kalerkantho


মায়ের ভাষা শেখার প্রবল আগ্রহ পাহাড়ি শিশুদের

মনু ইসলাম, বান্দরবান   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মায়ের ভাষা শেখার প্রবল আগ্রহ পাহাড়ি শিশুদের

বান্দরবানের কোলাক্ষ্যংপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিজ ভাষায় পাঠ নেয় পাহাড়ি শিশুরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

বান্দরবান সদর উপজেলার কোলাক্ষ্যংপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঢুকতেই সুর করে পড়ার আওয়াজ এলো কানে। শিক্ষার্থীরা পড়ছে কাগ্রী, কাখৈ, গা ঙে. গাহাগ্রী, ঙা, চালুং, ছালিং...।

বয়সে কিছুটা বড় এক ছেলে সামনে দাঁড়িয়ে পড়াচ্ছে সবাইকে। তার সাথে সুর মিলিয়ে ক্লাসভর্তি সব

ছেলে-মেয়ে মারমা ভাষার বর্ণমালা পড়ছে কাগ্রী, কাখৈ, গা ঙে. গাহাগ্রী, ঙা, চালুং, ছালিং। বাংলায় যেমন ক, খ, গ, ঘ, ঙ, চ, ছ...।

ক্লাসরুমে ঢুকতেই লজ্জায় ওরা চুপ হয়ে গেল। অনুরোধ করার পর আবার পড়তে লাগলো কাগ্রী, কাখৈ, গা ঙে. গাহাগ্রী, ঙা, চালুং, ছালিং...।

দেশের সব কটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক প্রাথমিক শ্রেণিতে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিশুদের মাতৃভাষায় পড়ানোর জন্য সরকার চলতি শিক্ষাবছর থেকে মারমা, চাকমা, ত্রিপুরা, সানি্র ও গারো ভাষায় বই মুদ্রণ করে বিনা মূল্যে বিতরণ করেছে।

বান্দরবান শহরের কেন্দ্র থেকে আট কিলোমিটার দূরে আদিবাসী গ্রামের পাশেই একটি চমত্কার পাকা দালানে চলছে কোলাক্ষ্যংপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষাকার্যক্রম। বিদ্যালয়ের প্রাক প্রাথমিক শ্রেণিতে ১৯ জন মারমা এবং একজন চাকমা শিশু ভর্তি হয়েছে। কিন্তু ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মাতৃভাষায় মুদ্রিত একটি বইও পৌঁছেনি এই স্কুলে।

তাই, দুধের স্বাদ ঘোলে মিটাতে তারা পড়ছে এনজিও কর্তৃক গত বছর মুদ্রিত মারমা ভাষা ও বর্ণমালা শেখার সহায়ক বই।

যে ছেলেটি পড়াচ্ছে, ওর নাম উচিং মং মারমা। চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে। ছোট বয়সে ক্যায়াং (বৌদ্ধবিহার)-এ শিখেছে মারমা ভাষা। এই অভিজ্ঞতায় সে হয়েছে মারমা ভাষার ক্ষুদে শিক্ষক।

প্রধান শিক্ষক মিজ ড মে উ মারমা জানান, নিজ মাতৃভাষায় বইপড়ার আগ্রহ ওদের মধ্যে প্রবল। প্রতিদিন এসে ওরা মাতৃভাষার বই এসেছে কিনা-খবর নেয়। তাই পাঠ্য বইয়ের পরিবর্তে আপাততঃ ‘ইকো ডেভেলপমেন্ট’-এর বই দিয়েছি।

ড মে উ জানান, শুধু প্রাক প্রাথমিক শ্রেণির নয়, সব ছাত্র-ছাত্রীই ক্লাসের ফাঁকে দল বেঁধে কাগ্রী, কাখৈ, গাঙে. গাহাগ্রী, ঙা, চালুং, ছালিং পড়ে।

স্কুলের সহকারী শিক্ষক হ্লাসাং থুই মারমা। তিনি নিজে এক সময় মারমা ভাষা শিখেছিলেন। কিন্তু চর্চা না থাকায় এখন খুব একটা পারেন না।

হ্লাসাং থুই মারমা বলেন, ‘প্রাক প্রাথমিক শ্রেণিতে মারমা ভাষার বই পড়ানো শুরু হলে ছাত্র-ছাত্রীদের পাশাপাশি আমি নিজেও উপকৃত হব। ’


মন্তব্য