kalerkantho


আগুনে দোকান বসতঘর ও মুরগির খামার ছাই

দ্বিতীয় রাজধানী ডেস্ক   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



চট্টগ্রাম নগরী ও জেলার রাউজানে আলাদা অগ্নিকাণ্ডে তিনটি দোকান, চারটি বসতঘর ও একটি মুরগির খামার পুড়ে গেছে। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধির পাঠানো খবর :

নগরী : দুটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তিনটি সেমিপাকা দোকান ও চার কাঁচা বসতঘর পুড়ে গেছে।

গতকাল শনিবার ভোররাতে এসব অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের আগ্রাবাদ স্টেশনের অপারেটর রূপন কান্তি বিশ্বাস জানান, পাঁচলাইশ থানার দামপাড়া এলাকায় কয়েকটি দোকানে ভোররাত সাড়ে তিনটার দিকে আগুন লাগে। বৈদ্যুতিক গোলযোগ থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। এতে তিন মালিকের তিনটি সেমিপাকা দোকান পুড়ে গেছে। এর মধ্যে একটি টায়ারের দোকান, একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোর ও একটি কনফেকশনারির দোকান আছে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের আগ্রাবাদ স্টেশনের দুটি গাড়ি ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রায় একঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে ভোর সাড়ে চারটার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুনে প্রায় চার লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এর আগে রাত পৌনে তিনটার দিকে পতেঙ্গা থানার টিএসসি মেডিক্যাল গেট সংলগ্ন হাজিপাড়া এলাকায় আগুনে চার মালিকের চারটি কাঁচা বসতঘর পুড়ে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ইপিজেড স্টেশনের দুটি গাড়ি ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রায় দেড়ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে ভোর সোয়া চারটার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আগুনে প্রায় পাঁচ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে আগুন লাগার কারণ সম্পর্কে জানা যাবে বলে জানান তিনি।

রাউজান : মাত্র পাঁচ মাস আগে সুমন কুমার দে ও বজন বিশ্বাস নামে দুই যুবক পাঁচ লাখ টাকা খরচ করে মুরগির খামার গড়ে তুলেছিলেন। ভয়াবহ আগুনে মাত্র আধ ঘণ্টায় খামারটি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এ সময় খামারে প্রায় সাড়ে নয় হাজার মুরগি ছিল। ঘটনাটি ঘটেছে রাউজান উপজেলার চিকদাইর ইউনিয়নের নোয়ারাস্তার মাথা এলাকায়।

স্থানীয়রা জানান, গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত প্রায় দেড়টার দিকে ‘মা পোল্ট্রি ফার্ম’ নামে ওই খামারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, আগুন লাগার বিষয়টি রহস্যজনক। এলাকার লোকজন ও রাউজান ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। আগুনে কমপক্ষে ৩০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।


মন্তব্য