত পরিচ্ছন্নতা অভিযানে জেলা প্রশাসক ছা্ড়াও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কাজি মো. আবদুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট খালেদ মাহমুদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আনোয়ারুল নাসের, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. সাইফুল ইসলাম মজুমদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা স্কাউট সম্পাদক তপন কুমার শর্মা বলেন, ‘সমাবেশে অংশ নেওয়া স্কাউটদের জন্য জ্ঞান-বিজ্ঞান, হাইকিং, তাঁবু জলসা, তাঁবুকলা, সকালের শরীরচর্চা থেকে শুরু করে ১০টি ইভেন্ট রাখা হয়েছে। ’

পর্যটক কামরুল হাসান বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের এমন অভিযান দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। ’


মন্তব্য