kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চিকিৎসকদের সঙ্গে বিচারপতি খায়রুলের মতবিনিময়

স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে আরো আন্তরিকভাবে কাজ করার তাগিদ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে শিক্ষক-চিকিৎসকদেরকে আরো আন্তরিকভাবে কাজ করার তাগিদ দিয়েছেন বাংলাদেশ আইন কমিশনের চেয়ারম্যান এ বি এম খায়রুল হক। সাবেক প্রধান বিচারপতি আরো বলেন, ‘আদালতে বিচারক সংকট রয়েছে।

এরপরও বিচারকাজ এগিয়ে যাচ্ছে। কোনো স্থবিরতা নেই। একইভাবে চিকিৎসক স্বল্পতা ও নানা সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও চিকিৎসা কাজ এগিয়ে নিতে হবে। ’

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শিক্ষক-চিকিৎসকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন। হাসপাতালের সম্মেলন কক্ষে গত বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত চলে এ মতবিনিময় সভা।

দেশের স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে আইন কমিশন কর্তৃক আইনের খসড়া প্রস্তুতের লক্ষ্যে ওই সভার আয়োজন করা হয়েছে বলে জানানো হয়।

সভায় মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের বিভিন্ন বিভাগের শতাধিক শিক্ষক ও চিকিৎসক উপস্থিত ছিলেন। এতে বিভিন্ন বিষয়ে বক্তব্য দেন হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জালাল উদ্দিন, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর ও উপাধ্যক্ষ ডা. মুজিবুল হক খান, অধ্যাপক ডা. প্রদীপ কুমার দত্ত, ডা. আশরাফ আলী, ডা. সাহানারা চৌধুরী, ডা. প্রণব কুমার চৌধুরী, ডা. বাসনা মুহুরী, ডা. নাসির উদ্দিন মাহমুদ, ডা. নাজমুল হোসেন, ডা. মনোয়ারুল হক শামীম, ডা. নূর হোসাইন শাহীন প্রমুখ।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি, ইন্টার্নশিপ, চিকিৎসক-সহায়ক কর্মচারী ও প্রতিষ্ঠানিক দায়িত্বে অবহেলা, প্রশাসনিক অবস্থা, কর্মচারী সমিতি, চিকিৎসক রাজনীতি, বিএমডিসি, ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর, চিকিৎসার রেকর্ড ও তথ্যভাণ্ডার এবং অভিযোগ ও প্রতিকার সম্পর্কে সভায় গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হয়েছে। ’

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জালাল উদ্দিন জানান, আইন কমিশন বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে স্বাস্থ্যসেবা আইন প্রণয়নে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এর অংশ হিসেবে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান সংক্রান্ত বর্তমান সীমাবদ্ধতা চিহ্নিত করা ওই মতবিনিময় সভার মূল উদ্দেশ্য।

সভায় চিকিৎসকরা স্বাস্থ্যসেবা প্রদানে বিদ্যমান বিভিন্ন সমস্যা এবং তা থেকে উত্তরণের জন্য গ্রহণীয় পদক্ষেপ সম্পর্কে আলোকপাত করেন। কমিশনের সদস্যদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরও দেন চিকিৎসকরা। সভায় স্বাস্থ্যসেবার সার্বিক মানোন্নয়নে মেডিক্যাল শিক্ষা কার্যক্রমসহ হাসপাতাল পরিচালনার বিভিন্ন বিষয়ে সুনির্দিষ্ট সুপারিশ ওঠে আসে। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন আইন কমিশনের সদস্য বিচারপতি এ টি এম ফজলে কবীর, কমিশনের মুখ্য গবেষণা কর্মকর্তা ফইজুল আজিম ও গবেষণা কর্মকর্তা হাসান মো. আরিফুর রহমান।


মন্তব্য