kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


উখিয়ায় প্রথম স্ট্রবেরিচাষ

তোফায়েল আহমদ, কক্সবাজার   

১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



উখিয়ায় প্রথম স্ট্রবেরিচাষ

উখিয়ায় পরিত্যক্ত জমিতে স্ট্রবেরি চাষ করে সফল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাঈন উদ্দিন। ছবি : কালের কণ্ঠ

কক্সবাজারের সীমান্তবর্তী উপজেলা উখিয়ায় এ প্রথম স্ট্রবেরিচাষ হয়েছে। ফলনও বেশ ভালো।

আর সেই সফল চাষি হলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাঈন উদ্দিন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয় ও বাসা সংলগ্ন পাহাড়ি একখণ্ড জমি দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়েছিল। গত বছরের সেপ্টেম্বরে যোগদান করেন মাঈন উদ্দিন। তিনি আসার পর থেকে সেই পরিত্যক্ত জমি নিয়ে ভাবতে থাকেন। খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন ওই এলাকায় এখনো স্ট্রবেরি চাষের প্রসার ঘটেনি। এমনকি বিদেশি জাতের গোলাপ চাষও নেই। এ ব্যাপারে স্থানীয়দের উদ্বুদ্ধ করতে ও  সচেতনতা সৃষ্টি করতে জমিটিতে তিনি স্ট্রবেরিচাষ শুরু করেন। একই সঙ্গে ড্রাগন ফল ও গোলাপ চাষও করা হয়। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এর মধ্য দিয়ে উখিয়ায় প্রথমবারের মতো কেউ ওই স্ট্রবেরিচাষ করেছেন এবং সফল হলেন।

এ প্রসঙ্গে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাঈন উদ্দিন বলেন, ‘নিজ উদ্যোগে কৃষি বিভাগের সহযোগিতায় আমার সরকারি বাসভবনের পাশে ১৫ শতক পতিত জমিতে স্ট্রবেরি, ড্রাগন ফল ও গোলাপ ফুলের চাষ করেছি। অসাধারণ ফলন লক্ষ করছি। ’ ‘আমি কৃষি পরিবারের সন্তান। শৈশব থেকে কৃষিকাজ দেখে আসছি। এ কারণে কৃষির প্রতি আমার সহজাত টান রয়েছে। ’-যোগ করেন তিনি। তাঁর গ্রামের বাড়ি ফেনী জেলার সোনাগাজী উপজেলায়। ইউএনও জানান, চারা রোপণের ৩০ থেকে ৪০ দিনের মাথায় ফলন দিচ্ছে স্ট্রবেরি। টানা তিন মাস ওই ফল তোলা যাবে। এক মৌসুমে প্রতিটি গাছ থেকে ১৫/২০টি স্ট্রবেরি পাওয়া যায়।

জানা গেছে, এবার উৎপাদিত ফল থেকে চারা তৈরি করবেন তিনি। আগামী মৌসুমে উৎপাদিত চারা কৃষি বিভাগে সরবরাহ করা হবে। প্রতিকেজি স্ট্রবেরি ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা টাকায় বিক্রি করা হয়। উখিয়ায় একটি স্ট্রবেরি নার্সারি করার পরিকল্পনা রয়েছে ইউএনওর। এর মাধ্যমে এলাকায় এ ফলের চাষ ছড়িয়ে দিতে চান তিনি।

স্থানীয় পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের নারী সদস্য খোরশেদা বেগম বলেন, ‘উখিয়ার ইউএনওর স্ট্রবেরি ক্ষেত দেখে এলাকার মানুষ বেশ আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। ’

উপজেলা কৃষি বিভাগের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা বদিউল আলম বলেন, ‘ইউএনও স্যারের বাগানটি এখন দর্শনীয় স্থানে রূপ নিয়েছে। স্ট্রবেরি ক্ষেতের সাফল্য দেখে আমরাও সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আগামীতে পুরো উপজেলায় স্ট্রবেরিচাষ ছড়িয়ে দেব। ’

 


মন্তব্য