kalerkantho


সহিংসতার শঙ্কায় রথযাত্রার অনুমতি দেয়নি রাজ্য, থামবে না বিজেপি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪৮



সহিংসতার শঙ্কায় রথযাত্রার অনুমতি দেয়নি রাজ্য, থামবে না বিজেপি

আদালতের ধমক সত্ত্বেও বিজেপির রথযাত্রায় অনুমতি দেয়নি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে এই আশঙ্কা থেকেই অনুমতি দেওয়া হয়নি বলে জানানো হয়েছে।

শনিবার রাতে রাজ্য বিজেপিকে চিঠি দিয়ে এ কথা জানিয়ে দেওয়া হয়। পাশাপাশি তারা এটাও জানিয়েছে, বিজেপি যদি শুধু সভা করতে চায় তাহলে অনুমতি দেওয়া হবে। তবে তার জন্য আবারো আবেদন করতে হবে।

রাজ্যের এই সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছেন রাজ্য বিজেপি নেতৃবৃন্দ। রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়েই এই যাত্রা আটকানো হচ্ছে বলে তাদের অভিযোগ।

রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, রাজ্য যে সাম্প্রদায়িক হিংসার প্রশ্ন তুলেছে তা ভিত্তিহীন। এর আগেও অনেকগুলো রথযাত্রা হয়েছে। কিন্তু কোথাও কোনো সাম্প্রদায়িক হিংসা ছড়ায়নি বা শান্তি বিঘ্নিত হয়নি।

তিনি আরো বলেন, মমতার অঙ্গুলি হেলনেই এসব হচ্ছে। কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে ইতোমধ্যেই এ বিষয়ে জানিয়েছে রাজ্য বিজেপি। সেখান থেকে নির্দেশ আসার পরেই পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহকেও চিঠির বিষয়টি জানানো হয়েছে।

বিজেপি বলছে, শনিবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ তাদের রাজ্য দপ্তরে চিঠিটি ফ্যাক্স করেছে রাজ্য সরকার। তিন পাতার চিঠিতে বলা হয়েছে, গোয়েন্দা রিপোর্ট অনুযায়ী, যাত্রা ঘিরে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। আরএসএস, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, বজরং দলের মতো ‘উগ্র’ হিন্দুত্ববাদী সংগঠন যাত্রায় অংশ নিয়ে উত্তেজনা তৈরি করতে পারে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

তবে  বিজেপির দাবি, তাদের যাত্রা ‘রাজনৈতিক’। রথযাত্রা নয়, তারা ‘গণতন্ত্র বাঁচাও যাত্রা’ করতে চায়। এর সঙ্গে আরএসএস, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, বজরং দলের কোনো সম্পর্ক নেই।

দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, আদালতের দরজা খোলা আছে। প্রয়োজনে আমরা আইন অমান্য করব। গ্রেপ্তার হব। কিন্তু যাত্রা হবেই।

অন্যদিকে বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার বলেন, আদালতে গিয়ে হোক বা মানুষের দরবারে গিয়ে, যাত্রা আমরা করবই।



মন্তব্য