kalerkantho

পোষা সিংহের থাবায় নিভে গেল যুবকের প্রাণ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ মার্চ, ২০১৯ ১৬:২৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পোষা সিংহের থাবায় নিভে গেল যুবকের প্রাণ

বাড়িতে পোষা ছিল ৯ বছর বয়সী এক সিংহ। আর সেই পোষ্য সিংহের থাবাতেই নিভে গেল প্রাণ প্রভুর। মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে মধ্য ইউরোপের চেক প্রজাতন্ত্রে। মৃতের নাম মিশাল প্রাসেক।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মৃতের বাবা পোষ্য সিংহের খাঁচার মধ্যে থেকে ছেলের মরদেহ উদ্ধার করেন। পুলিশকে তিনি জানিয়েছেন যে, তিনি খাঁচার ভিতরে তাঁর ছেলেকে অবচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে খানিকটা ঘাবড়ে গিয়েছিলেন। আর সেইসময়ে খাঁচার দরজা ভেতর থেকে বন্ধ করা ছিল। 

জানা গেছে, চেক প্রজাতন্ত্রের পূর্বাঞ্চলে যদেচভ গ্রামে বসবাসকারী ওই ব্যক্তি নয় বছর বয়সী দুটি সিংহ এবং সিংহী পুষতেন নিজের বাড়িতেই। তেত্রিশ বছর বয়সী মৃত মিশেল প্রাসেক সিংহটি কিনেছিলেন ২০১৬ সালে এবং সিংহীটি কেনেন গত বছর। বাড়ির পিছনেই এক পরিত্যক্ত স্থানে একটি খাঁচা বানিয়ে তিনি রেখেছিলেন সিংহদুটিকে।

ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ মৃতদেহটিকে উদ্ধার করার চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হন। এরপর খাঁচার ভিতরে আলাদা আলাদা প্রকোষ্ঠে রাখা সিংহদুটিকে গুলি করে মারেন পুলিশকর্মীরা। পুলিশের একজন মুখপাত্রের তরফ থেকে সংবাদমাধ্যমকে জানানো নয় যে, সিংহের মতো হিংস্র পশুকে এর থেকে আর কোনও উপায়ে কাবু করা যাচ্ছিল না। আর তাছাড়া মৃতদেহটি উদ্ধার করার জন্য এই কাজ তাঁদের করতেই হয়েছে। ভেটেরিনারি কর্তৃপক্ষের সূত্রে জানা গিয়েছে যে, বাড়িতে সিংহ রাখার জন্য অনুমতি দেওয়া হয়নি তাঁকে। কিন্তু তা অগ্রাহ্য করেই বাড়িতে রেখেছিলেন সিংহ। সেইসময়ে খাঁচা বানানো এবং অবৈধভাবে বাড়িতে সিংহ রাখার জন্য জরিমানাও করা হয় তাঁকে। কিন্তু প্রিয় পোষ্যের হাতেই যে এইভাবে প্রাণ যাবে তা হয়তো স্বপ্নেও ভাবেননি ওই যুবক।

ওয়ার্ল্ড অ্যানিমাল প্রোটেকশন নামে একটি বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, যুবকের এই মর্মান্তিক পরিণতি থেকে একটা কথাই স্পষ্ট যে, এই রকম হিংস্র জীবজন্তু কখনওই বাড়িতে পোষা উচিত নয়।

ইন্টারনেট থেকে

মন্তব্য