kalerkantho


‘মুসলিম হওয়ার কারণে অনেকের নাম তালিকায় আসেনি’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৪ আগস্ট, ২০১৮ ১৬:২৯



‘মুসলিম হওয়ার কারণে অনেকের নাম তালিকায় আসেনি’

হাসিবুন নেসা। ভারতের আসামের ৯০-ঊর্ধ্ব এক বাসিন্দা। তার জন্ম-বেড়ে ওঠা ওই রাজ্যে হলেও নাগরিকত্বের তালিকায় তার নাম আসেনি। ভারতীয় ভোটার আইডি কার্ড এবং পাসপোর্ট থাকা সত্ত্বেও, নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি না পাওয়ায় হতবাক এই বৃদ্ধা। এ অবস্থায় তিনি প্রশ্ন তুলেছেন পুরো নাগরিক নিবন্ধন প্রক্রিয়া নিয়েই।

তিনি বলেন, ‘এটা খুবই অপমানজনক। জীবনের এতোটা বছর এখানে বাস করলেও কীভাবে বাদ পড়লাম সেটাই বুঝতে পারছি না।’

খোদ আসামের বিধায়করাই এখন প্রশ্ন তুলছেন নাগরিক তালিকা নিয়ে। তারাও মানছেন, কেবল কর্তৃপক্ষের অবহেলাতেই বাদ পড়েছেন লাখ লাখ মানুষ।

এছাড়া মুসলিম হওয়ার কারণেও অনেকের নাম তালিকায় আসেনি বলেও অভিযোগ স্থানীয় বাসিন্দাদের। বাদ পড়াদের অধিকাংশই মুসলিম বলে জানান তারা। বর্তমানে বাদ পড়া বাসিন্দারা বিভিন্ন তথ্যকেন্দ্রে গিয়ে জানতে পারছেন, কী কারণে বাদ পড়লেন। সেই অনুযায়ী আগামী এক মাসের মধ্যে প্রয়োজনীয় নথি জমা দিতে হবে তাদের। এদিকে, এরই মধ্যে, যাদের নাম তালিকায় এসে গেছে, তাদেরও পুনরায় পর্যালোচনার আওতায় আনা হবে বলে জানায় কর্তৃপক্ষ।

আসামের নাগরিকত্বের তালিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন আরো অনেক স্থানীয় বাসিন্দা। তাদের অভিযোগ, ‘ভুলভাবে’ প্রণয়ন করা হয়েছে এ তালিকা। এ জন্য কর্তৃপক্ষের অবহেলাকেই দুষছেন তারা। বর্তমানে চলমান যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়ায় তথ্যকেন্দ্রের মাধ্যমে বাসিন্দারা জানতে পারছেন, কী কারণে বাদ পড়তে হলো তাদের। আগামী একমাসের মধ্যে প্রত্যেককে প্রয়োজনীয় নথি জমা দেয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এ অবস্থায় পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর আবারও অভিযোগ, বিজেপি সরকার আসামের মানুষদের নিয়ে স্রেফ ‘রাজনীতির খেলা’ শুরু করেছে।

রাজ্য এবং কেন্দ্রে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় থাকায় আসাম সংকট আরও জটিল আকার ধারণ করেছে বলে অভিযোগ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। সোমবার সাংবাদিকদের তিনি অভিযোগ করেন, বিজেপি আসামের মানুষদের নিয়ে রাজনীতি করছে, আর এই রাজনীতির বলি হয়েছেন ৪০ লাখ মানুষ। বাংলা ভাষায় কথা বললেই তারা বাংলাদেশি- এমন ধ্যান-ধারণা পরিত্যাগেরও আহ্বান জানান মমতা।



মন্তব্য