মাটি খুঁড়ে বের করা হল অস্ত্র-332597 | দ্বিতীয় রাজধানী | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৪ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৬ জিলহজ ১৪৩৭


পাঁচ ডাকাত ও ছয় ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার

মাটি খুঁড়ে বের করা হল অস্ত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



নগরের চান্দগাঁও থানা পুলিশ ডাকাতির অভিযোগে অস্ত্রসহ পাঁচজন এবং বায়েজিদ বোস্তামী থানা পুলিশ ছয় ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে লুট হওয়া মালামাল ও ডাকাতির সরঞ্জাম এবং ছিনতাইকারীদের কাছ থেকে একটি খেলনা পিস্তল, একটি চাপাতি এবং একটি ছোরা উদ্ধার করা হয়েছে।

গত শুক্রবার রাতে চট্টগ্রাম জেলার বোয়ালখালী এবং বায়েজিদ বোস্তামী থানা এলাকায় পুলিশ আলাদা অভিযান চালায়। ডাকাতির অভিযোগে গ্রেপ্তারকৃতরা হল ফজলুল করিম রিংকু (২৫), মো. আরমান ওরফে জিসান (২২), জোবায়ের হোসেন রায়হান (২৩), মোহাম্মদ মামুন (২২) ও তপন ধর।

এর আগে এ ঘটনায় সাদ্দাম হোসেন নামে আরেকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা বোয়ালখালী, বায়েজিদ বোস্তামী ও চান্দগাঁও থানা এলাকার বাসিন্দা। গ্রেপ্তারকৃতদের দেওয়া তথ্যে পরে অভিযান চালিয়ে অনন্যা আবাসিক এলাকা থেকে মাটি খুঁড়ে একটি টু টু বোরের পিস্তল ও একটি এলজি উদ্ধার করা হয়।

এ প্রসঙ্গে চান্দগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহজাহান কবির জানান, গত ২৭ ফেব্রুয়ারি বাহির সিগন্যাল বেপারিপাড়ার শ্যামলী আবাসিক এলাকার মাওলানা মঞ্জিলে কারি জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরীর বাসায় ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ওই বাসার স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোনসহ মূল্যবান জিনিসপত্রসহ ১২ লাখ ৮২ হাজার টাকা লুটের অভিযোগে থানায় ডাকাতির মামলা করা হয়।

মামলার আসামি গ্রেপ্তার ও মালামাল উদ্ধার অভিযানের প্রথম পর্যায়ে ৩ মার্চ সাদ্দাম হোসেনকে (২১) গ্রেপ্তার করা হয়। পরবর্তীতে ৪ মার্চ রাতে বাকি চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের পর তাদের দেওয়া তথ্য মতে, অনন্যা আবাসিক এলাকার মাটি খুঁড়ে দুটি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এছাড়া আসামিদের কাছ থেকে স্বর্ণালঙ্কারসহ বেশ কিছু লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধার করা হয়। পরে আসামিদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

বায়েজিদে ছয় ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার : বায়েজিদ বোস্তামী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন জানান, ছয় তরুণ খেলনা পিস্তল ও দেশে তৈরি অস্ত্র দিয়ে লোকজনকে জিম্মি করে ছিনতাই করে।-এমন অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ২৮ ফেব্রুয়ারি দুজন এবং ৪ মার্চ চারজনসহ মোট ছয়জনকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হল মো. রিটন (১৮), মেহেদি হাসান (২২), দেলোয়ার হোসেন (১৮) ও মো. রিপন (১৮)। এদের মধ্যে রিটনের কাছ থেকে একটি চাপাতি উদ্ধার করা হয়।

ওসি জানান, ছয় তরুণ দিনে কলকারখানায় চাকরি করে। সন্ধ্যায় ছিনতাই করে। এছাড়া ছুটির দিনে পুরোদিন ছিনতাইয়ে লিপ্ত থাকে। তারা বায়েজিদ বোস্তামী থানার শেরশাহ সাংবাদিক হাউজিং সোসাইটি এলাকা ঘিরে ছিনতাই কর্মকাণ্ড চালায়।

ওসি মোহাম্মদ মহসিন বলেন, ‘শেরশাহ সাংবাদিক হাউজিংয়ের পাহাড়ে ছুটির দিনে বিভিন্ন স্থান থেকে লোকজন বেড়াতে আসেন। সন্ধ্যার পর হাউজিংয়ের ভেতরের রাস্তা দিয়ে স্থানীয়রা যাতায়াত করেন।  ছয়জনের দল দুই-তিন ভাগে ভাগ হয়ে পাহাড়ে ওত পেতে থাকে। সুযোগ পেলে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে টাকা-পয়সা ও মোবাইল সেট ছিনতাই করে পালিয়ে যায়।’

মন্তব্য