kalerkantho


বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন

'বিশ্বের সেরা টয়লেট পেপার' পাকিস্তানের পতাকা!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১০:৪৪



'বিশ্বের সেরা টয়লেট পেপার' পাকিস্তানের পতাকা!

সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট গুগলে 'বেস্ট টয়লেট পেপার ইন দ্য ওয়ার্ল্ড' বা বিশ্বের সেরা টয়লেট পেপার লিখে সার্চ দিলে পাকিস্তানের পতাকার ছবি দেখাচ্ছে সার্চ ইঞ্জিনটি। ধারণা করা হচ্ছে ১৪ই ফেব্রুয়ারি ভারত অধ্যূষিত কাশ্মীরে হামলার প্রতিবাদে গুগল সার্চের বিভিন্ন বিষয় পরিবর্তন করে ভারতীয় বিক্ষোভকারীরা এই ব্যবস্থা করেছে।

কাশ্মীরে ওই হামলায় অন্তত ৪০ জন ভারতীয় আধা সামরিক সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। কাশ্মীরে ভারতের শাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু হওয়ার পর থেকে এটিই ছিল সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী হামলা। পাকিস্তান ভিত্তিক ইসলাম পন্থী জঙ্গী সংগঠন জাইশ-ই-মোহাম্মদ দাবি করেছে যে তারা এই আক্রমণের নেপথ্যে ছিল।

ভারত-শাসিত কাশ্মীরের পুলওয়ামাতে আত্মঘাতী হামলার পর এখন দেশের নানা প্রান্ত থেকে কাশ্মীরীদের ওপর হামলা ও চড়াও হবার খবর পাওয়া যাচ্ছে। পাকিস্তানের পতাকার সাথে টয়লেট পেপারের যোগসূত্রের বিষয়টি আলোচনায় আসে ১৪ই ফেব্রুয়ারির হামলার পর তা নিয়ে সমালোচনা তৈরি হওয়া কয়েকটি ব্লগ ব্যবহারকারীদের আলোচনায়। দ্রুতই এটি সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপক সাড়া তৈরি করে।

ধারণা করা হচ্ছে, সামাজিক মাধ্যমে আলোচনায় আসার পর পতাকার সাথে টয়লেট পেপারের যোগসূত্র খুঁজতে গিয়ে মানুষ গুগল সার্চ করার কারণে বিষয়টি বেশি করে গুগলের সার্চের তালিকার শীর্ষে আসছে। এখন 'বেস্ট টয়লেট পেপার ইন দ্য ওয়ার্ল্ড' বা বিশ্বের সেরা টয়লেট পেপার লিখে সার্চ দিলে ঐ সংক্রান্ত বেশকিছু খবর তুলে ধরছে; কিন্তু এই সার্চটি দিয়ে গুগলে ছবি খুঁজলে শুরুতেই পাকিস্তানের পতাকা সম্বলিত বেশ কয়েকটি পেইজের লিঙ্ক সামনে আসছে।

সার্চ রেজাল্টে আসা ছবির অনেকগুলো এ বিষয়ে তৈরি করা খবরে ব্যবহার করা ছবি। অন্যগুলো পাকিস্তানের পতাকার সাথে টয়লেট পেপারকে জড়িয়ে বিভিন্ন ব্লগে এবং সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশিত ছবি এবং ছবির স্ক্রিনশট। এটি কীভাবে হওয়া সম্ভব, সে বিষয়ে এখন পর্যন্ত গুগল কোনো মন্তব্য করেনি।

বিশেষ কোনো বিষয়ে সার্চ করে গুগলে অদ্ভূত ফল পাওয়ার ঘটনা এটিই প্রথম নয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ভারতীয় প্রেসিডেন্ট নরেন্দ্র মোদিকে জড়িয়ে এর আগেও ব্যাঙ্গাত্মক এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে অসম্মানজনক কন্টেন্ট তৈরি করে গুগল সার্চের মাধ্যমে প্রচার করা হয়েছিল। বাংলাদেশের সাবেক স্বৈরশাসক এরশাদকে নিয়েও ইন্টারনেটে এমন কন্টেন্ট দেখা যায়।



মন্তব্য