kalerkantho


ডিএনএ পরীক্ষার পর জানা গেল তিনি আরো তিনজনকে ধর্ষণ করেছেন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৭:৩৫



ডিএনএ পরীক্ষার পর জানা গেল তিনি আরো তিনজনকে ধর্ষণ করেছেন

কিশোরীকে ২০০৮ সালে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে মামলা হওয়ার পর গত ১০ বছর ধরে তদন্ত চলেছে। অবশেষে ৩৪ বয়সী ওই ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে  স্কটল্যান্ডের আদালত।

তবে অভিযুক্ত ব্যক্তির ডিএনএ পরীক্ষার পর আরো দু'জনকে ধর্ষণের আলামত পায় তদন্তকারীরা। শুনানিতে উঠে আসে, ২০০৮ সালের ১৯ মে এক কিশোরীকে ধর্ষণের জন্য হুমকি দিতে থাকেন ওই ব্যক্তি। তবে ওই কিশোরীর মা ঘটনাস্থলে চলে আসার কারণে বেঁচে যায় কিশোরী। তারপর ওই কিশোরীর মা থানায় অভিযোগ করেন।

ওই সময় কিশোরী জিন্স পরে ছিল। সেই জিন্স প্যান্ট পরীক্ষা করে অভিযুক্তের ডিএনএ পাওয়া গেছে। তার পর উঠে এসেছে, ওই ব্যক্তি ১৬ বছর বয়সী আরেক কিশোরীকেও ধর্ষণ করেছেন। তিনি নিজেও স্বীকার করেছেন, একটি ট্যাক্সির মধ্যে কিশোরীকে ধর্ষণ করেছেন তিনি।

২০০৯ সালে এক কিশোরীকে এবং ২০১৪ সালে এক তরুণীকেও ধর্ষণ করেছেন তিনি।

ধর্ষণের শিকার এক নারী আদালতে দাবি করেছেন, ধর্ষণের পর ওই ব্যক্তি তাকে হত্যার জন্য বাড়ি পর্যন্ত গেছে। এখনো সেই স্মৃতি তাকে মানসিকভাবে তাড়িয়ে বেড়ায়। এমনকি ধর্ষণের সময় ধ্বস্তাধ্বস্তি করলে চাকু মেরে মেরে ফেলারও হুমকি দিয়েছিল ধর্ষক।

তিনজনকে ধর্ষণ এবং আরেকজনকে ধর্ষণচেষ্টার জন্য ওই ব্যক্তিকে দোষী সাব্যস্ত করে সাজা ঘোষণা করা হয়েছে। ওই ব্যক্তিকে তিনবার যাবজ্জীবন সাজা শোনানো হয়েছে।



মন্তব্য