kalerkantho


বীরকন্যার ৮৪তম আত্মাহুতি দিবস পালিত

প্রীতিলতা সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স নির্মাণকাজ এগিয়ে চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



প্রীতিলতা সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স নির্মাণকাজ এগিয়ে চলছে

পটিয়ার ধলঘাটে নির্মিত হচ্ছে প্রীতিলতা সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স। ইনসেটে প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার। ছবি : কালের কণ্ঠ

প্রিয় মাতৃভূমিকে পরাধীনতার কবল থেকে মুক্ত করতে জীবন উৎসর্গকারী বীরকন্যা প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের ৮৪তম আত্মাহুতি দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে তাঁর গ্রামের বাড়ি পটিয়ার ধলঘাটে এ উপলক্ষে প্রীতিলতার আবক্ষ মূর্তিতে প্রীতিলতা ট্রাস্ট, ধলঘাট ইউনিয়ন পরিষদ, ধলঘাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, বাসদ, পটিয়া প্রেস ক্লাব ও পটিয়া গৌরব সংসদ পুষ্পস্তবক দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

পরে সেখানে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রীতিলতা ট্রাস্টের নির্বাহী পরিচালক পঙ্কজ চক্রবর্তী। আরো বক্তব্য দেন সাংবাদিক নুরুল ইসলাম, এস এম এ কে জাহাঙ্গীর, আবদুর রাজ্জাক ও আবদুল হাকিম রানা, ট্রাস্টি সদস্য অরুণ বিকাশ চৌধুরী ও বিজয় ঘোষ, ইউপি সদস্য সুমি দে, রণধীর চক্রবর্তী, সমাজসেবী মোহাম্মদ আলী, অজিত দাশ, কৃষ্ণ চক্রবর্তী, নিহার বালা, মঞ্জু রায়, শিপ্রা দেব, রূপশ্রী চক্রবর্তী প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বর্তমান সরকার বীরকন্যা প্রীতিলতার নামে সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করায় সংস্কৃতিসেবীদের মাঝে আনন্দের বন্যা বয়ে যাচ্ছে। তাঁর আত্মাহুতির ৮৪ বছরে এ অর্জন সত্যিই গৌরবের। বক্তারা বাংলার প্রতিটি ঘরে ঘরে প্রীতিলতার আদর্শ ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানান।

জানা গেছে, ধলঘাটে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে নির্মিত হচ্ছে ‘প্রীতিলতা সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স’। চার কোটি ৩৪ লাখ ৮২ হাজার ৪৫০ টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও বীরকন্যা প্রীতিলতা ট্রাস্টের তত্ত্বাবধানে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এতে কারিগরি সহায়তা দিচ্ছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। ছয়তলা ফাউন্ডেশনে নির্মিতব্য চার তলার এ ভবন নির্মাণের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কনসোনেল ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যান্ড বিল্ডার্স।

প্রীতিলতা ট্রাস্টের নির্বাহী পরিচালক পঙ্কজ চক্রবর্তী জানান, বর্তমানে প্রকল্পের ৬০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। পটিয়ার সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরীর প্রচেষ্টায় সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের আন্তরিক সহায়তায় প্রকল্পটি আলোর মুখ দেখেছে। তিনি বলেন, ‘পটিয়ায় শিশু-কিশোরদের মেধা বিকাশে স্থায়ী কোনো সাংস্কৃতিকচর্চা কেন্দ্র এখানে গড়ে না ওঠায় সংস্কৃতিকর্মীরা হতাশ ছিলেন। বর্তমানে প্রীতিলতা সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পেলে এখানে সংস্কৃতিচর্চার অবারিত সুযোগ সৃষ্টি হবে। ’

তিনি জানান, বাস্তবায়নাধীন বীরকন্যা প্রীতিলতা সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে থাকবে বালিকা স্কুল অ্যান্ড কলেজ, নারী ব্যায়ামাগার, পাঠাগার, নারী উন্নয়ন প্রকল্প এবং বিপ্লবীদের স্মৃতি সংরক্ষণে জাদুঘর। এছাড়া থাকবে একটি মিলনায়তন।

 


মন্তব্য