kalerkantho


পাহাড়ে প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে বান্দরবানে

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান   

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বান্দরবান জেলার প্রবেশদ্বার সুয়ালকের দেড় শ একর জমিতে হবে পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, আসন্ন শিক্ষাবর্ষে কমপক্ষে পাঁচ বিষয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। তবে ক্যাম্পাস নির্মাণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত জেলা শহরের একটি বহুতল ভবনে অস্থায়ীভাবে একাডেমিক কার্যক্রম চলবে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উ শৈ সিং এমপির প্রচেষ্টায় বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ এবং বান্দরবান শিক্ষা ও কল্যাণ ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে ‘বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয়’ প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে।

এ উপলক্ষে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় স্থানীয় ‘ভেনাস রিসোর্টে’ উভয়পক্ষের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। বান্দরবান শিক্ষা ও কল্যাণ ফাউন্ডেশনের পক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এবং বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের পক্ষে পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন।

অনুষ্ঠানে বান্দরবান পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল কুদ্দুস, সুয়ালক মৌজা হেডম্যান মং থোয়াই চিং মারমা, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও সাউদার্ন ইউনিভার্সিটির কয়েকজন শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ২৫ সদস্যবিশিষ্ট শিক্ষা ও কল্যাণ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন বীর বাহাদুর উ শৈ সিং। কো-চেয়ারম্যান হয়েছেন ক্য শৈ হ্লা। জনশক্তি ও কর্মসংস্থাপন মন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী মহসীন চৌধুরী (যুগ্ম সচিব), পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব সুদত্ত চাকমা ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুল আফসারকেও এই ফাউন্ডেশনের সদস্য করা হয়েছে।

বান্দরবান শিক্ষা ও কল্যাণ ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব নুরুল আফসার জানান, বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার কাজে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, লোকপ্রশাসন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নসরুল্লা বাহাদুর, সাউদার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম উদ্যোক্তা অধ্যাপক সারোয়ার জাহান এবং তথ্য প্রযুক্তিবিদ প্রকৌশলী মোস্তফা সাইফুল্লাহ টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট হিসেবে সহায়তা দিচ্ছেন।


মন্তব্য