kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চকরিয়া

প্রতীক পেয়ে প্রার্থীদের প্রচার শুরু

চকরিয়া প্রতিনিধি   

৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



প্রতীক পেয়ে প্রার্থীদের প্রচার শুরু

কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে ৬৮ প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে প্রতীক বরাদ্দ কার্যক্রম শুরু হয়।

শুক্রবার ছিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষদিন। সাধারণ কাউন্সিলর পদে তিন ওয়ার্ড থেকে একজন করে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেন। চূড়ান্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন মেয়র পদে দুজন, সংরক্ষিত কাউন্সিলরে ২০ এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৬ জন। এখানে ভোটগ্রহণ আগামী ২০ মার্চ।

এদিকে প্রতীক পাওয়ার পর পরই আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু করেছেন প্রার্থীরা। তাঁদের কর্মী ও সমর্থকেরা প্রচারযন্ত্র (মাইক) নিয়ে পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারে নেমে পড়েছেন। পৌরসভার সব অলিগলি এখন মুখরিত। বিশেষ করে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আলমগীর চৌধুরী ও বিএনপির বর্তমান পৌর মেয়র নুরুল ইসলাম হায়দারের প্রচার-প্রচারণায় মানুষের ঢল নামছে। ওই দুই প্রার্থী যেখানে যাচ্ছেন সেখানে উপচে পড়ছে মানুষ।

বিএনপির প্রার্থী নুরুল ইসলাম হায়দার বলেন, ‘দলীয় প্রতীক ধানের শীষ বরাদ্দ পাওয়ার পর আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচার শুরু করেছি। যেখানে যাচ্ছি ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আশা করি পৌরবাসী আমাকে আবার মেয়র নির্বাচিত করবেন। ’

আওয়ামী লীগের প্রার্থী আলমগীর চৌধুরী বলেন, ‘দলীয় প্রতীক নৌকা বরাদ্দ পাওয়ার পর আনুষ্ঠানিক প্রচারে নেমেছি। পৌরবাসী ২০ মার্চ প্রমাণ করে দেবেন তাঁরা উন্নয়ন ও নৌকা প্রতীকের পক্ষে। ’ তিনি আরো বলেন, ‘যেখানে যাচ্ছি সেখানেই দেখছি রাস্তাঘাটের করুণ দশা, বেহাল ড্রেনেজ ব্যবস্থা। ’

চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মেছবাহ উদ্দিন বলেন, ‘মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষদিন শুক্রবার চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২, ৬ ও ৭ নম্বর ওয়ার্ড থেকে একজন করে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। মেয়র ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে কেউ প্রার্থীতা প্রত্যাহার না করায় তিন পদে চূড়ান্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়েছেন মোট ৬৮ প্রার্থী। শনিবার তাঁদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন করা হয়েছে। ’


মন্তব্য