kalerkantho

সোমবার । ১৬ জানুয়ারি ২০১৭ । ৩ মাঘ ১৪২৩। ১৭ রবিউস সানি ১৪৩৮।


বেহাল রাস্তাঘাট, ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকে আবর্জনা

ফেনী বিসিক শিল্পনগরী

আসাদুজ্জামান দারা, ফেনী   

১৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



বেহাল রাস্তাঘাট, ছড়িয়ে  ছিটিয়ে থাকে আবর্জনা

ফেনীর বিসিক শিল্প নগরীর এবড়োথেবড়ো সড়ক। - ছবি : কালের কণ্ঠ

অন্তহীন সমস্যায় জর্জরিত ফেনী বিসিক শিল্পনগরী। রাস্তাঘাটের বেহাল দশা। পানি সরবরাহ নেই। প্রয়োজনের তুলনায় গ্যাস সরবরাহ কম। যত্রতত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকে ময়লা-আবর্জনা। পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা অপর্যাপ্ত। ফলে নষ্ট হচ্ছে সার্বিক পরিবেশ।

ফেনীর চাড়িপুরে রয়েছে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের (বিসিক) শিল্পনগরী। এখানে আছে জেনীথ ফার্মা, হীরা বিস্কুট অ্যান্ড ব্রেড ইন্ডাস্ট্রিজ, মধুমেলা, সামছুদ্দিন টাওয়ালস, কোয়ালিটি জুট মিল, আনোয়ারা টেক্সটাইল মিল, ফেনী দাওয়াখানা, সাকুরা বিস্কুট, আবুল খায়ের ম্যাচ, শতরূপা হ্যান্ডমেড পেপার ও শুকতারা হ্যান্ডমেড পেপারসহ ছোট-বড় ৪৪টি শিল্পকারখানা।

সরেজমিন দেখা যায়, সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে যুগসই কোনো প্রযুক্তি ও অবকাঠামোগত সহায়তা নেই ওই শিল্প এলাকায়। বাস বেঁধেছে সীমাহীন সমস্যা। কর্তৃপক্ষের দিকে তাকিয়ে না থেকে কারখানার মালিকরা নিজেরাই সমাধান করছেন নানা সমস্যা।

বিসিকের অভ্যন্তরে রাস্তাঘাট ভাঙাচোরা। গত ১০ বছর ধরে নেই পানির সরবরাহ।   গ্যাসের সরবরাহ কম এবং গ্যাসের শিল্পসংযোগ বন্ধ থাকায় শিল্প মালিকরা পড়েছেন বিপাকে। উত্পাদন বাড়াতে না পারায় লোকসানের সম্মুখীন  হচ্ছেন সবাই। এছাড়া শিল্প এলাকার যত্রতত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকে ময়লা-আবর্জনা। পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থাও অপর্যাপ্ত। ফলে নষ্ট হচ্ছে সার্বিক পরিবেশ। শিল্পনগরী কর্মকর্তা নিজেই অন্যত্র থেকে পানির লাইন টেনে ব্যবহার করেন।

জানা গেছে, আগে বিসিকের উদ্যোগে এডিবির সহায়তায় নৈপুণ্য বিকাশ কেন্দ্রের মাধ্যমে দক্ষ শ্রমিক তৈরির প্রশিক্ষণ দেওয়া হলেও আর্থিক সংকটের কারণে বর্তমানে তাও বন্ধ আছে। কয়েকটি কারখানার মালিক জানান, শিল্প এলাকায় পানির সরবরাহ না থাকায় অনেক শিল্প মালিক নিজ খরচে বসিয়েছেন গভীর নলকূপ। এছাড়া নিজেরাই করেছেন সড়কের মেরামতসহ পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা।

বিসিক শিল্প মালিক সমিতির সহ-সভাপতি ও হীরা ব্রেড অ্যান্ড সুইটসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আনোয়ার হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিসিক থেকে কোনো আর্থিক সহায়তা পাওয়া যায় না। রাস্তাঘাটের বেহাল দশার কারণে আমরা নিজেরাই ইট ও মাটি ফেলে রাস্তা মেরামত করেছি। ’

ফেনীর বিসিক শিল্পনগরী কর্মকর্তা আলী আজগর জানান, সমস্যাগুলোর কথা তাঁরা কয়েক দফা লিখিতভাবে আঞ্চলিক কার্যালয়ে জানালেও কোনো বিহিত হয়নি। অর্থ বরাদ্দের অভাবে বিসিকের সব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড গতিহীন হয়ে পড়ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিসিক দেশের ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উন্নয়ন ও সমপ্রসারণে সরকারি একটি প্রতিষ্ঠান। উত্পাদন বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দারিদ্র্য বিমোচন, ভারসাম্যপূর্ণ আঞ্চলিক উন্নয়ন, অর্থ ও মানব সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ এবং দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে বিসিকের জন্ম হয়। এই প্রতিষ্ঠানের কাজ হচ্ছে  উন্নত রাস্তাঘাট, পানি, বিদ্যুৎ, গ্যাস ইত্যাদি সুবিধাসম্বলিত শিল্পনগরী, শিল্পপার্ক স্থাপনের মাধ্যমে উন্নত প্লট বরাদ্দ দান, নিজস্ব কর্মসূচির মাধ্যমে ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতায় উদ্যোক্তাদের ঋণ সহায়তা প্রদান, প্রকল্প প্রোফাইল প্রণয়ন ও প্রকল্প মূল্যায়ন, শিল্প ইউনিট স্থাপন, পণ্যের উত্পাদন-মানোন্নয়ন ইত্যাদি বিষয়ে কারিগরি ও অন্যান্য সহায়তা প্রদান, উন্নত মানের নকশা উদ্ভাবন ও বিতরণ, লাগসই প্রযুক্তি আহরণ ও স্থানান্তর, উদ্ভাবন, ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পে বিনিয়োগ, উত্পাদন ও বাজারজাতকরণের প্রযুক্তিগত ও অন্যান্য তথ্য সংগ্রহ, সংকলন ও বিতরণ, শিল্প সমপ্রসারণ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় গবেষণা, সমীক্ষা জরিপ ইত্যাদি পরিচালনা, শিল্প স্থাপনে প্রয়োজনীয় বিনিয়োগ-পূর্ব ও বিনিয়োগ-উত্তর পরামর্শ প্রদান করা। বিসিক-এর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ উদ্যোগে একসময় দেশে প্রচুর শিল্পোদ্যোক্তা সৃষ্টি এবং শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপিত হলেও বর্তমানে যুগোপযোগী পদক্ষেপের অভাবে অনেকটা ঝিমিয়ে পড়েছে প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম।


মন্তব্য