kalerkantho


ইউএই কার্গো ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন

শাহ আমানতে আটকে থাকা পণ্যের জরিমানা মওকুফ দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ব্যাগেজ রুলের আওতায় আনা আইনি জটিলতায় আটকে থাকা পণ্যের জরিমানা মওকুফের দাবি জানিয়েছে ইউএই কার্গো ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন।

গতকাল বুধবার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে  সংগঠনের সভাপতি মো. আনোয়ারুল আশরাফ চৌধুরী বলেন, ‘পণ্যগুলো বিমানবন্দরে আটকে থাকার কারণে মধ্যপ্রাচ্যের ৭টি স্টেটে কার্গো ব্যবসার সঙ্গে জড়িত প্রবাসীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

এসব মামলায় বেশ কয়েকজন জেলে আছেন। অনেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। ’

এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে প্রবাসী কল্যাণ পরিষদের সভাপতি সৈয়দ মুসলেহ উদ্দিন বলেন, ‘প্রবাসীদের প্রতি সহমর্মিতা ও সহনশীল হয়ে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরের ওয়্যার হাউসের জরিমানা মওকুফ করার আবেদন জানাই। ’

লিখিত বক্তব্যে আনোয়ারুল আশরাফ বলেন, ‘রেমিটেন্স সৈনিকদের সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রী এগিয়ে আসবেন। প্রবাসীরা বারবার ব্যাগেজ নীতিমালা নিয়ে কাস্টমস কর্তৃপক্ষের আইনি জটিলতার শিকার হচ্ছেন। সেহেতু প্রবাসীবান্ধব নতুন ব্যাগেজ নীতিমালা করা হোক। ’

তিনি আরো বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যে প্রায় ৫০ লাখ প্রবাসী বাংলাদেশি বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত। অধিকাংশ নিম্ন আয়ের। ফলে তাঁরা নিয়মিত দেশে আসতে পারেন না।

তাই পরিবারের চাহিদা মেটাতে প্রয়োজনীয় কিছু দ্রব্য পাঠান। কিন্তু গত চারমাস ধরে ওই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে প্রবাসীদের পরিবার। ’

চক্রবৃদ্ধি হারে জরিমানা মওকুফ করে ওয়্যার হাউসের নিয়মিত চার্জ প্রতি ইউনিট সাড়ে ৩ টাকা হারে আদায় করে প্রবাসীদের মালামাল খালাসের সুযোগ দেওয়ার দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গত চারমাস ধরে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে প্রায় ৬০০ টন পণ্য আটকে ছিল। সমপ্রতি প্রবাসীরা প্রায় ২০০ টন পণ্য খালাস নিয়েছেন। আরো ৪০০ টন পণ্যে ৫ কোটি টাকার বেশি জরিমানা এসেছে। যা পণ্য মূল্যের দ্বিগুণের চেয়ে বেশি। ফলে এসব পণ্য খালাস নিতে পারছেন না প্রবাসীরা।

সংবাদ সম্মেলনে ইউএই কার্গো ওনার্স অ্যাসোসিয়েশননের সাধারণ সম্পাদক মো. আযম তালুকদার, প্রচার সম্পাদক মো. খোরশেদুল আলম, প্রবাসী কল্যাণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এস এম মঈনুল হোসাইন মঈন, প্রচার সম্পাদক মো. আবু তাহের প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য